চিরিরবন্দরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এক 'মৃত' নারী!

চিরিরবন্দরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এক 'মৃত' নারী!

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'জীবিত ও মৃত' ছোটগল্পের বিখ্যাত উক্তি হলো- 'কাদম্বিনী মরিয়া প্রমাণ করিল, সে মরে নাই।' সৌভাগ্যবশত প্রত্যেকে কাদম্বিনীর মতো অভাগী নন, কাজেই জীবিতাবস্থার প্রমাণ দেওয়ার জন্য জীবন ত্যাগের চূড়ান্ত পদক্ষেপ না নিলেও নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন সহিদা বেগম নামে এক মৃত নারী। নিজেকে জীবিত প্রমাণ করার প্রাণান্ত চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি।

উপজেলার ভূমি অফিসের চতুর্থ শ্রেণির অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী আব্দুলপুর ইউনিয়নের নান্দেড়াই গ্রামের বাসিন্দা মৃত ফজিরউদ্দিনের স্ত্রী সহিদা বেগম। বাস্তবে জীবিত থাকলেও ভোটার তালিকায় মৃত। এ কারণে স্বামীর অবসরভাতা উত্তোলনসহ বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তিনি। এমনকি ভোট দিতেও পারছেন না।

জানা গেছে, উপজেলা নির্বাচন অফিসে ৬ মাস ধরে ধর্ণা দিয়েও কোনো লাভ হয়নি সহিদা বেগমের। তিনি বলেন, 'আমি জানতাম না ভোটার তালিকা থেকে আমার নাম কেটে দেওয়া হয়েছে। স্বামীর অবসরভাতা তুলতে ব্যাংকে গিয়ে শুনি যে, আমার নাম ভোটার তালিকা থেকে কেটে দেওয়া হয়েছে। আমি নাকি মারা গেছি।'

এ বিষয়ে স্থানীয় আব্দুলপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ মো. ময়েনউদ্দিন শাহ্‌ বলেন, ওই নারীর নাম ভোটার তালিকায় ভুলবশত কাটা পড়েছে। তিনি জীবিত ও সুস্থ আছেন। তাকে জীবিত থাকার একটি প্রত্যয়নপত্র দিয়েছেন।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আব্দুল মালেক জানান, গত ২০ জানুয়ারি ২০২১ ভোটার তালিকায় ওই নারীর নাম পুনরায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য ঢাকায় জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক বরাবরে পত্র দেওয়া হয়েছে। এখনো কোনো রিপস্নাই আসেনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে