বিশেষ প্রতিবেদন

চীন-রাশিয়া সম্পর্কে উদ্বিগ্ন পশ্চিমারা

চীন-রাশিয়া সম্পর্কে উদ্বিগ্ন পশ্চিমারা
দুই প্রেসিডেন্ট ভস্নাদিমির পুতিন ও শি জিনপিং

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখা দুই দেশ রাশিয়া ও চীন নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক ধীরে ধীরে দৃঢ় করছে। সম্প্রতি জাপানের সমুদ্রসীমার কাছে যুদ্ধজাহাজ নিয়ে এই দুই দেশ যৌথ মহড়া চালিয়েছে। এই দুই দেশের মধ্যে প্রায় চার হাজার ৩০০ কিলোমিটারের দীর্ঘ সীমান্ত রয়েছে।

ভস্নাদিমির পুতিন ও শি জিনপিংয়ের উদ্যোগে দুই দেশের যুদ্ধবিমান জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার আকাশ প্রতিরক্ষা জোনের মধ্য দিয়ে একাধিকবার উড়ে গেছে। যার ফলে পাল্টা যুদ্ধবিমান পাঠিয়ে শত্রম্নকে নিজেদের সীমার বাইরে পাঠিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছে সিউল। পুরো বিষয়টি নিয়ে গত মঙ্গলবার গভীর উদ্বেগ জানিয়েছেন জাপানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী কিশি নবু। টোকিওতে সাংবাদিককের কাছে তিনি বলেন, জাপানকে ঘিরে নিরাপত্তা পরিস্থিতি বিপজ্জনক হয়ে উঠছে।

জাপান যখন উদ্বেগ জানিয়ে যাচ্ছে, তখন রাশিয়া ও চীনের কর্মকর্তারা নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করতে ব্যস্ত। আকাশ ও সাগরে আরও মহড়া চালানোর মাধ্যমে প্রতিরক্ষা সম্পর্ক ঝালিয়ে নিতে নতুন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে দুইপক্ষের মধ্যে। রাশিয়ার পক্ষে এতে স্বাক্ষর করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শইগু এবং চীনের পক্ষে দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওয়েই ফেংহে।

চুক্তি অনুযায়ী, এশিয়া-প্যাসিফিক এলাকার জাপান সাগর ও পূর্ব চীন সাগরে যৌথ মহড়া চালাবে রাশিয়া ও চীন। সাম্প্রতিক সময় চীন ও রাশিয়ার মধ্যকার সামরিক সহযোগিতার সম্পর্ক স্থিতিশীলভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। গত আগস্টে চীনের নিংশিয়া এলাকায় বড় মাত্রার সামরিক মহড়া চালানো হয়। এতে প্রথমবারের মতো চীনের মাটিতে বিদেশি হিসেবে রাশিয়ার সেনাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

শুধু যৌথ মহড়াই নয়, সেখান থেকে যৌথ উদ্যোগে হেলিকপ্টার, ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এবং চাঁদে গবেষণা স্টেশন তৈরির ঘোষণাও করা হয়। এ প্রসঙ্গে রাশিয়া-বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্র আইআইএসএস-এর গবেষক নিগেল গুড ডেভিস বলেন, '১৯৫০-এর দশকের পর এখন রাশিয়া ও চীনের মধ্যে সবচেয়ে দারুণ সম্পর্ক বিরাজ করছে।'

চীন ও রাশিয়ার সম্পর্ক বিভিন্ন সময় কঠিন পরীক্ষার মধ্য দিয়ে গেছে। ১৯৬০-এর দশকে সীমান্ত নিয়ে দুই দেশের মধ্যে সংঘাত সৃষ্টি হয়েছিল। সে সময় তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন ও চীন পরমাণু যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিল।

তবে গুড ড্যাভিসের মতে, 'বর্তমানে চীন ও রাশিয়ার মধ্যে যে সম্পর্ক দেখা যাচ্ছে, তা একেবারেই আলাদা। গত ১০ বছর ধরে একটানা দুইপক্ষের মধ্যে সম্পর্ক বেড়ে চলেছে। ২০১৪ সালে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা জারি হলে দ্রম্নততার সঙ্গে চীনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বাড়ায় দেশটি।'

শুধু প্রতিরক্ষাই নয়, দুই দেশ কূটনীতিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রও ঘনিষ্ঠ হচ্ছে। ইরান, উত্তর কোরিয়া, সিরিয়া ও ভেনেজুয়েলা ইসু্যতে চীন ও রাশিয়ার অবস্থান একই। দুই দেশের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও ভস্নাদিমির পুতিনের মধ্যে দারুণ সম্পর্ক। ২০১৩ সালের পর থেকে দুইজন ৩০ বারের বেশি দেখা করেছেন। পুতিনকে নিজের 'ভালো বন্ধু' বলে ডাকেন জিনপিং।

রাশিয়া হচ্ছে, চীনের প্রধান অস্ত্র সরবরাহকারী রাষ্ট্র। একই সঙ্গে জ্বালানি তেলের জন্যও রাশিয়ার ওপর নির্ভর করে বেইজিং। অপরদিকে, চীন হচ্ছে রাশিয়ার প্রধান বাণিজ্য সহযোগী রাষ্ট্র। দেশটির শক্তি খাতেও ব্যাপক বিনিয়োগ রয়েছে রাশিয়ার। গুড ডেভিস মনে করেন, 'মূলত উদারপন্থি গণতান্ত্রিক আদর্শের বিরুদ্ধে আগ্রাসী অবস্থানই চীন ও রাশিয়াকে কাছাকাছি নিয়ে এসেছে।'

এদিকে, চীন ও রাশিয়ার মধ্যকার এই ঘনিষ্ঠতা পশ্চিমা দেশগুলোর মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। মার্কিন গোয়েন্দারা বলছেন, চীন ও রাশিয়ার এই সুসম্পর্ক যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো সদস্যগুলোর জন্য ইতিহাসের সবচেয়ে বড় হুমকি। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের হুমকি মোকাবিলায় ১৯৪৯ সালে তৈরি করা হয়েছিল ন্যাটো। এখন জোটটি রাশিয়া ও চীন উভয় রাষ্ট্রকে নিজেদের প্রধান শত্রম্ন মনে করে। গত মাসে লন্ডনভিত্তিক 'ফিন্যান্সিয়াল টাইমস'কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ন্যাটোর মহাসচিব জেনস স্টল্টেনবার্গ বলেন, তিনি রাশিয়া ও চীনকে আর আলাদা হুমকি হিসাবে দেখেন না। তিনি আরও বলেন, 'চীন এবং রাশিয়া ঘনিষ্ঠভাবে একসঙ্গে কাজ করে।' সংবাদসূত্র : আল-জাজিরা

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে