মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

যে উপায়ে মন নিয়ন্ত্রণ করা যায়...

যাযাদি ডেস্ক
  ২৪ মার্চ ২০২৪, ১৪:৫৯
প্রতিকী ছবি

মানুষের জন্য পৃথিবীতে সব চেয়ে কষ্টের কাজ হল মনকে নিয়ন্ত্রণ করা। এটা কি আদৌ সম্ভব। অনেকের মতে এক্কেবাই না। মনকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। তাই তো মনের ওপর জোর দিতে নেই। তার যখন যা খুশি তাই চিন্তা করে। নিয়ন্ত্রণে থাক কিংবা না থাক। মনের কাজ হলো ব্যস্ত থাকা। এবার সেই মনকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় কিভাবে তা দেখে নিন এবং চেস্টা করুন...

মানসিক চাপ, কাজের চাপ, সম্পর্কের চড়াই-উতরাই ইত্যাদি কখনো কখনো মনকে বিক্ষিপ্ত করে দেয়। নিজেকে তখন হারিয়ে ফেলি আমরা। নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করার শক্তিও তখন মনে হয় ফুরিয়ে যায়।

বলা হয়, শারীরিক রোগের অনেকগুলোই হয় মানসিক রোগের কারণে। এ ছাড়া মন বিক্ষিপ্ত থাকলে কাজকর্ম সব ব্যাহত হয়ে যায়। নিজেকে নিয়ন্ত্রণে না রাখতে পারলে আয়ত্তে থাকা অবস্থাও নাগালের বাইরে চলে যায়। আর যা আয়ত্তে নেই, সেটি নিয়ন্ত্রণ করা হয়ে পড়ে আরো মুশকিল। তাই আত্মনিয়ন্ত্রণ জরুরি। নিজেকে সফল করার জন্য আত্মনিয়ন্ত্রণ একটি বড় হাতিয়ার। লাইফস্টাইল বিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাই জানিয়েছে নিজেকে নিয়ন্ত্রণের কিছু উপায়ের কথা। মন বিক্ষিপ্ত থাকলে, নিজেকে নিয়ন্ত্রণের জন্য এই পদক্ষেপগুলো নিতে পারেন।

১. মেডিটেশন

মনকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে ধ্যান বা মেডিটেশন করা খুব উপকারী একটি বিষয়। যখন নেতিবাচক চিন্তাগুলো মনে আসে তখন মানসিক দৃঢ়তা কমে যায়। এই ধরনের চিন্তা মানসিক শক্তিকে দুর্বল করে দেয়। নিয়মিত মেডিটেশনের অভ্যাস মনকে শান্ত করে এবং দৃঢ় রাখতে সাহায্য করে।

২. শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম

মন ভীষণ বিক্ষিপ্ত এবং অস্থির থাকলে একে নিয়ন্ত্রণের জন্য শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করতে পারেন। এই ব্যায়াম করতে প্রথমে গভীরভাবে শ্বাস নিন। কিছুক্ষণ আটকে রাখুন। এরপর ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। এভাবে কয়েকবার ধরে করুন। এই ব্যায়াম আপনাকে শিথিল করতে সাহায্য করবে। নেতিবাচক চিন্তা ও আবেগগুলো থামাতে সাহায্য করবে।

৩. চিন্তাকে চিহ্নিত করুন

নিজের মনকে নিয়ন্ত্রণ করতে যে চিন্তাগুলো আপনাকে এলোমেলো করে দিচ্ছে, সেগুলো চিহ্নিত করুন। নেতিবাচক চিন্তাগুলো বারবার মনে এলে অকারণেই অস্থির হয়ে উঠবেন। তাই প্রথমে চিন্তার উৎসটা খুঁজে বের করুন।

এরপর ভাবনাগুলোকে একেবারে থামিয়ে দিন। ইতিবাচক চিন্তা করা শুরু করুন। ভাবুন আপনার জীবনে ইতিবাচক কী কী দিক রয়েছে। এ ছাড়া ইতিবাচক বিষয়গুলোর একটি তালিকাও তৈরি করতে পারেন। নেতিবাচক চিন্তাগুলো যখন মাথায় আসবে, তখন ইতিবাচক চিন্তার সেই তালিকাটি দেখুন।

৪. মনকে ভিন্ন দিকে নিয়ে যান

যদি আসলেই মনকে নিয়ন্ত্রণ করতে চান তবে নেতিবাচক ভাবনাগুলো থেকে মনকে ভিন্ন দিকে নিয়ে যান। মন খারাপ হওয়ার পরিবেশ থেকে বেরিয়ে আসুন। কোনো কিছু খুব বেশি সমস্যার মনে হলে বা কষ্টদায়ক হলে, কিছু সময়ের জন্য বিষয়টিকে এড়িয়ে যান। অন্য কোনো কাজে মনোযোগ দিন।

৫. সংগীত থেরাপি

মনকে নিয়ন্ত্রণ করতে সংগীতের চেয়ে ভালো কিছু নেই। মন কষ্টের মধ্যে থাকলে এবং নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না মনে হলে প্রিয় কোনো গান শুনুন। ঘরের আলো বন্ধ করে দিন এবং গান শুনুন। এটা চ্যালেঞ্জগুলোকে মোকাবিলা করতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের শিথিল হওয়ার মিউজিকও শুনতে পারেন।

৬. মোমের আলোয় তাকান

খুব অস্থির লাগলে এবং কষ্ট লাগলে মোমের আলোর দিকে তাকাতে পারেন। মোমবাতি জ্বালিয়ে তার দিকে তাকিয়ে থাকুন। যতক্ষণ পর্যন্ত আলোকে স্থির মনে না হবে, ততক্ষণ তাকিয়ে থাকুন। এ ছাড়া খুব অস্থির লাগতে থাকলে গোসল করুন। শরীরে পানির পরশ মনকে শান্ত করতে সাহায্য করবে।

৭. পর্যাপ্ত ঘুমান

পর্যাপ্ত ঘুম সব শারীরিক ও মানসিক সমস্যার সমাধানের একটি অন্যতম উপায়। আপনি যদি না ঘুমান মন আরো বিক্ষিপ্ত হবে। তাই এ সময় অন্তত ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানো খুব জরুরি।

৮. হাসুন

সব প্রশ্নের খুব ভালো উত্তর হলো হাসি। খুব চাপ মনে হলে কিছু মজার কৌতুক পড়ুন, হাসির ছবি দেখুন বা ভিডিও দেখুন। এই বিষয়গুলো আপনাকে আগের থেকে ভালো বোধ করতে সাহায্য করবে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে