logo
বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

  স্টাফ রিপোর্টার, ভোলা   ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০  

৬ দফায় সমঝোতা

বোরহানউদ্দিন থমথমে আসামি ৫ হাজার

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় সংঘর্ষের ঘটনায় 'তৌহিদী জনতা'র ৬ দফা দাবি মেনে নিয়েছে প্রশাসন

বোরহানউদ্দিন থমথমে আসামি ৫ হাজার
বোরহানউদ্দিনে রোববারের সংঘর্ষে ৪ জন নিহত হওয়ার প্রতিবাদে সোমবার সকালে ভোলা সরকারি স্কুল মাঠে 'তৌহিদী জনতা'র ব্যানারে সমাবেশের ডাক দেওয়া হলেও প্রশাসনের অনুমতি না মেলায় পরে তা বাতিল করা হয় -ফোকাস বাংলা
ভোলার বোরহানউদ্দিনে হিন্দু তরুণের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে 'অবমাননাকর' বক্তব্য ছড়ানোর পর সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় পাঁচ হাজার লোককে আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় বোরহানউদ্দিন উপজেলার পাশাপাশি পুরো জেলাতেই থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, অনুমতি ছাড়া কোনো ধরনের সভা-সমাবেশ বা মিছিল করা যাবে না।

চারজন নিহতের প্রতিবাদে 'মুসলিম ঐক্য পরিষদের' ব্যানারে সোমবার যে সমাবেশ ডাকা হয়েছিল, অনুমতি না পাওয়ায় তা হয়নি বলে জানিয়েছেন আয়োজকদের অন্যতম নেতা মাওলানা মিজানুর রহমান।

রোববার দুপুরে ওই সংঘর্ষের পর আশপাশের জেলা থেকে বাড়তি পুলিশ আনা হয়েছে দ্বীপজেলা ভোলায়। বোরহানউদ্দিনে মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি।

বিপস্নব চন্দ্র বৈদ্য শুভ নামে এক যুবক শুক্রবার রাতে বোরহানউদ্দিন থানায় গিয়ে একটি জিডি করেন। সেখানে তিনি তার ফেসবুক আইডি হ্যাকারের কবলে পড়ার কথা জানান।

শুভর মেসেঞ্জারে 'নবীকে নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্য' ছড়িয়ে সেই 'স্ক্রিনশট' ব্যবহার করে গত শুক্রবার থেকে বোরহানউদ্দিনে উত্তেজনা সৃষ্টি করা হয়।

এরপর শুভর বিচারের দাবিতে রোববার বোরহানউদ্দিন ঈদগা ময়দানে 'মুসলিম তৌহিদী জনতা'র ব্যানারে বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

রোববার বেলা পৌনে ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত উপজেলা সদরে দফায় দফায় সংঘর্ষে চারজন নিহত হন, আহত হন ১০ পুলিশ সদস্যসহ শতাধিক।

সংঘর্ষের মধ্যে পুলিশের দিকে গুলিও ছোড়া হয়; তাতে একজন পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হন। সংঘর্ষে যে চারজন নিহত হয়েছেন তাদের মধ্যে দু'জনের মাথা ভোঁতা অস্ত্র দিয়ে থেঁতলানো ছিল বলে চিকিৎসকের বরাতে জানিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর।

বোরহানউদ্দিন থানার ওসি এনামুল হক বলেন, রোববারের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছে। হত্যা, পুলিশের ওপর হামলা, বিশৃঙ্খলার অভিযোগে অজ্ঞাতপরিচয় চার থেকে পাঁচ হাজার লোককে আসামি করা হয়েছে সেখানে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক জানান, কেউ যেন প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কোনো ধরনের সভা-সমাবেশ বা মিছিল না করে, সে বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে।

বোরহারউদ্দিনের পাশাপাশি ভোলা জেলা শহরে রোববার থেকেই পুলিশের টহল বাড়ানো হয়েছে। পাশের জেলা থেকে অতিরিক্ত দুইশর বেশি পুলিশকে ভোলায় আনা হয়েছে বলে ভোলা মডেল থানার ওসি এনায়েত হোসেন জানিয়েছেন।

আর বোরহানউদ্দিনে পুলিশ ও বিজিবির পাশাপাশি কোস্টগার্ড সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন বলে পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানিয়েছেন।

৬ দফা দাবি মেনে নিয়েছে প্রশাসন

এদিকে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় সংঘর্ষের ঘটনায় 'তৌহিদী জনতা'র ছয় দফা দাবি মেনে নিয়েছে প্রশাসন। রোববার রাতে ভোলা-২ (দৌলতখান-বোরহানউদ্দিন) আসনের এমপি আলী আজম মুকুল, বরিশাল পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) শফিকুল ইসলাম, ভোলার পুলিশ সুপার (এসপি) সরকার মোহাম্মদ কায়সার, জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক, বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মু. এনামুল হকসহ বিভাগীয় জেলার কর্মকর্তারা 'তৌহিদী জনতা'র নেতাদের সঙ্গে বোরহানউদ্দিন থানায় বৈঠকে বসেন। সেখানে নেতারা ছয় দফা দাবি উপস্থাপন করেন।

ছয় দফা দাবি হলো :

জেলা ও থানা থেকে এসপি এবং ওসিদের প্রত্যাহার করতে হবে : ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করার অনুমতি দিতে হবে : আহত লোকজনের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে : নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দিতে হবে : অভিযুক্ত বিপস্নব চন্দ্র শুভর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের ফাঁসি দিতে হবে এবং গ্রেপ্তার করা ব্যক্তিদের মুক্তি দিতে হবে এবং এসব দাবি প্রশাসন মেনে নিয়েছে। তারা কেবল বলেছে, ফাঁসি নয়, যে-ই অপরাধী শনাক্ত হোক না কেন, প্রচলিত আইন অনুযায়ী তার শাস্তি হবে।

পল্টনে ইসলামী

আন্দোলনের বিক্ষোভ

ভোলায় হিন্দু তরুণের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে 'অবমাননাকর' বক্তব্য ছড়ানোর পর সংঘর্ষে হতাহতের প্রতিবাদে পুরানা পল্টন এলাকায় বিক্ষোভ করেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ঢাকা মহানগর শাখা। সোমবার দুপুর থেকে বায়তুল মোকাররমের উত্তর ফটকে জড়ো হতে শুরু করেন সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমির ফয়জুল করিম ভোলার ঘটনায় সরকারের ভূমিকার সমালোচনা করেন।

পরে বিকেল পৌনে ৪টার দিকে সেখান থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে তারা পল্টন মোড়ে যান।

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার আনোয়ার বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে তারা উত্তর ফটকে সমাবেশ ও মিছিল করেছে।

হেফাজতের বিক্ষোভ

সমাবেশ আজ

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে চারজন নিহত হওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে ও মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) কে নিয়ে কটূক্তিকারীর শাস্তির দাবিতে আজ মঙ্গলবার দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম।

সোমবার দুপুরে চট্টগ্রামের হাটহাজারিতে সংগঠনটির কার্যালয়ে মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচির ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি জেলা শহরে মঙ্গলবার জোহরের নামাজের পর শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।

জুনায়েদ বাবুনগরী ফেসবুকে কটূক্তিকারীর ঘটনার অধিকতর তদন্তের দাবি জানান। তিনি বলেন, 'আমাদের তদন্তে জানা গেছে, বিষয়টি পরিকল্পিতভাবে করা হয়েছে। আইডি হ্যাকড হয়নি। যদিও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আইডি হ্যাকড হয়েছে। তার কথা মাথার ওপরে। এরপরও প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাচ্ছি, বিষয়টি যেন অধিকতর তদন্ত করা হয়।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে