বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

শেখ হাসিনার মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তি

শেখ হাসিনার এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তি শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, সমগ্র এশিয়ার জন্য একটি সবুজ বিজয়।
মো. আশিকুর রহমান ও অনুপম সরকার
  ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ০০:০০

একবিংশ শতাব্দীর এই সময়ে সমগ্র বিশ্ব জলবায়ু পরিবর্তনের কঠোর বাস্তবতার সঙ্গে মোকাবিলা করছে, যখন পরিবেশ রক্ষার প্রতি অটুট প্রতিশ্রম্নতি প্রদর্শন করেন এমন নেতৃত্বের সংখ্যা বিরল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রসরমান নেতৃত্বে বাংলাদেশ সম্প্রতি একটি মাইলফলক অর্জন করেছে- যা শুধু জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় জাতির নিবেদনকেই প্রতিফলিত করেনি বরং প্রধানমন্ত্রীকে পরিবেশগত সমর্থনে বিশ্বব্যাপী নেতা হিসেবে স্থান দেয়।

জলবায়ুবিষয়ক কর্মকান্ডে নেতৃত্বের কণ্ঠস্বর হিসেবে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা মানুষের পক্ষে বিশ্বব্যাপী অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মর্যাদাপূর্ণ 'এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার' পুরস্কার প্রদান করা হয়। দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত জলবায়ু সম্মেলন (কপ-২৮) এর ফাঁকে একটি উচ্চ স্তরের প্যানেল অধিবেশনে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

আমরা যখন এই পুরস্কারের তাৎপর্য অন্বেষণ করি, তখন বাংলাদেশে পরিবেশগত সমস্যা মোকাবিলায় শেখ হাসিনা যে বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তা বোঝা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে অবস্থিত বাংলাদেশ তার নেতৃত্বে উদ্ভাবনী এবং টেকসই সমাধান বাস্তবায়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় নেতৃত্বের জন্য ইউএন পরিবেশ পুরস্কার (চ্যাম্পিয়নস অব দি আর্থ) ও ২০২১ সালে দারিদ্র্য দূরীকরণ, বিশ্বের সুরক্ষা এবং সবার জন্য শান্তি ও সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ গ্রহণে সফলতার জন্য জাতিসংঘের সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট সলিউশনস নেটওয়ার্ক (এসডিএসএন) কর্তৃক 'এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার' পান। এই স্বীকৃতিগুলো দারিদ্র্য দূরীকরণ, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং সবার জন্য শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য বৈশ্বিক উদ্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশের ধারাবাহিক প্রচেষ্টার মান্যতা দেয়।

বাংলাদেশের বহুল জনসংখ্যা, প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকি, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, চরম আবহাওয়ার ঘটনা এবং বৃষ্টিপাতের ধরন পরিবর্তনসহ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের মুখোমুখি হয়েছে। শেখ হাসিনার দৃষ্টিভঙ্গির মূলে রয়েছে একটি ব্যাপক কৌশল- যা প্রশমন, অভিযোজন এবং আন্তর্জাতিক সহযোগিতাকে অন্তর্ভুক্ত করে থাকে।

সরকার কর্তৃক পরিচালিত প্রশমন প্রচেষ্টা গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস এবং পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উৎসের প্রচারের ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে। সৌরশক্তির সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ উলেস্নখযোগ্য অগ্রগতি করেছে, বড় আকারের সৌর প্রকল্পগুলো জাতীয় গ্রিডে অবদান রাখছে। নবায়নযোগ্য শক্তির ওপর প্রধানমন্ত্রীর জোর জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে দূরে স্থানান্তরের বৈশ্বিক প্রচেষ্টার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ- যা একটি টেকসই এবং কম কার্বন ভবিষ্যতের প্রতি বাংলাদেশের প্রতিশ্রম্নতি প্রদর্শন করে।

অভিযোজন ব্যবস্থাও বাংলাদেশের জলবায়ু কর্মপরিকল্পনার একটি মূল উপাদান। শেখ হাসিনার সরকার এমন অবকাঠামো প্রকল্পে বিনিয়োগ করেছে- যা জলবায়ু সম্পর্কিত দুর্যোগের বিরুদ্ধে দেশের স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়। ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, বেড়িবাঁধ এবং আগাম সতর্কীকরণ ব্যবস্থা নির্মাণ ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর ওপর ঘূর্ণিঝড় ও বন্যার প্রভাব কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। অভিযোজনকে অগ্রাধিকার দিয়ে, বাংলাদেশ একই ধরনের জলবায়ু চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন অন্যান্য দেশের জন্য একটি মডেল হিসেবে কাজ করে।

বাংলাদেশ দ্রম্নত নগরায়ণ এবং জলবায়ু সংক্রান্ত দুর্বলতা যেমন ঘূর্ণিঝড়, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি এবং চরম আবহাওয়ার ঘটনাগুলোর দ্বৈত চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। শেখ হাসিনার নেতৃত্ব উদ্ভাবনী সমাধান বাস্তবায়ন, সবুজ প্রযুক্তির প্রচার এবং এই চ্যালেঞ্জগুলো প্রশমিত করতে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উলেস্নখযোগ্য উদ্যোগগুলোর মধ্যে একটি হলো 'ডেল্টা পস্ন্যান-২১০০' একটি দূরদর্শী কৌশল- যা বাংলাদেশের ব-দ্বীপের ভূ-প্রকৃতি দ্বারা উদ্ভূত অনন্য ভৌগোলিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে। এই পরিকল্পনাটি দেশের জন্য একটি নিরাপদ এবং টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা, টেকসই উন্নয়ন এবং জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতাকে একীভূত করে। ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড এই ধরনের দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার অন্তর্গত দূরদর্শিতা এবং প্রতিশ্রম্নতিকে স্বীকৃতি দেয়।

শেখ হাসিনার সরকারও জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় নবায়নযোগ্য শক্তির গুরুত্ব সম্পর্কে গভীর উপলব্ধি দেখিয়েছে। 'বাংলাদেশ সোলার হোম সিস্টেম'-এর মতো উদ্যোগের মাধ্যমে টেকসই শক্তির অনুশীলনে অবদান রাখা এবং দেশের কার্বন পদচিহ্ন হ্রাস করে সৌরশক্তি ব্যবহারে বাংলাদেশ উলেস্নখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে।

অধিকন্তু, বনায়ন কর্মসূচিতে হাসিনার প্রতিশ্রম্নতি বাংলাদেশের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ এবং কার্বন সিকোয়েস্টেশন বাড়ানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। পরিবেশ সংরক্ষণের সঙ্গে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য তার সরকারের প্রচেষ্টা টেকসই বৃদ্ধির জন্য একটি সামগ্রিক দৃষ্টিভঙ্গির ওপর জোর দেয়।

শেখ হাসিনা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বৈশ্বিক সহযোগিতার জন্য সোচ্চার কণ্ঠস্বর হয়েছেন, এই অস্তিত্বের হুমকি মোকাবিলায় দেশগুলোর ভাগ করা দায়িত্বের ওপর জোর দিয়েছেন। আন্তর্জাতিক ফোরাম, চুক্তিতে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ ও বৈশ্বিক শীর্ষ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর আবেগপ্রবণ বক্তৃতা বিশ্বমঞ্চে জলবায়ু কূটনীতিতে বাংলাদেশের অবস্থানকে উচ্চাসনে অধিষ্ঠিত করেছেন।

এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড শুধু শেখ হাসিনার অভ্যন্তরীণ প্রচেষ্টাকেই স্বীকৃতি দেয় না বরং জলবায়ু কর্মের পক্ষ সমর্থন জোরদার করার ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাপী প্রভাবশালী হিসেবে তার ভূমিকার প্রশংসা করে। এই স্বীকৃতি পরিবেশগত চ্যালেঞ্জের আন্তঃসংযুক্ত প্রকৃতি এবং সহযোগিতামূলক, আন্তঃসীমান্ত সমাধানের প্রয়োজনীয়তার ওপর আন্ডারস্কোর করে। এমন একটি বিশ্বে যেখানে জলবায়ু পরিবর্তনের কোনো সীমানা নেই, শেখ হাসিনার নেতৃত্ব সম্মিলিত পদক্ষেপের গুরুত্বের উদাহরণ দেয়।

পুরস্কারটি টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রম্নতির একটি প্রমাণ। তবে এটি জলবায়ু সমস্যাগুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়ার জন্য অন্য নেতাদের জন্য পদক্ষেপের আহ্বান হিসেবেও কাজ করে। জলবায়ু পরিবর্তন একটি বৈশ্বিক সংকট- যার জন্য অর্থনৈতিক উন্নয়নের বর্ণালিজুড়ে দেশগুলোর সমন্বিত প্রচেষ্টার প্রয়োজন। ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার হিসেবে শেখ হাসিনার স্বীকৃতি বিশ্বব্যাপী নেতাদের পরিবেশ নীতি পুনর্মূল্যায়ন করতে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আরও সক্রিয় অবস্থান গ্রহণ করতে অনুপ্রাণিত করবে।

বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের সঙ্গে ঝাঁপিয়ে পড়া অন্য দেশগুলোর জন্য মূল্যবান পাঠ দেয়। শেখ হাসিনার উদ্যোগের সাফল্য শুধু পুরস্কার এবং প্রশংসার মধ্যেই পরিমাপ করা হয় না, বরং বাংলাদেশি জনগণের জীবনে বাস্তব উন্নতিতেও পরিমাপ করা হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাস, পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তির উৎসের সম্প্রসারণ এবং জাতীয় পরিকল্পনায় জলবায়ু বিবেচনার একীকরণ সবই স্থিতিশীলতার পথে একটি জাতির সূচক।

যখন আমরা শেখ হাসিনার কৃতিত্ব উদ্‌যাপন করছি, তখন এটি স্বীকার করা গুরুত্বপূর্ণ যে, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই একটি চলমান যুদ্ধ- যার জন্য টেকসই অঙ্গীকার প্রয়োজন। এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড একটি উপসংহার নয় বরং আরও স্থিতিস্থাপক এবং টেকসই ভবিষ্যতের দিকে যাত্রার একটি মাইলফলক। বিশ্ব সম্প্রদায়কে শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে স্বীকৃতি দিয়ে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে সমর্থন করার প্রতিশ্রম্নতিও পুনর্নবীকরণ করতে হবে।

শেখ হাসিনার এশিয়া ক্লাইমেট মোবিলিটি চ্যাম্পিয়ন লিডার অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তি শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, সমগ্র এশিয়ার জন্য একটি সবুজ বিজয়।

\হএটি একটি দৃষ্টান্ত পরিবর্তনকে নির্দেশ করে যেভাবে আমরা জলবায়ু পরিবর্তনকে উপলব্ধি করি এবং মোকাবিলা করি, অলঙ্কারশাস্ত্র থেকে কর্মের দিকে অগ্রসর হয়। বিশ্ব যখন জলবায়ু সংক্রান্ত পদক্ষেপের জরুরি প্রয়োজনের সঙ্গে লড়াই করছে, তখন শেখ হাসিনা অনুপ্রেরণার আলোকবর্তিকা হিসেবে দাঁড়িয়েছেন, প্রমাণ করেছেন যে, টেকসই উন্নয়ন শুধু কাম্য নয়, শক্তিশালী নেতৃত্ব, দূরদর্শী নীতি, একটি সবুজ ও আরও স্থিতিস্থাপক ভবিষ্যতের প্রতিশ্রম্নতি দিয়ে অর্জনযোগ্য।

মো. আশিকুর রহমান ও অনুপম সরকার : নবীন কলাম লেখক

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে