রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সিসা দূষণে বিপর্যস্ত শিশুরা

সুমাইয়া আকতার, বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন কলেজ
  ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০০:০০
সিসা দূষণে বিপর্যস্ত শিশুরা

সাম্প্রতিক সময় সিসা দূষণ ভয়ংকর সমস্যাগুলোর মধ্যে একটি। এই দূষণে সবচেয়ে বেশিই আক্রান্ত ও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শিশুরা। ফলে শিশুদের মানসিক বিকারগ্রস্ততা, প্রতিবন্ধী হওয়ার হার বাড়ে এমনকি শারীরিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। বিগত ২০২৩ সালে ল্যানসেট বৈজ্ঞানিক সাময়িকীতে প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের এক গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে এক বছরে প্রায় এক লাখ ৪০ হাজার প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মৃতু্যর কারণ সিসা দূষণ। নিম্নমানের জিনিসপত্র, খেলনা, ভেজাল খাদ্যপণ্য ছাড়াও বিভিন্ন কারণে আমাদের দেশের বাচ্চাদের শরীরে সিসার পরিমাণ বেশি থাকে। সিসা দূষণ আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ চতুর্থ। টঘওঈঊঋ এবং চটজঊ ঊঅজঞঐ যৌথভাবে একটি গবেষণা করে বের করেছে যে, বাংলাদেশের প্রায় তিন কোটি ৬০ লাখ শিশু এর শিকার। এ দেশের আনুমানিক এক কোটি শিশুর শরীরে প্রতি ডেসিলিটার রক্তে ১০ মাইক্রোগ্রামের চেয়েও বেশি সিসা পাওয়া গেছে। সিসা হলো একটি শক্তিশালী নিউরোটক্সিন, যা শিশুদের মস্তিষ্কে অপূরণীয় ক্ষতি করে এবং এটি একটি ভারী ধাতু। এটি সাধারণত প্রকৃতিতে (মাটিতে) এবং মানুষের ব্যবহারের বিভিন্ন জিনিসপত্রে পাওয়া যায়। এই ভারী ধাতুর অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে প্রকৃতি দূষিত হয়ে পড়ে এবং মানুষ কোনোভাবে এই ভারী ধাতুর সংস্পর্শে আসলে জটিল স্বাস্থ্য সমস্যা হয়। শিশুদের পাশাপাশি আক্রান্ত হচ্ছে বড়রাও। প্রাকৃতিক পরিবেশের সতেজ বায়ুতে শ্বাস-প্রশ্বাসের স্বাভাবিক গতিবিধি যেন ব্যহত হচ্ছে বায়ুদূষণের কারণে। আর বায়ুদূষণের সঙ্গে পালস্না দিয়ে পরিবেশে বেড়েছে সিসার মাত্রা। সিসাযুক্ত বাতাস শ্বাস নেওয়ার মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করতে পারে। এ ছাড়াও সীসাযুক্ত খাবার অথবা পানীয় খেলেও সিসা দূষণের শিকার হতে পারে। সিসা দূষণের কারণে বাচ্চাদের কথা বলায় এবং আওয়াজ শোনার ক্ষেত্রেও জটিলতা দেখা দিতে পারে। সিসা দূষণের কারণে শিশুদের হৃদপিন্ড ও মস্তিষ্ক দুর্বল হয়ে পড়ে। বড় হওয়ার পর স্ট্রোক ও হার্ট অ্যাটাকের আশঙ্কা খুব বেশি থাকে।

এক কথায় বললে, সিসা দূষণ বাচ্চাদের শারীরিক, আচরণগত এবং মানসিক বিভিন্ন অসুস্থতার জন্য দায়ী। এটি যেকোনো বয়সি বাচ্চার সিসা দূষণের আশঙ্কা বেশি। মূলত ৯ মাস থেকে দুই বছর বয়সি বাচ্চাদের শরীরে সিসা প্রবেশ করার আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। কারণ, ওরা সাধারণত ফ্লোরে, মাটিতে হামাগুঁড়ি দেয় এবং স্বভাবগত আগ্রহের কারণে সামনে যা পায়, তা ধরে ফেলে, এমনকি সেটা মুখেও নিয়ে নেয়। আমেরিকার সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশান বলছে, সীসা খাবারের মাধ্যমে, শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে এবং চামড়ার মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করতে পারে। সিসা থাকতে পারে কিংবা সিসার দূষণ ছড়িয়ে যাওয়ার নানবিধ কারণের মধ্যে কিছু কারণ মুখ্য ভূমিকায় রয়েছে। যেমন :আমেরিকায় সিসা দূষণ সবচেয়ে বেশি ছড়ায় বাড়ির দেয়ালের পুরনো হয়ে যাওয়া রং থেকে। শিশুরা সিসাযুক্ত রংয়ের আস্তরণ চিবিয়ে ফেললে, স্পর্শ করলে, এমনকি খসে পড়া রংয়ের গুঁড়া নিঃশ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করলে সিসার ক্ষতিকর প্রভাবের শিকার হতে পারে। এ ছাড়াও, বাড়ির আবর্জনা থেকে সিসা আশপাশের মাটিতে মিশে গেলে, পরিবারের অসাবধানতায় শিশুরা সিসা দূষিত মাটি খেলে এবং মাটিতে চাষ করা সবজি খেলে, পুরনো খেলনা, জুয়েলারি অথবা কসমেটিকস মুখে নিলে, সিসাযুক্ত রং ব্যবহার করা হয়েছে- এমন পাত্রে খাবার খেলে। সাধারণত খাবার পাত্র যেমন অ্যালুমিনিয়াম ও সিরামিকের বাসনপত্র চকচকে করতে সিসাযুক্ত রং ব্যবহার করা হয়। এসব পাত্রে রান্না করা খাবার খেলে পাত্র থেকে সিসা গলে খাবারের সঙ্গে মিশে শরীরে ঢুকতে পারে। অনেক দিনের পুরনো ট্যাপের পানিতে সিসা থাকার আশঙ্কা খুব বেশি। বিদেশি চকলেট ও জুসের মধ্যেও সিসা থাকতে পারে। আশপাশে থাকে এমন প্রাপ্তবয়স্ক লোক যদি সিসাযুক্ত জুয়েলারি অথবা কাপড় পরে, তবে শিশু এতে সিসা দূষণের শিকার হতে পারে। সিসা দূষিত মাটি বা ধুলার ছোট কণা পোশাকে বা ঘরের আসবাবপত্রে থাকলে শ্বাসের মাধ্যমে সিসা শরীরে প্রবেশ করতে পারে। সিসা আক্রান্ত এলাকায় খেলাধুলা করলে শিশুদের চামড়ায় বিষাক্ত সিসার আস্তরণ পড়তে থাকে এবং শরীরে প্রবেশ করে মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে।

বাচ্চাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে ব্যবহার করা আয়ুর্বেদিক বা পুরনো ওষুধ খেতে দিলে তা থেকে শিশুদের শরীরে সিসা প্রবেশ করতে পারে। সিসা দূষণে শিশু আক্রান্ত হলে কিছু বিষয় লক্ষণীয়। যেমন-ক্ষুধা কমে যাওয়া, বেশিরভাগ সময় শারীরিকভাবে ক্লান্ত, অবসন্ন অনুভব করা, মেজাজ খিটখিটে হয়ে থাকা, শারীরিক বৃদ্ধি ঠিকঠাক না হওয়া, বমিভাব অথবা বমি হওয়া, কোষ্ঠকাঠিন্য, পেট ব্যথায় ভোগা, হাড়ে ব্যথা অনুভব করা, মাথা ব্যথা হওয়া, পড়াশোনায় অমনোযোগ বা পড়া মনে রাখতে না পারা। যেহেতু বাংলাদেশে এখনো শিশুশ্রমিক রয়েছে, তাই বাংলাদেশের পথশিশুদের শরীরে উচ্চমাত্রার সিসা পাওয়া গেছে। শহরে পথশিশুদের বেশিরভাগই বিভিন্ন আবর্জনার স্তুপে পস্নাস্টিক, লোহার জিনিসপত্র কুড়িয়ে দিন কাটায়। আবর্জনার স্তুপগুলোতে বিষাক্ত সিসার পরিমাণ ভয়ংকর মাত্রায় থাকে। পথশিশুদের শ্বাসের মাধ্যমে এবং চামড়া দিয়ে প্রবেশের মাধ্যমে সিসা দূষণে আক্রান্ত হয়ে প্রাণঘাতী অসুখের শিকার হয়।

সিসা দূষণের মতো সমস্যার ক্ষতিকর প্রভাবকে প্রাথমিক পর্যায়ে মূল্যায়ন না করা হলেও এর প্রভাব দীর্ঘমেয়াদি হয়। তাই এই দূষণ নিরসনে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা, পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ এবং দূষিত এলাকা থেকে দূরে থাকা উচিত। পাশাপাশি ঘরে বাচ্চাদের ঘনঘন হাত ধোয়ার অভ্যাস করাতে হবে? এতে ঘর পুরনো হলেও শরীরে সীসা প্রবেশের আশঙ্কা কমবে। এ ছাড়াও তাদের নিয়মিত নখ কাটতে হবে, যাতে নখের নিচে জমে থাকা ময়লার মাধ্যমে সীসা শরীরে ঢোকার আশঙ্কা কমে। নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার দিতে হবে। তাদের খাবারে যাতে আয়রন, ভিটামিন সি এবং ক্যালসিয়াম থাকে, তাই নিয়মিত ডিম, মাংস, শিমের বীজ, ফলমূল, লেবু, সবুজ মটরশুটি, টকদই, পনির ইত্যাদি খাওয়ানো যেতে পারে। নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খেলে শরীর থেকে সিসা বের হয়ে যায়। যাদের বাড়ির পানির কল, পাইপ পুরনো, তারা দিনের শুরুতে ব্যবহারের জন্য পানি নেওয়ার আগে অন্তত ১০ মিনিট পানির কল ছেড়ে রাখতে পারেন। এই ১০ মিনিটে পানির সঙ্গে বেশিরভাগ সিসা চলে যাবে এবং সিসা দূষণের আশঙ্কা কমবে? ঘরের বাইরে বা খেলার মাঠে খোলামেলাভাবে বসে খাবার অথবা পানি খাওয়া থেকে শিশুদের বিরত রাখতে হবে এবং শিশুশ্রমিকের শ্রমের হারের পরিমাণ কমিয়ে আনার দৃঢ় প্রত্যয়ে অগ্রসর হতে হবে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে