শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

অবরোধ ঘিরে বাজারে অস্থিরতা : লাফিয়ে বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম 

রেজা মাহমুদ
  ০৫ নভেম্বর ২০২৩, ১০:০৭

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে রাজনৈতিক উত্তাপ বেড়ইে চলছে। এক দফা দাবিতে বিএনপিসহ সমমনা দলগুলোর পক্ষ থেকে দেওয়া হচ্ছে হরতাল-অবরোধের মতো কঠোর কর্মসূচি। ফলে বাজারে খাদ্যপণ্যের সরবরাহ ব্যাহত হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, এমন কর্মসূচি টানা চলতে থাকলে বাজারে সরবরাহ চেইন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। যা পরোক্ষভাবে ভোক্তাপর্যায়ে খাদ্যপণ্যের দাম আরও বেড়ে যেতে পারে।

এদিকে গত সপ্তাহে এক দিন হরতালসহ শেষ তিন কার্যদিবস সর্বাত্মক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপিসহ সমমনা রাজনৈতিক দল। এ সময় আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার পরিবহণ প্রায়ই বন্ধ ছিল। একইভাবে সীমিত আকারে চলেছে পণ্যবাহী ট্রাক। ফলে রাজধানীসহ সারা দেশে পণ্যে সরবরাহ সংকট দেখা দেয়। ফলে পেঁয়াজ-আলুসহ অতিপ্রয়োজনীয় বেশ কিছু পণ্যের দাম ৩০-৪০ শতাংশ বেড়ে যায়। যদিও এর আগে থেকেই এসব পণ্যের দাম ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি।

এমন পরিস্থিতির মধ্যেই আজ রোববার থেকে শুরু হয়েছে ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ। দাবি আদায় না হলে আরও কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে রাজনৈতিক দলগুলো। ব্যবসায়ীরা বলছেন, অবোরেধের মতো কর্মসূচিতে ট্রাক মালিকরা ঝুঁকি নিয়ে পণ্য পরিবহণ করতে চায় না। ফলে কাঁচাবাজারে পণ্যের সরবরাহ হ্রাস এবং দাম বৃদ্ধি শঙ্কা রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত সপ্তাহের টানা তিন দিনের অবরোধে রাজধানীর বাজারে পণ্যের সরবরাহ অর্ধেকে নেমেছে। এ সময় বিক্রি কমার পাশাপাশি বেড়েছে দামও। অন্যদিকে দেশের অন্যতম প্রধান পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, তিন দিনের অবরোধে তাদের প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকা লোকসান হয়েছে।

খাতুনগঞ্জ ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল হোসেন বলেন, তিন দিনের অবরোধে ব্যবসায়ীরা দোকান খোলা রাখলেও বিক্রি ছিল খুবই কম। তিন দিনে ব্যবসায়ীদের প্রায় ১,৫০০-২,০০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ব্যবসায়ীরা জানান, প্রতিদিন চট্টগ্রাম বন্দরসহ সারা দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ২৫০-৩০০ ট্রাক ভোগ্যপণ্য নিয়ে চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ ও আসাদগঞ্জ বাজারে আসে। আবার একই সংখ্যক ট্রাক এবং গাড়ি দেশের বিভিন্ন জেলা পণ্য পরিবহণ করে। কিন্তু অবরোধ শুরু হওয়ার পর থেকে পণ্যবাহী ট্রাকের সংখ্যা ৬০-৭০ শতাংশ কমেছে।

এদিকে ফায়ার সার্ভিসের তথ্যানুযায়ী, ৭২ ঘণ্টার অবরোধে ৩৪টি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে, যার মধ্যে বাস-ট্রাকসহ ৩১টি যানবাহন রয়েছে। কারওয়ান বাজার ট্রাক স্ট্যান্ডের পণ্যবাহী অনেক ট্রাক মালিক অবরোধের শুরুতে পণ্য পরিবহণ অব্যাহত রাখলেও শেষ দুই দিন বন্ধ রাখেন অনেকেই।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পরিস্থিতি অবনতি হলে চলমান অবরোধেও পরিবহণ বন্ধ রাখবেন তারা। আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন ট্রাকচালকরাও।

এদিকে, রাজধানীসহ সারা দেশের বাজার দরে তিন দিনের অবরোধে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে কাঁচাবাজারের বিভিন্ন পণ্যের দাম। লাগাতার এমন কর্মসূচি পরে প্রভাব ফেলতে পারে মুদিসহ অন্যান্য ভোগ্যপণ্যের দামেও।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম বন্দরে প্রতিদিন গড়ে ৩-৪ কনটেইনার হ্যান্ডেল করে এবং ৫-৬ হাজার ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান এবং প্রাইম মুভার খাদ্যসহ আমদানি পণ্য সারা দেশে পরিবহণ করে।

চট্টগ্রাম বন্দরের তথ্যানুযায়ী, তিন দিনের অবরোধে পরিবহণ সংকটে কনটেইনার ডেলিভারি ৩২ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। যা এখনো স্বাভাবিক হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের দাবি, অন্তত খাদ্যপণ্য যেন চলমান আন্দোলন ও বিভিন্ন কর্মসূচির আওতামুক্ত রাখা হয়। তা না হলে বাজারে চরম সংকট দেখা দিতে পারে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে