রোববার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১
walton

ফটিকছড়ির বাগানবাজারে বিসিএস ক্যাডারের বাড়িতে হামলা ও ভাঙচুর

ফটিকছড়ি (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
  ২৯ জানুয়ারি ২০২৪, ১৪:৪০

চট্টগ্রাম ফটিকছড়ির ১নং বাগান বাজারে বিসিএস ক্যাডার মোহাম্মদ কবির হোসেন এবং নিউইয়র্ক পুলিশে কর্মরত নুর নবীর গ্রামের বাড়িসহ ৫-৬টি বাড়িতে রাতের অন্ধকারে ৭০-৮০ জন দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে হামলা এবং ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার দিবাগত রাতে সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলা বাগানবাজার ইউপির ২নং ওয়ার্ডের চিকনেরখিল (পূর্বটিলা) এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়- রাত সাড়ে ৯টা থেকে প্রায় ৭০-৮০ জন দুর্বৃত্তরা এ হামলা চালাতে থাকে। এ সময় ৩৫ তম বিসিএস শিক্ষা ক্যাডার মোহাম্মদ কবির হোসেন এবং তার বড় ভাই আমেরিকা নিউইয়র্ক পুলিশ অফিসার নুর নবীর বাড়ি ঘরের চারদিকের গ্লাস ভাংচুর এবং ঘরের সীমানা প্রাচীরে হামলা চালায়। তারা ১ ঘন্টা যাবত এ হামলা চালায়, পরে স্থানীয়রা জানতে পেরে ছুটে আসলে দুর্বৃত্তকারীরা পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে কর্মরত মোহাম্মদ কবির হোসেন বলেন- ৫-৬টা বাড়িতে হামলা এবং ভাংচুর চালানোর পর রাত সাড়ে ৯ টার দিকে আমার এবং বড় ভাইয়ের বাড়িতে প্রায় ১০০ জন দুবৃত্তকারী ভাংচুর চালায়। ওই সময় বাসায় বড় ভাইয়ের বউ এবং ৩ ছেলেমেয়ে ছিলেন। তারা যদি ঘরের ভিতরে তালা মেরে পালিয়ে না যেতেন তাহলে বড় কোন অঘটন ঘটে যেত।

তিনি বলেন, আন্দাজ করতে পারছিনা কেন এ ঘটনা তারা ঘটালো। আমরা কোন রাজনীতির সাথে জড়িত নেই, বাসায় রাজনীতি করবে এমন কেউও নেই। তবে আমি এলাকার একটা দাখিল মাদ্রাসায় আমি সভাপতির দায়িত্বে আছি, আগামি মার্চের ১৫ তারিখ পর্যন্ত আমার দায়িত্বের মেয়াদ আছে। এটাকে কেন্দ্র করে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করার জন্য আমি যাতে এলাকায় আর না যায় ওরা যেন ওই পদ টা দখল করতে পারে এজন্যও এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে আমার সম্ভাব্য ধারণা। আমি ভূজপুর থানায় গিয়েছি, ওসি ছুটিতে আছে, আগামিকাল এর বিরুদ্ধে মামলা করবো।

এছাড়াও আমি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং এমপি কে জানিয়েছি। অন্য যে বাড়ি গুলোতে ভাংচুর করেছে তারা রাজনীতি করতো। আমি বোয়ালখালি স্যার আশুতোষ সরকারি কলেজে ইংরেজি প্রফেসর এর দায়িত্বে আছি। তাই বাড়িতে থাকা হয়না, চট্টগ্রাম শহরে থাকি।

ভূজপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে। আইনী ভাবে যা যা করা দরকার তা আমরা অবশ্যই করবো।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি। শুনে সাথে সাথে পুলিশও পাঠিয়েছি। এ ব্যাপারে ভূজপুর থানায় ভুক্তভোগীদের মামলার এজাহার দ্রুত জমাও দিতে বলেছি।

যাযাদি/ এসএম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে