বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

উত্তেজনা বাড়িয়ে হরমুজ প্রণালী বন্ধের হুমকি ইরানের

যাযাদি ডেস্ক
  ১০ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১৭
ফাইল ছবি

ইরান মনে করে দখলদার ইসরাইল মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্ক বৃদ্ধি চেষ্টা করছে শুধুমাত্র অর্থনৈতিক কারণে নয়। বরং তাদের স্থায়ীত্ব ও অন্য দেশগুলোর আঞ্চলিক নিরাপত্তা হুমকির জন্য এই সম্পর্ক বৃদ্ধি করছে। বিশেষ করে আরব আমিরাত এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হওয়ায় ইরান প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ। কিন্তু অবরুদ্ধ গাজায় নির্মম নির্যাতনের পরও মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক টিকিয়ে রেখেছে।

জানা যায়, ইরানের ইসলামিক রেভ্যুলশনারি গার্ডের নৌবাহিনী কমান্ডার মঙ্গলবার বলেছেন, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ইসরাইলের উপস্থিতিকে তেরাহন হুমকি হিসেবে বিবেচনা করছে। তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চরণ করে বলেছেন, তেরান প্রয়োজন মনে করলে হরমুজ প্রণালী বন্ধ করে দেবে।

এদিকে গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানি কনস্যুলেটে ইসরাইলি হামলায় দুই সিনিয়র কমান্ডারসহ রেভ্যুলশনারি গার্ডের সাত কমান্ডার নিহত হওয়ার প্রতিশোধ গ্রহণের কথা ঘোষণা করছে ইরান।

এ নিয়ে ইরান ও ইসরাইলের মধ্যে উত্তেজনা আরো বেড়েছে। ইরানের রেভ্যুলশনারি নৌবাহিনীর কমান্ডার আলিরেজা তাঙসিরি বলেন, 'প্রত্যাঘাত ছাড়া আমরা আঘাত সহ্য করতে পারি না। তবে আমাদের বদলায় তাড়াহুড়া করব না।' ইরানের আধা সরকারি স্টুডেন্ট নিউজ অ্যাজেন্সি এ খবর প্রকাশ করে।

ইরানের কমান্ডার আলিরেজা বলেন, 'আমরা হরমুজ প্রণালী বন্ধ করে দিতে পারি। তবে আমরা তা করব না। অবশ্য, শত্রু যদি আমাদের বাধা দিতে থাকে, তবে আমরা আমাদের নীতি পর্যালোচনা করব।' ইরান অতীতেও ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের সাথে উত্তেজনার প্রতিক্রিয়ায় হরমুজ প্রণালী বন্ধ করার হুমকি দিয়েছিল।

জানা যায়, বিশ্বের মোট তেলের প্রায় এক পঞ্চমাংশ প্রতিদিন এই প্রণালী দিয়ে পারাপার হয়।

২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর র্পযন্ত প্রতিদিন গড়ে ২০.৫ মিলিয়ন ব্যারেল অশোধিত তেল, কনডেনসেট এবং তেলজাত পণ্য হরমুজ প্রণালী দিয়ে অতিবাহিত হয়। ইরান থেকে উপসাগরজুড়ে অবস্থিত সংযুক্ত আরব আমিরাত ২০২০ সালে মার্কিন-সমর্থিত কূটনৈতিক প্রয়াসে ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করে। তবে দেশটির ইরানের সাথেও স্বাভাবিক কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে।

জানুয়ারিতে এক সিনিয়র কর্মকর্তা টাইমস অব ইসরাইলকে বলেছিলেন যে হামাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ অব্যাহত থাকলে ইসরাইল ও আমিরাতের মধ্যকার উষ্ণ সম্পর্ক শীতল হয়ে যেতে পারে।

ইরানি কমান্ডার বলেন, আমরা জানি যে ইহুদিবাদীরা (ইসরাইল) অর্থনৈতিক উদ্দেশ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আসেনি, বরং নিরাপত্তা ও সামরিক কাজের জন্য এসেছে। এটা আমাদের জন্য হুমকি এবং তা হতে দেয়া উচিত নয়।

সিরিয়ার রাজধানীতে ইরানি কমান্ডার রেজা জাহেদি এবং অন্য ছয় কমান্ডার নিহত হওয়ার পর থেকে ইসরাইল প্রতিশোধের আশঙ্কায় বেশ সতর্ক রয়েছে। তারা ইরানের পরমাণু স্থাপনা এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলার হুমকি দিয়ে আসছে। সূত্র : টাইমস অব ইসরাইল

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে