logo
বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ৩১ মার্চ ২০২০, ০০:০০  

পাকিস্তানে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা

বিশ্বজুড়ে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাসে পাকিস্তানে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দুই-ই বেড়েছে। 'করোনাভাইরাসে দেশে মৃতু্য হার কম'- পাকিস্তান সরকার এমন দাবি করার একদিন পরই সোমবার মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জন, আর আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার ৬৫৮ জনে দাঁড়িয়েছে। সংবাদসূত্র : ডন, জিও নিউজ

দেশটির সিন্ধু প্রদেশের স্বাস্থ্য ও জনকল্যাণ মন্ত্রী জানান, সোমবার প্রদেশে নতুন করে দুই জনের মৃতু্য হয়, যাদের একজনের বয়স ৬৬ বছর ও অপরজনের ৫২। তারা দু'জনেই করাচির বাসিন্দা এবং তিন দিন আগে তারা করোনাভাইরাস সংক্রমণজনিত রোগ কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছিল।

এদিকে, পাকিস্তানের গিলগিট-বালটিস্তান স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলে কোভিড-১৯ এ আরেক চিকিৎসকের মৃতু্য হয়েছে। ওই অঞ্চলের নগর এলাকার সুমির গ্রামে সরকারি এক স্বাস্থ্য ইউনিটে কর্মরত এক রেডিওলোজিস্টের মৃতু্য হয়। করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ার পর তাকে স্থানীয় মিনাপিন কোয়ারেন্টিন সেন্টারে রাখা হয়েছিল। সেখানেই মালিক আশদার নামের ওই চিকিৎসকের মৃতু্য হয়। তার বিদেশ ভ্রমণের কোনো ইতিহাস নেই বলে ওই অঞ্চলের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এর আগে গিলগিট-বালটিস্তানে করোনাভাইরাস সংক্রমণের এক তরুণ চিকিৎসকের মৃতু্য হয়েছিল। করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই তরুণ চিকিৎসকের ভূমিকার কারণে তাকে 'বীর' বলে অভিহিত করেছিল স্থানীয়রা।

এদিকে, পাকিস্তানি বিজ্ঞানী ড. আতাউর রহমান দাবি করেছেন, দেশটিতে পাওয়া করোনাভাইরাসের ক্রোমোজোম চীনে পাওয়া করোনাভাইরাসের মতো প্রাণঘাতী নয়। তার দাবি, 'চীনে যে ধরনের করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে তার চেয়ে পাকিস্তানে পাওয়া করোনাভাইরাসের ক্রোমোজোম আলাদা।' করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ের 'ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর কেমিক্যাল অ্যান্ড বায়োলজিক্যাল সায়েন্স'র জামিলুর রহমান 'সেন্টার ফর জেনোমা রিসার্চ'র গবেষণা প্রতিবেদনে এ বিষয়টি উঠে এসেছে বলে জানিয়েছেন ড. আতাউর। পাকিস্তানের প্রদেশগুলোর মধ্যে ৬৩৮ জন আক্রান্ত নিয়ে শীর্ষে আছে পাঞ্জাব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে