logo
বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই ২০২০, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

  যাযাদি ডেস্ক   ০২ জুন ২০২০, ০০:০০  

কৃষ্ণাঙ্গ ফ্লয়েড হত্যা

বিক্ষোভের সময় বাঙ্কারে লুকিয়ে ছিলেন ট্রাম্প!

প্রতিবাদকারীদের নৈরাজ্যবাদী আখ্যা মার্কিন প্রেসিডেন্টের

বিক্ষোভের সময় বাঙ্কারে লুকিয়ে ছিলেন ট্রাম্প!
মার্কনি প্রসেডিন্টে ডােনাল্ড ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে হোয়াইট হাউসের সামনে বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভের সময় 'আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে' আশ্রয় নিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পুলিশের নির্যাতনে জর্জ ফ্লয়েড নামের একজন কৃষ্ণাঙ্গের মৃতু্যর পর প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে উঠেছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রবল বিক্ষোভ ও সহিংসতার মুখে শহরের পর শহরজুড়ে কারফিউ জারি করা হলেও তা মানছে না প্রতিবাদকারীরা। সংবাদসূত্র : বিবিসি, সিএনএন, নিউইয়র্ক টাইমস সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, শুক্রবার রাতে ওয়াশিংটন ডিসির প্রতিবাদকারীরা হোয়াইট হাউসের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখায়। এক পর্যায়ে হোয়াইট হাউসের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিক্রেট সার্ভিস ও যুক্তরাষ্ট্রের পার্ক পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় তারা। নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের দিকে বোতল ও পাথর ছুড়ে মারে বিক্ষোভকারীরা। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও ধ্বস্তধ্বস্তিও হয়। এ সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে কিছুক্ষণের জন্য হোয়াইট হাউসের আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনাটির বিষয়ে সরাসরি অবগত, এমন একজন এ খবর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, এক ঘণ্টার মতো ট্রাম্প ওই বাঙ্কারে ছিলেন। এরপর তাকে ফের ওপরে নিয়ে আসা হয়। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ছাড়াও মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প এবং তাদের ছেলে ব্যারনকেও বাঙ্কারে নেওয়া হয়েছিল। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে বাঙ্কারে নেওয়ার ঘটনা প্রথম প্রকাশ করে নিউইয়র্ক টাইমস। সন্ত্রাসী হামলাজনিত পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্যই মূলত হোয়াইট হাউসে গোপন ওই বাঙ্কার তৈরি করা হয়েছিল। এদিকে, ট্রাম্প অভিযোগ করেছেন, ওয়াশিংটন ডিসির মেয়র মুরিয়েল বাউসার হোয়াইট হাউসের আশপাশে বিক্ষোভ সামলানোর জন্য নগর পুলিশকে দায়িত্ব নেওয়ার অনুমতি দেননি। তবে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা বলছেন, ওয়াশিংটন পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল। বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে রোববার একের পর এক বিতর্কিত টুইট করেছেন ট্রাম্প। তার দাবি, যারা কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃতু্য নিয়ে প্রতিবাদ করছে, তারা নৈরাজ্যবাদী। ট্রাম্পের দাবি, বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলতে গিয়ে দেশের প্রগতিশীল বামপন্থী শক্তিগুলো দেশের মধ্যে নৈরাজ্য চালাচ্ছে। অতি-বাম গোষ্ঠী 'অ্যান্টিফা'কে 'জঙ্গি সংগঠন' বলে ঘোষণা করেছেন তিনি। তবে মিনিয়াপলিস প্রশাসনের দাবি, ঝামেলা পাকাচ্ছে বহিরাগতরাই। কিন্তু ট্রাম্প দুষছেন অতি-বাম চরমপন্থীদের। বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, বর্ণবিদ্বেষের আগুন জ্বলছিলই, করোনায় বঞ্চনার ছবি আরও স্পষ্ট হয়ে গেছে। বেকারত্বের জ্বালা বাড়তি ঘি ঢেলেছে আগুনে। উলেস্নখ্য, গত ২৫ মে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর মিনিয়াপলিসে পুলিশ কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডকে হত্যা করে। ফ্লয়েডের গাড়িতে জাল নোট থাকার খবর পেয়ে তাকে আটক করতে গিয়েছিল পুলিশ। একজন প্রত্যক্ষদর্শীর ধারণ করা ১০ মিনিটের ভিডিওতে দেখা গেছে, হাঁটু দিয়ে তার গলা চেপে ধরে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে এক শ্বেতাঙ্গ পুলিশ সদস্য।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে