শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

মেরুদণ্ড ভালো রাখুন

যাযাদি ডেস্ক
  ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৪:৪৭

প্রতি বছর ১৬ অক্টোবর বিশ্ব স্পাইন বা মেরুদন্ড দিবস পালিত হয়। এ বছরের প্রতিপাদ্য হচ্ছে 'মুভ ইয়োর স্পাইন' অর্থাৎ আপনার মেরুদন্ড সচল রাখুন। দৈনন্দিন জীবনে আমরা একটানা দীর্ঘক্ষণ বসে কাজ করি। কেউ দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে কাজ করি। দাঁড়ানো বা বসে কাজ করার মধ্যে প্রতি ৪৫ মিনিট পর অন্তত ৫ মিনিটের বিরতি নেওয়া উচিত। না হলে মেরুদন্ডের হাড় ও কোমরের মাংস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। জেনে নিই, আমাদের দেশে মেরুদন্ডের সমস্যা কেন বেশি দেখা যায়।

ডিস্ক হার্নিয়েশন বা ডিস্ক প্রলাপস

মেরুদন্ডের দুটি কশেরুকার মধ্যবর্তী স্থানে জেলির মতো বস্তু থাকে, যাকে ইন্টারভার্টিব্রাল ডিস্ক বলে। কোনো কারণে এই ডিস্ক সরে গেলে তখন একে ডিস্ক হার্নিয়েশন বা ডিস্ক প্রলাপস বলা হয়। রোগটি নির্ণয়ের জন্য ক্লিনিক্যাল পরীক্ষার পাশাপাশি এমআরআই করা দরকার হয়। ওষুধ, ফিজিওথেরাপি, ব্যায়াম ও বিশ্রাম- এ চারটি বিষয়ের সমন্বয় করতে পারলে এ রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

স্পাইনাল ক্যানেল স্টেনোসিস

প্রতিটি কশেরুকার দুই পাশ দিয়ে স্পাইনাল নার্ভ বা স্নায়ু বের হয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে গেছে। এ নার্ভের যে রুট বা উৎপত্তিস্থল, সেখানে একটি ক্যানেল বা খাল আছে- যা দিয়ে নার্ভটি বের হয়ে আসে। এই ক্যানেলের মধ্যে চাপ পড়লে নার্ভের চলার পথ অনুযায়ী ব্যথা অনুভব হয়। আক্রান্ত হাত বা পা ভারী অনুভব হয়। যদি প্রাথমিক বা মধ্যম অবস্থানে থাকে তাহলে কনজারভেটিভ চিকিৎসার মাধ্যমে চিকিৎসা করা সম্ভব। কিন্তু যদি তীব্র মাত্রার হয়, তবে স্পাইনাল সার্জারির প্রয়োজন পড়ে।

স্পনডাইলোসিস

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেরুদন্ডের হাড় ক্ষয় হতে শুরু করে। অনেক সময় কশেরুকাগুলোর পার্শ্ববর্তী অংশে হাড় বেড়ে যায়। একে অস্টিওফাইট বলা হয়। দুই কশেরুকার মধ্যবর্তী স্থানের স্পেস কমে যাওয়াকে স্পনডাইলোসিস বলে। সমস্যাটি ঘাড়ে হলে বলে সারভাইক্যাল স্পনডাইলোসিস ও কোমরে হলে লাম্বার স্পনডাইলোসিস। এটি ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা-নিরীক্ষার পাশাপাশি এক্স-রের মাধ্যমে নির্ণয় করা যায়। ওষুধের পাশাপাশি ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার মাধ্যমে এ রোগ থেকে সুস্থ হওয়া যায়। রোগীকে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়। যেমন সামনের দিকে ঝুঁকে ভারী কাজ না করা, ভ্রমণের সময় সাবধানতা অবলম্বন করা, নিচু হয়ে কিছু ওঠানোর সময় হাঁটু ভেঙে বসে ওঠানো ইত্যাদি।

স্পাইনাল কর্ড ইনজুরি

বাংলাদেশে স্পাইনাল কর্ড ইনজুরি খুবই সাধারণ ঘটনা, বিশেষ করে সড়ক দুর্ঘটনার কারণে। এ ছাড়া বিভিন্ন কনস্ট্রাকশন সাইটে ইনজুরি, গাছ বা ওপর থেকে নিচে পড়ে যাওয়ার ঘটনা নিয়মিতই ঘটে। ঘাড়ের অংশে ইনজুরি হলে সম্পূর্ণ চার হাত-পা প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারে। নিচের দিকে হলে দুই পা পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে রোগীর দ্রম্নত সার্জারির প্রয়োজন পড়ে। ফিজিওথেরাপি ও পুনর্বাসন চিকিৎসা গুরুত্বপূর্ণ।

স্কোলিওসিস

মেরুদন্ডের স্বাভাবিক গঠন এতে এক পাশে বাঁকা হয়ে ইংরেজি লেটার এস (ঝ) আকৃতির হয়ে যায়। রোগের প্রাথমিক ও মধ্যম অবস্থায় ওষুধের পাশাপাশি ফিজিওথেরাপি ও ব্যায়ামের মাধ্যমে চিকিৎসা করা যায়। যদি তীব্র মাত্রার হয় তখন অস্ত্রোপচার দরকার পড়ে। তবে এর আগে-পরে স্পাইনাল মাংসপেশি ও লিগামেন্টের ব্যাপ্তি বজায় রাখতে ফিজিওথেরাপি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

স্পাইন টিবি

মেরুদন্ডে টিবি বা যক্ষ্ণা হলে তাকে টর্স ডিজিজ বলা হয়। এটি সাধারণত থোরাসিক বা পিঠের অংশে দেখা দেয়। অ্যান্টি টিবি ড্রাগের পাশাপাশি অনেকে ক্ষেত্রে সার্জিক্যাল চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। এ ছাড়া কিছু ব্যায়ামের মাধ্যমে রোগীকে সুস্থ রাখা হয়।

যাযাদি/ এসএম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে