রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সজিব হত্যার জেরে প্রতিপক্ষের বাড়িতে রাতভর তান্ডব

জাজিরা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি
  ১০ এপ্রিল ২০২৪, ১৩:৪৮
ছবি-যায়যায়দিন

শরীয়তপুরে জাজিরা উপজেলার বিলাশপুর ইউনিয়নে অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারী ও পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল জলিল মাদবরের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে বোমা বিস্ফোরণে গুরুতর আহত যুবক সজীব মুন্সী(২৫) ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার ঘটনার জেরে প্রতিনিয়ত প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘরে হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেই চলেছে।

বুধবার (১০-এপ্রিল) সরেজমিনে গিয়ে একটি বাড়িতে তান্ডব চালানোর চিত্র দেখা যায়, (৯-এপ্রিল) রাতে তান্ডব চালানো হয়েছে বিলাসপুর বাজারের কাছেই বসবাসকারী রহমান খানের বাড়িতে। বাড়িতে থাকা দুটি আধা পাকা ঘরের ভেতরে এবং বাহিরে কুপিয়ে ও ভাংচুর করে কয়েক লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি করেছে দূর্বৃত্তরা। এছাড়া লুটপাট ও ভাংচুর করা হয়েছে ঘরের মধ্যে থাকা আসবাবপত্র।

উল্লেখ্য : নিহত সজীব মুন্সী আব্দুল জলিল মাদবরের সমর্থক ছিলেন। প্রতিপক্ষের দাবী, তিনি সংঘর্ষের সময় বোমা বহন করে সংঘর্ষে লিপ্ত হলে এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষের লোকজনকে ধাওয়া দিতে গিয়ে রাস্তার পাশে পড়ে গিয়ে তার সাথে থাকা বোমা বিস্ফোরিত হয়ে তার পেটের নাড়ি-ভুঁড়ি বেরিয়ে আসে। এসময় শ্যামল নামের এক ব্যক্তি তাকে লক্ষ্য করে আরও একটি ককটেল নিক্ষেপ করেন বলেও দাবি তাদের। অবশেষে মঙ্গলবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

সজিব মুন্সির মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দফায় দফায় ভাংচুর ও লুটপাট শুরু হয়। গত কয়েকদিনে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারীর সমর্থক গিয়াস উদ্দিন মাদবর, ইব্রাহীম মাদবর, মামুন মাদবর, লোকমান মাদবর, রাজ্জাক মাদবর, লাল মিয়াসহ প্রায় অর্ধশত লোকের ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট করেছে প্রতিপক্ষ আব্দুল জলিল মাদবরের সমর্থকরা। অভিযোগ র‍য়েছে, বাড়ি থেকে গরু, ছাগল ও গোলার ধান পর্যন্ত নিয়ে গেছে প্রতিপক্ষের লোকেরা।

বিলাশপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারী বলেন, বিলাশপুর ইউনিয়নে মোট ১৮টি গ্রামের মধ্যে ১২টি গ্রাম বর্তমানে পুরুষ শূন্য হয়ে গেছে। আসন্ন ইদকে সামনে রেখে এসব গ্রামে মহিলা ব্যতীত কোনো পুরুষ নেই। বর্তমানে বাড়ির মহিলারা যে কোনো দুর্ঘটনার ভয়ে আতংকিত হয়ে রয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিলাশপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আ. কুদ্দুস বেপারী গ্রুপের সঙ্গে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আ. জলিল মাদবর গ্রুপের মধ্যে গত সপ্তাহে সংঘর্ষ বাঁধে। ওই সময় সংঘর্ষকারীরা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এলাকায় লুটপাট করে। এক পর্যায়ে সজীব মুন্সি নামক ব্যাক্তি বোমা বিস্ফোরণে গুরুতর আহত হয়ে যায়।

চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারির দাবী, আব্দুল জলিল মাদবরের সমর্থক সজীব মুন্সি নামের যুবক বোমা বহন করে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে নিজের বোমা বিস্ফোরণে নিজেই গুরুতর আহত হয়। এ সময় বোমার আঘাতে সজীব মুন্সীর পেটের নাড়িভুঁড়ি বেরিয়ে আসে।

এ বিষয়ে আব্দুল জলিল মাদবর বলেন, আমার কোনো সমর্থক ভাংচুর ও লুটপাটের সঙ্গে জড়িত নয়।

জাজিরা থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, হত্যার ঘটনায় ৬৫ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা সম্পর্কে আমার কিছুই জানা নেই।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে