রোববার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

ডেপুটি স্পিকারের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে দুই গ্রম্নপের সংঘর্ষ

পাবনা প্রতিনিধি
  ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০০:০০
জাতীয় সংসদের নবনিযুক্ত ডেপুটি স্পিকার হিসেবে নিযুক্ত হওয়ায় পাবনা-১ আসনের সংসদ সদস্য শামসুল হক টুকুর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের দুই গ্রম্নপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ব্যাপক চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনা ঘটে। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লাঠিচার্জে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। শনিবার পাবনা শহরের বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা চত্বরে এই ঘটনা ঘটে। এদিন দুপুর ১২টার দিকে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের ব্যানারে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শুরু হয়। পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ বাবুর সঞ্চালনায় নেতারা বক্তব্য রাখছিলেন। এদিন দুপুর ২টার দিকে নবনিযুক্ত ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর বক্তব্য শুরুর ঠিক কয়েক মিনিট আগে অনুষ্ঠানের প্যান্ডেলের পেছনের দিকে দাঁড়ানো নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই গ্রম্নপের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এক পর্যায়ে সংঘর্ষে রূপ নেয়। দুই পক্ষই একে অপরকে চেয়ার ছুড়ে মারে। এ সময় কয়েকজন নেতার হস্তক্ষেপে কিছুটা শান্ত হয়। এর কয়েক মিনিট পর আবারও শুরু হয় সংঘর্ষ। এ সময় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ মোশাররফ হোসেনসহ কয়েক নেতা তাদের থামানোর চেষ্টা করেন। এ ছাড়াও মাইকে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকতে সতর্ক করা হয়। তাদের নিষেধ উপেক্ষা করেই দুই গ্রম্নপ আবার চেয়ার ছোড়াছুড়ি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে অনুষ্ঠানের শৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও থানা পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ বিষয়ে পাবনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ মোশাররফ হোসেন বলেন, 'বিষয়টা তেমন কিছুই নয়, পেছনের দিকে দাঁড়ানো ও ঢোল বাজানো নিয়ে ছেলে-পেলেদের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক হয়েছিল, তাছাড়া অন্য কিছু নয়। পরে শান্ত হয়ে যায় এবং সুন্দরভাবে অনুষ্ঠান শেষ হয়েছে।' পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স বলেন, 'পেছনের দিকে দাঁড়ানো নিয়ে প্রথমে ধাক্কাধাক্কি, তারপরে একে অপরকে চেয়ার তুলে মারা শুরু করে। তেমন কিছু নয়, নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কারণে এমন হয়েছিল, পরে সিনিয়ররা গিয়ে নিয়ন্ত্রণ করেছে।' পাবনার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, 'ওই অনুষ্ঠানের প্যান্ডেলের পেছনে দাঁড়ানো ও স্স্নোগান নিয়ে দুই গ্রম্নপের মধ্যে এক ঝামেলা তৈরি হয়েছিল। পরে নেতারাই তাদের সেখান থেকে সরিয়ে দিয়েছেন। তেমন ঘটনা নয়।' পরে পরিস্থিতি শান্ত হলে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু বলেন, 'আমাকে ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত করে প্রধানমন্ত্রী, জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা পাবনার ৩০ লাখ মানুষকে সম্মানিত করেছেন।' আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ডেপুটি স্পিকার বলেন, দেশের উন্নয়নে এবং দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে মানতে হবে। একবার ভুল করলে ক্ষমা হয়, বারবার ভুলের ক্ষমা হয় না। আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থী আ স ম আব্দুর রহিম পাকনকে বিজয়ী করতে হবে। পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক রেজাউল রহিম লালের সভাপতিত্বে, পাবনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্সের পরিচালনায় এবং অ্যাডভোকেট আব্দুল আহাদ বাবুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান বিশ্বাস, পাবনা-সিরাজগঞ্জ সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য নাদিরা ইয়াসমিন জলি, আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আব্দুর রহিম পাকন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শ্রমজীবী সংগঠন, বেসরকারি সংস্থা, আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ ফুলের তোড়া দিয়ে নবনিযুক্ত ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুকে সংবর্ধনা জানান।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে