পাবনার সাঁথিয়া মুক্ত দিবস আজ

পাবনার সাঁথিয়া মুক্ত দিবস আজ

৯ ডিসেম্বর পাবনার সাঁথিয়া হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে সাঁথিয়া থানার নন্দনপুর ও জোড়গাছায় পাকসেনাদের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখযুদ্ধের পর সাঁথিয়া সম্পূর্ণভাবে পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয়েছিল।

মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিরা এলাকার ছাত্র, যুব তরণদের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিতে উদ্বুব্ধ করতে থাকেন। যুদ্ধ অনিবার্য- এটা আঁচ করতে পেরে এলাকার ছাত্র যুব তরুণরা সংগঠিত হতে থাকেন। সাঁথিয়া হাইস্কুল মাঠে তারা প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেন। ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ এলাকার বহু যুব তরুণরা সাঁথিয়া থানা আক্রমণ করে অস্ত্র লুট করে। পরে স্থানীয় পশু হাসপাতাল প্রাঙ্গণে যুদ্ধকালীন কমান্ডার নিজাম উদ্দিনসহ এলাকার যুব তরুণরা বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন।

দীর্ঘ ৯ মাস সাঁথিয়ার বিভিন্ন স্থানে পাকসেনাদের সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাসহ অসংখ্য নিরীহ মানুষ শহীদ হন। ১৯ এপ্রিল সাঁথিয়ার পাইকরহাটির ডাব বাগান (বর্তমানে শহীদ নগর) যুদ্ধে পাকবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নেয় মুক্তিযোদ্ধা ও ইপিআর বাহিনী। ওই যুদ্ধে ২০ জন মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রায় ২০০ নিরীহ গ্রামবাসী শহীদ হন।

২৬ সেপ্টেম্বর সাঁথিয়ার মুক্তিযোদ্ধারা সাঁথিয়া হাইস্কুলে অবস্থিত রাজাকার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে ৯ জন রাজাকারকে হত্যা করেন এবং অনেক অস্ত্র উদ্ধার করেন।

সাঁথিয়ায় সবচেয়ে নারকীয় ও বেদনাদায়ক হত্যাকান্ড সংগঠিত হয় ২৭ নভেম্বর ধুলাউড়ীতে। ওইদিন পাকসেনারা বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে রাতের অন্ধকারে পুরো গ্রাম ঘিরে ফেলে মুক্তিযোদ্ধাসহ প্রায় ১০০ গ্রামবাসীকে পুড়িয়ে, গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে।

৮ ডিসেম্বর সাঁথিয়ার সব মুক্তিযোদ্ধা একত্রিত হয়ে থানা সদর থেকে দুই কি.মি. পশ্চিমে নন্দনপুর রণাঙ্গনে পাকিস্তানি হানাদারদের সঙ্গে চূড়ান্ত মোকাবিলায় মুখোমুখি হন। মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র আক্রমণের মুখে টিকতে না পেরে পাক হানাদার বাহিনীর সদস্যরা পিছু হটে পাবনা শহরে গিয়ে আশ্রয় নেয়।

পরদিন ৯ ডিসেম্বর নতুন করে শক্তি সঞ্চয় করে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে পাক হানাদাররা সাঁথিয়া পুনর্দখলের চেষ্টা করে। এ অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধারা সাঁথিয়া-মাধপুর সড়কের নন্দনপুর-জোড়গাছার মধ্যবর্তী ব্রিজটি বোমা মেরে উড়িয়ে দেন। সেদিন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র বাধার মুখে পাকসেনারা আবার পিছু হটে পাবনা শহরের দিকে চলে যায়। পরে মুক্তিযোদ্ধারা সাঁথিয়া থানা চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সাঁথিয়া থানাকে শত্রম্নমুক্ত ঘোষণা করেন।

সাঁথিয়া উপজেলা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল লতিফ জানান, দিবসটি পালন উপলক্ষে সাঁথিয়া উপজেলা কমান্ড দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে- সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পতাকা উত্তোলন, সকাল ১০টায় স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ, বেলা ১১টায় আনন্দর্ যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে