সুরমার পানি বিপৎসীমার ওপর, বন্যার শঙ্কা

সুরমার পানি বিপৎসীমার ওপর, বন্যার শঙ্কা

দেশের সব নদনদীর পানি বাড়ছে। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের (সিলেট অঞ্চল) নদীগুলোর পানি দ্রম্নত বাড়ছে। এরই মধ্যে সুরমা নদীর পানি সিলেটের কানাইঘাট স্টেশনে বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। এতে উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বন্যার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

শনিবার বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বাপাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র এ তথ্য জানিয়েছে।

বাপাউবো'র বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র নদনদীর পরিস্থিতি ও পূর্বাভাস প্রতিবেদনে জানিয়েছে, আবহাওয়া সংস্থাগুলোর গাণিতিক মডেলভিত্তিক পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ৪৮ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন ভারতের আসাম, মেঘালয় ও হিমালয় পাদদেশীয় পশ্চিম-বঙ্গ প্রদেশের কতিপয় স্থানে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়, 'দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদনদীর পানি বাড়ছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত

\হথাকতে পারে এবং প্রধান নদীগুলোর (সুরমা, কুশিয়ারা, ভোগাই-কংস, ধনু-বাউলাই, মনু, খোয়াই নদীর) পানি সমতল কতিপয় পয়েন্টে সময় বিশেষে দ্রম্নত বৃদ্ধি পেতে পারে।'

এতে আরও বলা হয়, আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার কয়েকটি স্থানে পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করতে পারে।

উত্তরাঞ্চলের ব্রহ্মপুত্র-যমুনা, ধরলা, দুধকুমার ও তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধির ধারা আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে জানিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, গঙ্গা নদীর পানি স্থিতিশীল আছে, অপরদিকে পদ্মা নদীর পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই পরিস্থিতি আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, 'সুরমা নদীর পানি সিলেটে একটি পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করায় এরই মধ্যে সেখানে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। রোববার সুনামগঞ্জের কয়েকটি স্থানে পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করে বন্যা সৃষ্টি করতে পারে।'

তিনি আরও বলেন, 'বৃষ্টির কারণে এখন দেশের বড় বড় নদনদীর পানি বাড়ছে। তবে আর ভারী বৃষ্টি না হলে সিলেট ছাড়া অন্য কোথাও বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা নেই।'

সাত বিভাগে বৃষ্টির সম্ভাবনা : এদিকে দেশের সাত বিভাগে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। পাশাপাশি অস্থায়ীভাবে দমকা, ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

শনিবার সকালে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, পশ্চিম লঘুচাপের সঙ্গে বঙ্গোপসাগর থেকে আসা জলীয়বাষ্পের সংমিশ্রণে বাংলাদেশ অঞ্চলে গভীর সঞ্চরণশীল মেঘমালার সৃষ্টি হচ্ছে। এর ফলে রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট, রাজশাহী, খুলনা, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী (২৩-৪৩ মিলিমিটার) থেকে অতিভারী (৮৯ মিলিমিটার বা তারও বেশি) বৃষ্টিপাত হতে পারে।

একই সঙ্গে অস্থায়ীভাবে দমকা, ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে বিজলী চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

আগামী দুই দিনের মধ্যে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা কমে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে বলে জানান অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে