জনগণের টাকা ফেরত দিন, না হলে কারাগারে দেব :ঋণখেলাপিদের হাইকোর্ট

জনগণের টাকা ফেরত দিন, না হলে কারাগারে দেব :ঋণখেলাপিদের হাইকোর্ট

হাইকোর্টের কোম্পানি বেঞ্চের বিচারক মোহাম্মদ খুরশিদ আলম সরকার বলেছেন, 'আপনারা টাকা তুলে নিয়ে চলে গেছেন। আর যারা পিপলস লিজিংয়ে টাকা জমা রেখেছিল, তারা না খেয়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। পিপলস লিজিংয়ের টাকা জনগণের টাকা, চোর-বাটপাড়দের টাকা না। আগে টাকা দিন, পরে কথা বলুন। তা না হলে ভেতরে (কারাগারে) ঢোকানো হবে।'

ঋণখেলাপি ও তাদের আইনজীবীদের উদ্দেশে ক্ষোভ প্রকাশ করে বৃহস্পতিবার একক বেঞ্চে এসব কথা বলেন।

এসময় শুনানি করেন আইনজীবী ড. সাঈদা নাসরিন। তার মক্কেল আদালতকে বলেন, তার কাছে ৩৮৪ কোটি টাকা পাওনা পিপলস লিজিংয়ের।

এসময় আদালত বলেন, 'আগে টাকা দেবেন, তারপর ইনস্টলমেন্টের আবেদন করবেন। না হলে কারাগারে ঢোকাব। এটা জনগণের জমানো টাকা। পিপলস লিজিংয়ের চোর-বাটপাড়দের টাকা না।'

আদালত আরও বলেন, 'আমরা

দেখছি হাজার হাজার কোটি টাকা নিয়ে এ কোম্পানিকে বাঁচিয়ে রেখে টাকা উদ্ধার করা যায় কিনা। আমানতকারীরা আজকে খেয়ে-না খেয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন। আমরা চেষ্টা করছি ঋণগ্রহীতাদের কাছ থেকে টাকা উদ্ধারের।'

আর্থিক প্রতিষ্ঠান পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস থেকে ৫ লাখ টাকা এবং তার বেশি ঋণ নিয়ে খেলাপি হওয়া ১৩৭ জনের সশরীরে আদালতে হাজিরা ছিল বৃহস্পতিবার।

অবসায়ন প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকা পিপলস লিজিংয়ের সাময়িক অবসায়ক (প্রবেশনাল লিকুইডেটর) মো. আসাদুজ্জামান খানের দেওয়া এ সংক্রান্ত তালিকা দেখে আদালত ২১ জানুয়ারি মোট ২৮০ জনকে তলব করেছিলেন। তাদের মধ্যে আদালত দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে হাইকোর্টে উপস্থিত হতে বলেন। তারই আলোকে গত ২৩ ফেব্রম্নয়ারি নির্ধারিত দিনে আদালতে ১৪৩ জনের হাজিরা ছিল। বৃহস্পতিবার হাজিরা ছিল বাকিদের।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে