মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১
করোনা ছড়ানো

অভিযোগের বিরুদ্ধে মুখ খুললেন গেটস

যাযাদি ডেস্ক
  ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০০:০০
বিল গেটস

বিশ্ব এখনো করোনার থাবা থেকে রক্ষা পায়নি। কিন্তু ভ্যাকসিন আর সচেতনতামূলক কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে তুলনামূলকভাবে কমেছে করোনা। তবে করোনা নিয়ে এখনো মানুষের মধ্যে কিছু কৌতূহল রয়ে গেছে। কোথায় থেকে ছড়িয়েছে কোভিড ভাইরাস?

অনেকে বলতেন, কোনো দেশ খুব সচেতনভাবে ছড়িয়ে দিয়েছিল এই ভাইরাস। আবার কারো মতে, করোনার পেছনে রয়েছে ব্যক্তি বিশেষের ভূমিকা। সে সময় যে কয়টি ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব সবচেয়ে বেশি করে ছড়িয়ে পড়ে, তার মধ্যে একটি অবশ্য ছিল বিল গেটসকে নিয়ে। অভিযোগ ওঠে, তিনিই নাকি সচেতনভাবে ছড়িয়ে দেন করোনাভাইরাস।

এতদিন এ অভিযোগ নিয়ে চুপ থাকলেও এর জবাব দিয়েছেন বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের একজন গেটস। তিনি বলেছেন, এই যড়যন্ত্র তত্ত্বের বিষয়ে তিনি ভালোভাবেই অবগত।

ব্রিটিশ একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, 'সেই সময়ে অনেক মেসেজ আসত ফোনে। অভিযোগ করা হতো, আমি নাকি এই করোনাভাইরাসের মহামারির পেছনে রয়েছি।'

মাইক্রোসফটের এই নির্মাতা বলেন, সেই সময়ে মানুষ গোটা ঘটনাটির একটি ব্যাখ্যার কাছে পৌঁছাতে চাইছিলেন। তারা চাইছিলেন, এমন একজন খলনায়কের সন্ধান করতে, যিনি এর পেছনে রয়েছেন। তাই কখনো উঠে এসেছে বিল গেটসের নাম, কখনো আবার অ্যান্থনি ফাউচির নাম। কিন্তু এত লোক থাকতে বিল গেটসই কেন? এর পেছনে রয়েছে একটি কাহিনি। সে কথাও গেটস নিজেই বলেছেন।

২০১৫ সালে গেটস এক সাক্ষাৎকারে বলেন, এক ভয়ংকর মহামারি আসতে যাচ্ছে। সেই অসুখে পৃথিবীর প্রায় এক কোটি মানুষের মৃতু্য হবে।

এই সাক্ষাৎকারের সূত্রেই মানুষের মনে সন্দেহ তৈরি হয়, বিল গেটস আগে থেকেই করোনাভাইরাস সংক্রমণের কথা জানতেন। কারণ তিনিই হয়তো এর পেছনে রয়েছেন।

তাদের দাবি, গেটস মহামারির মাধ্যমে পৃথিবীতে মানুষের সংখ্যা কমাতে চান। শুধু সংক্রমণে মানুষের মৃতু্যর মাধ্যমে নয়, করোনার এমন টিকাই নাকি গেটস নিয়ে আসতে চলেছেন, যা মানুষের প্রজননের ক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে। আর তার মাধ্যমেই তিনি নাকি জনসংখ্যা কমাবেন, এমনই ষড়যন্ত্র করেছিলেন।

সংবাদসূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে