বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১

আবাহনীকে হারিয়ে লিগের রানার্স-আপ মোহামেডান

ক্রীড়া প্রতিবেদক
  ৩০ মে ২০২৪, ০৯:৩৪
ছবি-যায়যায়দিন

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে নামার আগে দুই ঐতিহ্যবাহী ঢাকা আবাহনী ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সমান পয়েন্ট ছিল। তবে গোলগড়ে সুবিধাজনক অবস্থানে ছিল মোহামেডান। লিগের রানার্স-আপ হতে এই ম্যাচে আবাহনীর জয়ের বিকল্প ছিল না। বুধবার গোপালগঞ্জের শেখ ফজলুল হক মণি স্টেডিয়ামে আরিফের জোড়া গোলে ঢাকা আবাহনীকে (২-১) গোলে হারিয়ে ৩৫ পয়েন্ট নিয়ে লিগের রানার্স-আপ হলো মোহামেডান।

লিগের ৫টি ম্যাচের মধ্যে আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচেই চোখ ছিল দর্শকদের। গোপালগঞ্জের শেখ ফজলুল হক মণি স্টেডিয়ামে ১১ মিনিটে আবাহনীর বক্সে ডানপ্রান্ত থেকে দারুণ একটা বল বাড়িয়েছিলেন ইমানুয়েল। চলতি বলে পা ছোঁয়াতে পারলেই ছিল নিশ্চিত গোল। কিন্তু সেই সহজ সুযোগটিই হাতছাড়া করেন সুলেমান দিয়াবাতে। গোল মিসের মাসুলটা মোহামেডানকে দিতে হয়েছে মিনিট দু’য়েক পরেই। ১৩ মিনিটে বাঁ প্রান্ত থেকে জামাল ভুইয়ার কর্নারে বক্সে বল পেয়ে গোল করে আবাহনীকে এগিয়ে দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ব্রুনো গঞ্জালভেজ (১-০)। তবে ২৯ মিনিটে ম্যাচে সমতা আনে সাদা-কালোরা। ২৭ মিনিটে জামাল ভুইয়ার কর্নার ফিক্সড করেন মোহামেডানের গোলরক্ষক। ২৯ মিনিটে ম্যাচে সমতা আনে সাদা-কালোরা। ডানপ্রান্ত থেকে ইমানুয়েল টনির মাথায় সামান্য লাগলেও বল জালে জড়ায়নি, তবে পাশে থাকা আরিফ সুযোগ মিস করেননি বল ঠেলে দেন জালে (১-১)।

ইনজুরি টাইমের শেষ মিনিটে (৪৫+৫) বক্সের কয়েক গজ দূর থেকে মোজাফফারভের স্পট কিক বক্সে ক্লিয়ার হয়। ৫৪ মিনিটে বাঁ প্রান্ত থেকে ব্রুনো রেকার ফ্রি কিক ফিরিয়ে দেন মোহামেডানের গোলরক্ষক। তবে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে কিছুটা আহত হন। ৫৮ মিনিটে বাঁ প্রান্ত থেকে আরিফের ক্রস বক্সে শটে ক্লিয়ার করেন আবাহনীর ডিফেন্ডার। পরের মিনিটেই কর্নেলিয়াস স্টুয়ার্টের শট বারে লেগে ফেরত আসে। ৭২ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে মোজাফফারভের ফ্রি কিক আবাহনীর রক্ষণ দেয়াল টপকালেও বল সরাসরি গ্রিপ করেন প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক। ৮৫ মিনিটে সুলেমান দিয়াবাতে একবার বল জালে পাঠালেও অফসাইডের কারণে গোল বাতিল হয়। ৯০ মিনিটে বক্স থেকে বল জালে জড়িয়ে দেন আরিফ। এগিয়ে যায় মোহামেডান (২-১)। আর এই গোলেই জয় নিশ্চিত হয় সাদা-কালোদের।

একই দিন বসুন্ধরা কিংস অ্যারেনাতে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রকে ৩-১ গোলে হারায় বসুন্ধরা কিংস। ম্যাচের ১০ মিনিটে বক্সের প্রায় ২০ গজ দূর থেকে কিংসের মিগেল দামাসেনোর ফ্রি কিকে বক্সে বল পেয়েছিলেন ববুরবেগ। তবে বল রিসিভ করার আগেই মাঠ অতিক্রম করায় গোলের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারেননি। ১৩ মিনিটে সার্বিয়ান ফরোয়ার্ড বালভানোভিচের গোলে এগিয়ে যায় শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র (১-০)। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ম্যাচে সমতা আনে লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন কিংস। গোল করেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার মিগুয়েল ফিগুয়েরা (১-১)। ৭৬ মিনিটে ব্যবধান বাড়ান কিংসের ফরোয়ার্ড রাকিব হোসেন (২-১)। এর ঠিক দু’মিনিট পরই কিংসের তৃতীয় এবং জয়সূচক গোলটি করেন শেখ মোরসালিন (৩-১)।

অন্যদিকে রাজশাহীর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়ামে চট্টগ্রাম আবাহনীকে ৩-১ গোলে হারায় ফর্টিস এফসি। ৪৫ মিনিটে উজবেক ডিফেন্ডার যশোর জুমায়েভের পাসে গোল করে ফর্টিসকে এগিয়ে দেন গাম্বিয়ান ফরোয়ার্ড ওমর সার (১-০)। চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে প্রথমার্ধ এগিয়ে থেকেই বিশ্রামে যায় ফর্টিস। ৫৮ মিনিটে মিডফিল্ডার মোহাম্মদ সোহানুর রহমান গোল করে চট্টলাকে সমতায় ফেরান (১-১)। ৭১ মিনিটে ইউক্রেনের মিডফিল্ডার ভ্যালেরির গোলে আবারও এগিয়ে যায় ফর্টিস (২-১)। ৮২ মিনিটে সবুজ হোসেনের গোলে ৩-১ গোলে এগিয়ে যায় এবং শেষ পর্যন্ত এই ব্যবধানেই জয় পায় ফর্টিস।

ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভুইয়া স্টেডিয়ামে ব্রাদার্সের বিপক্ষে ২-০ গোলের জয় পায় পুলিশ ফুটবল ক্লাব। ম্যাচের ৩২ মিনিটে পালাসিওসের জোগান দেয় বলে লক্ষ্যভেদ করে পুলিশ ফুটবল ক্লাবকে এগিয়ে দেন উজবেকিস্তানের ডিফেন্ডার আজামত আব্দুল্লায়েভ (১-০)। প্রথমার্ধে গোলটি শোধ করতে পারেনি ব্রাদার্স। তবে পুলিশও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি। ৪৮ মিনিটে ফরোয়ার্ড দ্বীন ইসলামের গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে পুলিশ ফুটবল ক্লাব (২-০)। এই গোলেরও পেছনের নায়ক ছিলেন কলম্বিয়ান মিডফিল্ডার পালাসিওস।

মুন্সীগঞ্জের বীরশ্রেষ্ঠ ফ্লাইট লে. মতিউর রহমান স্টেডিয়ামে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবকে ২-০ গোলে হারিয়েছে রহমতগঞ্জ। ৫০ মিনিটে ঘানাইয়ান ফরোয়ার্ড আর্নেস্ট বুয়েটাংয়ের গোলে এগিয়ে যায় রহমতগঞ্জ (১-০)। ৭১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন স্যামুয়েল কনি (২-০)। এই ৫টি ম্যাচ দিয়েই পর্দা নামল পেশাদার ফুটবল লিগের। সেই সঙ্গে শেষ হয়ে গেল ঘরোয়া ফুটবলের আরও একটি মৌসুম।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে