শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯
walton1

বেড়েছে মুরগি-সবজির দাম, চালের দাম স্থিতিশীল

যাযাদি ডেস্ক
  ২৮ অক্টোবর ২০২২, ১৫:৫০

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের কারণে সরবরাহ কমে যাওয়ায় বাজারে বেড়েছে সবজি ও মুরগির দাম। এদিকে খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ১০২ থেকে ১০৮ টাকায়। ডাল, পেঁয়াজ, তেল ও মাছের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) রাজধানীর যাত্রাবাড়ী বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

দুই সপ্তাহ আগেও বাজারে খোলা চিনি কেজিপ্রতি বিক্রি হয় ৯০ টাকায়। কিছু দিনের ব্যবধানে দাম বেড়ে খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে ১০২ থেকে ১০৮ টাকা কেজি।

ব্রয়লার ও সোনালি মুরগির দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেড়েছে। যাত্রাবাড়ী কিচেন মার্কেটের মা  ব্রয়লার হাউসের ব্যবসায়ী মো. ফোরকান হোসেন বলেন, আজ ব্রয়লার মুরগি ১৮০-১৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। সোনালি মুরগি ৩১৫ থেকে ৩২০ টাকা এবং দেশি মুরগির কেজি ৫৫০ টাকা।

সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে প্রতিটি সবজির দাম কেজিতে ৫-১৫ টাকা বেড়েছে।কালো বেগুন (গোল) ৯০ থেকে ১০০ টাকা, সাদা বেগুন (গোল)৭০ থেকে  ৮০ টাকা, লম্বা বেগুন ৬৫ থেকে ৭৫ টাকা, শসা ৭০ থেকে ৮০ টাকা, করলা ৭০ থেকে  ৮০ টাকা, ঝিঙা ৭০ থেকে  ৮০ টাকা, বরবটি ৭৫ থেকে  ৮০ টাকা, সাদা মুলা ৪৫  থেকে ৫৫ টাকা, পটল, ঢেঁড়স ও চিচিঙ্গা ৫৫ থেকে ৬৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ছোট ফুলকপি ও বাঁধাকপি প্রতিটি বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫৫ টাকা করে। শিম ১১৫ থেক ১২৫ টাকা, কাঁচা মরিচ ৮০ থেকে ১০০ টাকা, পাকা টমেটো ১৩০-১৪০ টাকা, গাজর ১২০-১৩০ টাকা, কাঁচা পেঁপে ২৫ থেকে ৪০ টাকা কেজি দামে বিক্রি হচ্ছে। চালকুমড়া প্রতিটি ৪০ থেকে ৬০ টাকা, লাউ আকার ভেদে প্রতিটা ৬০ থেকে ৮০০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া কেজি ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

যাত্রাবাড়ী বাজারে কথা হয় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরিজীবী বোরহান হোসেনের সাথে। তিনি বলেন, বাজারে সব পণ্যের দাম বেশি। ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে। সরকারের উচিত অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া।

এদিকে, ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে ভর্তুকি দিয়ে সাশ্রয়ী মূল্যে সারা দেশে চাল বিক্রি করায় বাজারে এখন চালের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। গত সপ্তাহে যে দামে চাল বিক্রি করা হয়েছিল আজও একই দামে যাত্রাবাড়ী চালের আড়তে চাল বিক্রি হচ্ছে। ৫০ কেজির ব্রি-২৮ বস্তাপ্রতি বিক্রি হয় ২৭৫০-৩০০০ টাকায়, চিকন চাল (মিনিকেট) বস্তা বিক্রি হচ্ছে ৩৫০০ থেকে ৩৭৫০ টাকায় এবং নাজিরশাইল বস্তা বিক্রি হয় ৩৬০০-৪০০০ টাকায়।

যাত্রাবাড়ী ইসলাম চালের আড়তের মালিক মনির উদ্দিন বলেন, গত সপ্তাহে পাইকারি বাজারে সব ধরনের চালের দাম বস্তাপ্রতি ১০০ টাকা কমেছে। এ সপ্তাহে আগের দামে চাল বিক্রি করতেছি।  মোটা চাল ব্রি-২৮ ৫৫-৬০ টাকা কেজি, মিনিকেট ৭৩-৭৫ টাকা কেজি ও নাজিরশাইল ৭৮-৮২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

যাযাদি/ সোহেল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে