শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

ইসরাইলি বাহিনী গাজা সিটি ঘিরে ফেলেছে  : হামাসের কঠোর হুশিয়ারি

যাযাদি ডেস্ক
  ০৩ নভেম্বর ২০২৩, ০৯:১৩

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দাবিকে অপেক্ষা করে দখলদার ইসরাইলি বাহিনীর বর্বরতা চলছে। গাজায় টাকা বোমা বর্ষণে ইতোমধ্যে প্রায় ৫ হাজার মানুষ মারা গেছেন। এর মধ্যে ৩ হাজারের মতো শিশু ও নারী। এদিকে গাজার স্থল হামলার চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়েছে ইসরাইল। তারা গাজার চারপার ঘিরে ফেলেছে। তাদের উদ্দেশ্য গাজাকে কবরস্থানে পরিণত করা। অন্যদিকে প্রতিরোধ যোদ্ধা হামাস হুশিয়ারী দিয়ে বলেছে এতে ভয়াবহ পরিণতি অপেক্ষা করছে ইসরাইলের জন্য।

ইসরালি বাহিনী দাবি করেছে, তারা গাজা উপত্যকা নিয়ন্ত্রণকারী ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের শক্ত ঘাঁটি গাজা সিটি ঘিরে ফেলেছে। বৃহস্পতিবার ভয়াবহ হামলার পর তারা এ সাফল্য পাওয়ার দাবি করেছে। তবে হামাস যোদ্ধরা ইসরাইলকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেছে, তারা বাড়ি ফিরবে 'কালো ব্যাগ' নিয়ে।

হামাসের সামরিক শাখা ইজেদ্দিন আল-কাসসাম ব্রিগেডের মুখপাত্র আবু ওবায়দা বলেছৈন, 'গাজা হবে ইসরাইলের ইতিহাসে অভিশাপ।'

এর আগে ইসরাইলি সামরিক মুখপাত্র ড্যানিয়েল হাগেরি বলেন, কয়েক দিনের স্থল হামলার পর তাদের সৈন্যরা গাজা সিটিকে পুরোপুরি ঘিরে ফেলেছে।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, 'ইসরাইলি সৈন্যরা হামাসের কেন্দ্র গাজা সিটি ঘিরে ফেলার কাজ সম্পূর্ণ করেছে।'

তিনি বলেন, 'যুদ্ধবিরতির ধারণাটি এখন মোটেই টেবিলে নেই।'

মধ্যপ্রাচ্যে অবিলম্বে রক্তপাত বন্ধের আহ্বান রাশিয়ার ফিলিস্তিন বিষয়ে জাতিসঙ্ঘ সাধারণ পরিষদের বিশেষ অধিবেশনে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেছেন, ফিলিস্তিন ও ইসরাইলের মধ্যেকার রক্তপাত অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে যাতে এ সংঘাত সমগ্র মধ্যপ্রাচ্যে ছড়িয়ে না পড়ে।

তিনি বলেন, ‘প্রথমত এ সংঘাত বন্ধ করা এবং সমগ্র অঞ্চলে এটি ছড়িয়ে পড়া রোধ করা প্রয়োজন। অন্যথায় এমন সংঘাত কখনো বন্ধ হবে না।’

নেবেনজিয়া ‘বন্দীদের দ্রুত মুক্তি দেওয়াসহ এ সংঘাতের কূটনৈতিক সমাধানেরও আহ্বান জানান।’ তিনি উল্লেখ করেন, কাউকে না কাউকে শিগগিরই বা বিলম্বে এ পথে হাঁটতে হবে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে একমাত্র প্রশ্ন হলো এর মধ্যে কতজন নিরীহ মানুষকে প্রাণ দিতে হবে।’

গাজা উপত্যকার হামাস যোদ্ধাদের ইসরাইলে সশস্ত্র হামলার পর মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতি হঠাৎ উত্তপ্ত হয়ে উঠে। হামাস এ হামলাকে জেরুসালেমের টেম্পল মাউন্টে অবস্থিত আল-আকসা মসজিদকে কেন্দ্র করে গ্রহণ করা ইসরাইলি কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন পদক্ষেপের একটি প্রতিক্রিয়া বলে মনে করে। হামাসের হামলার পর ইসরাইল গাজা উপত্যকা সম্পূর্ণ অবরুদ্ধ করে ফেলে ব্যাপক হামলা চালানো শুরু করে। এতে হাজার হাজার মানুষ হতাহত হয়।

সূত্র : আল জাজিরা, টাইমস অব ইসরাইল, এএফপি এবং অন্যান্য

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে