মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

জমে উঠেছে গুলিস্তানের নতুন টাকার হাট, দাম নিয়ে অসন্তোষ ক্রেতারা

মোঃ রবিউল হোসাইন
  ০৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৬:০৬
আপডেট  : ০৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৬:২০
জমে উঠেছে গুলিস্তানের নতুন টাকার হাট, দাম নিয়ে অসন্তোষ ক্রেতারা

মুসলমানদের ঈদ উৎসবের সঙ্গে জড়িয়ে আছে ঈদ সালামির রেওয়াজ, পরিবারের ছোট সদস্যের খুশি করতে বড়'রা দিয়ে থাকেন ঈদ সালামি, আর তা যদি হয় নতুন কচকচে টাকা তা হলে তো ছোটদের ঈদ আনন্দ বেড়ে যায় বহুগুণ। শুধু শিশুরাই নয় বড়দেরও নতুন নোটে ঈদ সালামি দেওয়ার রীতি দীর্ঘ দিনের। এ কারনে ঈদের আগে চাহিদা বাড়ে নতুন টাকার।

রাজধানীর গুলিস্তানের পাতাল মার্কেটের সিঁড়ির পাস ঘেঁসে ফুটপাতে ওপর বিক্রি হচ্ছে নতুন টাকার নোট। বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঈদ ঘিরে জমে উঠেছে নতুন টাকা কেনাবেচা, ব্যবসায়ীরা নতুন নোটের পসরা সাঝিয়ে বসেছেন। বিভিন্ন বয়সী ক্রেতারা ভিড় করছেন নতুন টাকা নিতে। কেউ কেউ আবার পরিবারের ছোট সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে পছন্দ মতো কিনে নিয়ে যাচ্ছেন নতুন টাকা।

তেমনি একজন পুরান ঢাকার বাসিন্দা মনির হোসেন, তিনি যায়যায়দিন'কে বলেন, বড় ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে নতুন টাকা কিনতে এসেছি, প্রতিবছরই নতুন টাকা সংগ্রহ করি। মূলত পরিবারের শিশুদের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করার জন্য নতুন নোট কিনে থাকি।

অন্য সময়ের চেয়ে ঈদের দিনে বাচ্চাদের নতুন টাকা দিলে তারা বেশি আনন্দ পায়। বিভিন্ন ব্যাংকে নতুন টাকা দেওয়া হচ্ছে গুলিস্তানে কেন বাড়তি দাম দিয়ে নতুন টাকা নিচ্ছেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ব্যাংকে নতুন টাকা সংগ্রহ করতে হলে দীর্ঘ সময় ধরে লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হয়, জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি জমা দিতে হয়, তাই সময় বাঁচাতে বাড়তি দাম দিয়ে গুলিস্তান থেকে নতুন টাকা সংগ্রহ করে থাকি।

নতুন টাকা কিনতে প্রতিবারের মতো এবারও গুলিস্তানে আসেন বেসরকারি চাকুরীজীবি মোঃ আব্দুল্লাহ, যায়যায়দিন'কে তিনি বলেন, ব্যাংকে অনেক ভিড় থাকে বলে গুলিস্তানে এসে নতুন টাকা কিনেন, তবে এবার বিক্রেতারা অতিরিক্ত দাম চাচ্ছেন। প্রতি বান্ডিল বা ১০০ পিস টাকার দাম (পরিমাণভেদে) ১০০ থেকে ১৩০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি নেওয়া হচ্ছে।

তার মতো অনেক ক্রেতার এমন অভিযোগ দাম বৃদ্ধি নিয়ে, তাদের একজন মিরপুর থেকে নতুন টাকা কিনতে আসা আইনজীবী আব্দুর রহিমের, তিনি বলেন গতবার যে দামে নতুন টাকা নিয়েছেন তার চেয়ে এবার দিগুণ দাম দিতে হচ্ছে নতুন টাকা নিতে, এ জন্য সিন্ডিকেটকে দায়ী করছেন এ ক্রেতা।

দাম বৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে নতুন টাকা ব্যবসায়ী মোঃ নুরুজ্জামান যায়যায়দিন'কে বলেন, গতবারের তুলনায় প্রতি ব্যান্ডিলে দাম বেড়েছে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত। তিনি বলেন বাজারে পর্যাপ্ত চাহিদা থাকলেও ব্যাংক থেকে তারা নতুন টাকা পাচ্ছেন না, ফলে ঢাকার বাহিরে থেকে বাড়তি দাম আনতে হচ্ছে নতুন টাকা।

এবার গুলিস্থান থেকে দুই টাকার এক বান্ডিল টাকা কিনতে হলে গুনতে হচ্ছে ২৮০ টাকা, পাঁচ টাকার বান্ডিলে ১৫০ টাকা। আর ১০ টাকার প্রতি বান্ডিলের জন্য অতিরিক্ত দিতে হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা, ২০ টাকা টাকার বান্ডিলে ২৮০ টাকা, ৫০ টাকার বান্ডিল ৩০০ টাকা, ১০০ টাকার বান্ডিলে ৩০০ টাকা এবং ২০০ টাকার বান্ডিলের জন্য অতিরিক্ত দিতে হচ্ছে ৩৫০ টাকা পর্যন্ত।

যাযাদি/ এম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে