শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১

‘ভাইরাল গায়িকা’ তাসনিয়া ফারিণ

যাযাদি ডেস্ক
  ০১ মে ২০২৪, ১০:৪৪
তাসনিয়া ফারিণ

তাসনিয়া ফারিণ আস্তে আস্তে কথা বলেন। এটা তার কণ্ঠের ধরণ হয়তো। অন্যদিকে তাহসান খান একটু জোরেই কথা বলেন। কিন্তু কি করে তাদের দুজনেই কণ্ঠে জনপ্রিয় একটি গান তুলে আনলেন হানিফ সংকেত।

‘রঙে রঙে রঙিন হব’ সঙ্গীত ও অভিনয় শিল্পী তাহসান খানের সঙ্গে ঈদুল ফিতরের ইত্যাদিতে এই গানটি পরিবেশন করেন আরেক জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পী তাসনিয়া ফারিণ।

কিছুদিন আগে তার বিয়ে হয়েছে। তাই স্বামী-সংসার নিয়ে কিছু সময় ব্যস্ত ছিলেন। এরপর দর্শকদের সামনে পুরোনো পরিচয়টা নতুন করে উপস্থাপন করেন জনপ্রিয় উপস্থাপন হানিফ সংকেত। তিনি শুরুতে বলেন ২ জগতের ২ জনপ্রিয় সঙ্গিত শিল্পী তাহসান ও ফারিণ আজ গান গেয়ে শোনাবেন। তখন কিন্তু চুপ ছিরেন ফারিণ। হয়তো গানটা এতোটা জনপ্রিয়তা পাবে তিনি ভাবতে পারেনি। তাইতো এখন বলছেন আমি আগে ছিলাম সঙ্গিত শিল্পী। তারপর অভিনয় শিল্পী হিসেবে জনপ্রিয়তা পেলাম।

জানা যায়, বরাবরই অভিনয় দিয়ে দর্শকদের নজর কাড়েন জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। তবে এবার নাটক, সিনেমা কিংবা সিরিজ নয়, গান গেয়ে তুমুল আলোচনায় তিনি। গেল ঈদুল ফিতরে ইত্যাদিতে তার গাওয়া ‘রঙে রঙে রঙিন হব’ গানটি বর্তমানে ইউটিউব ট্রেন্ডিংয়ে ৩৯ নম্বরে রয়েছে। গানে তার সঙ্গে আরও কণ্ঠ দিয়েছেন তাহসান খান।

কবির বকুলের কথায় ‘রঙে রঙে রঙিন হব’ সুর ও সংগীত পরিচালনায় ছিলেন ইমরান মাহমুদুল। দারুন অভিনয় করেন ফারিণ। কিন্তু তিনি যে ভালো গানও করেন কেউই জানতেন না। এবার ইত্যাদিতে গান গাওয়ার মাধ্যমে প্রকাশ্যে এলো সেটা।

এদিকে গণমাধ্যমকে ফারিণ জানান, তিনি নায়িকার আগে গায়িকা। হয়তো অনেকেই বিষয়টা জানতেন না। অভিনেত্রী জানান, দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময় মায়ের ইচ্ছাতেই অনেকটা জোর করেই গান শেখানো হয় তাকে। মায়ের আগ্রহেই শিক্ষকের কাছে গান শিখতে শিখতে গানের প্রেমে পড়েন।

পরবর্তী সময়ে ঢাকায় এসেও সেই গানের চর্চা চালিয়ে গেছেন ফারিণ। কিন্তু হঠাৎ করেই অভিনয়ে পা বাড়ান। খুব অল্প সময়েই খ্যাতি পেয়ে যান তিনি। তাই অভিনয়ে ব্যস্ত হওয়ার কারণে গানের প্রতিভা সামনে আনার সুযোগ পাচ্ছিলেন না ফারিণ। অবশেষে ইত্যাদিতে গান গাওয়ার সুযোগ পেয়ে যেন হাত ছাড়া করলেন না এই অভিনেত্রী।

এদিকে অনেকেই ফারিণের নামের আগে ‘ভাইরাল গায়িকা’ যোগ করছেন। এ প্রসঙ্গে ফারিণ বলেন, আমি কিন্তু নায়িকার আগে গায়িকা। যশোর থেকে ঢাকায় এসেও আমি গানের গানের চর্চা করেছি। দিনের পর দিন গান শিখেছি। জাতীয়, বিভাগীয় পর্যায়ে গান করেছি। গান গেয়ে অনেক পুরস্কার পেয়েছি। কিন্তু অভিনয়ের কারণে গানের প্রতিভা এত দিন কেউ জানতে পারেনি।

তাহসানের সঙ্গে নাটকে অভিনয় করলেও প্রথমবার একসঙ্গে গান করার অনুভূতি ছিল একেবারেই আলাদা। দুজনই আলাদা করে গানের রেকর্ডিং করেছেন। যদিও কিছুটা ভয়ে ভয়ে রেকর্ডিংয়ে যান ফারিণ। সেখানে গিয়ে তাহসানের অংশের গান শুনেই চমকে ওঠেন তিনি। কারণ তাহসান এত উচ্চ স্বরে গান করেছেন, সেভাবে মিলিয়ে দ্বৈত গান করা অসম্ভব ফারিণের জন্য। তাই কিছু ভেবে না পেয়ে তাহসানকে ফোন দিয়ে অনুরোধ করতে হয়।

ফারিণ বলেন, আমি কী করব, বুঝতে পারছিলাম না। পরে তাহসান ভাইকে ফোন করি বলি, তাহসান ভাই, প্লিজ, এত লাউডে আমি গাইতে পারব না। পরে ভাইয়া আবার এসে গানটি গেয়ে যান।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে