logo
বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬

  অনলাইন ডেস্ক    ২০ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০  

ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন

নতুন উদ্যমে প্রচার-প্রচারণা

মেয়রপ্রার্থীরা রোববার চষে বেড়িয়েছেন ঢাকার অলিগলি। দলের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে নিজ মার্কার পক্ষে ভোটারদের কাছে ভোট চেয়েছেন তারা

নতুন উদ্যমে প্রচার-প্রচারণা
রোববার ঢাকা উত্তরের আ'লীগের মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম প্রচারণা চালান
যাযাদি রিপোর্ট

তারিখ পরিবর্তনের পর নতুন উদ্যমে রোববার সকাল থেকে শুরু হয়েছে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচারণা। চার মেয়রপ্রার্থী উত্তরে আওয়ামী লীগের আতিকুল ইসলাম ও বিএনপির তাবিথ আউয়াল এবং দক্ষিণে আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস ও বিএনপির ইশরাক হোসেন চষে বেড়িয়েছেন ঢাকার অলিগলি। দলের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে নিজ নিজ মার্কায় ভোটারদের কাছে ভোট চেয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।

আতিকুল ইসলাম: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম বলেছেন, আওয়ামী লীগ ও নৌকার ব্যাকগ্রাউন্ড লাগে না, নৌকার ব্যাকগ্রাউন্ড নৌকার গিয়ার একটিই, সেটা হচ্ছে উন্নয়নের গিয়ার, নৌকার জোয়ার। নৌকায় যদি ভোট দেন, তাহলে অবশ্যই নৌকা দেবে উন্নয়ন, নৌকা দেবে শান্তি, নৌকা দেবে শৃঙ্খলা, নৌকা দেবে দুর্নীতির বিরুদ্ধে ঘোষণা।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর কল্যাণপুরে নির্বাচনী গণসংযোগে একথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, 'আমি গত ৯ মাস দায়িত্ব পালন করেছিলাম। তখন ডিজিটাল সিটি বিনির্মাণের জন্য অনেক কিছু করেছি। অনেক কাজ দেখাতে পারিনি। আসলে ৯ মাসে কাজের ভিজিবিলিটি হয় না। তবে এই ৯ মাসের পরিকল্পনার মধ্যে ছিল কমান্ড সেন্টার। ইতোমধ্যে কমান্ড সেন্টার তৈরি করেছি। এই কমান্ড সেন্টারের মাধ্যমে ঢাকার কোথায় ময়লা পড়ে রয়েছে, পরিচ্ছন্নকর্মীরা কোথা থেকে ময়লা নেয়নি, কমান্ড সেন্টারের মাধ্যমে সে খবর চলে আসবে।'

তিনি ঢাকাকে নারীবান্ধব করার ঘোষণা দিয়ে বলেন, 'নারীবান্ধব শহর গড়তে সিসি ক্যামেরা লাগাব। সিসি ক্যামেরার টোটাল নেটওয়ার্কটা আমাদের ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কমান্ড সেন্টারের মাধ্যমে চলে আসবে।

'আলোকিত ঢাকা নির্মাণে ৪২ হাজার লাইট লাগানো হবে ঢাকা শহরে। এই লাইট লাগানোর জন্য কন্ট্রোল প্যানেলও কমান্ড সেন্টারের মাধ্যমে চলে আসবে। নিরাপদ, পরিষ্কার ও আলোকিত ঢাকা গড়তে ইতোমধ্যে আমরা কমান্ড সেন্টারের কাজ শুরু করেছি। আগামী এক বছরের মধ্যে সব চলে আসবে কমান্ডার সেন্টারের অধীনে।'

তাবিথ আউয়াল : 'সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্র রক্ষায় ১ ফেব্রম্নয়ারি ভোটের লড়াইয়ে বিজয়ী হতে হবে' বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরশনের বিএনপির মেয়রপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল।

রোববার দুপুর ১২টার সময় মিরপুর বিআরটিএ এলাকায় গণসংযোগকালে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে সকালে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ঢাকা সিটি করপোরশনের দুই মেয়রপ্রার্থীসহ দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৮৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এ শ্রদ্ধা জানানো হয়।

তাবিথ আউয়াল বলেন, 'নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণা থেকেই বিতর্ক সৃষ্টি করেছে। আমরা এখনো দেখতে চাই নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়। আমরা সেদিকে তাকিয়ে আছি।'

তিনি বলেন, 'সরস্বতী পূজা উপলক্ষে নির্বাচন দুই দিন পিছিয়ে দিয়েছে। একই সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষাও পিছিয়েছে। যে কারণে পরীক্ষার্থীরা মনঃক্ষুণ্ন হতে পারে। তাদের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি।'

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী, আকরামুল হাসান, যুবদল ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম মিল্টন প্রমুখ।

শেখ ফজলে নূর তাপস: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেছেন, 'আগামী ১ ফেব্‌রুয়ারি পর্যন্ত আমাকে সময় দিন, আমি আপনাদের আগামী ৫ বছর সময় দেব।

রোববার দুপুর দেড়টায় রাজধানীর আরামবাগ এলাকায় এক নির্বাচনী পথসভায় অংশ নিয়ে তাপস এ কথা বলেন।

সিটি নির্বাচন পেছানো প্রসঙ্গে ডিএসসিসির এ মেয়রপ্রার্থী বলেন, 'নির্বাচন কমিশন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাতে আমরা সাধুবাদ জানাই।'

শিক্ষার্থীদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে তিনি বলেন, 'এসএসসি পরীক্ষার সূচি যদি পরিবর্তন করতেই হয় তাহলে আরও আগে করলে সেটা আরও ভালো হতো। এখন সূচি পেছানোয় শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় একটু ব্যাঘাত ঘটবে। এছাড়া আমরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে যে প্রচারণা চালাচ্ছি এতেও শিক্ষার্থীদের একটু সমস্যা হচ্ছে। নির্বাচনের তারিখ না পিছিয়ে যদি এগিয়ে আনা হতো তাহলে শিক্ষার্থীদের এই সমস্যায় পড়তে হতো না।'

তিনি বলেন, 'সিটি নির্বাচনে লেভেল পেস্নয়িং ফিল্ড তৈরি হয়েছে। সবাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে নির্বাচনের প্রচারণা চালাচ্ছে। আমরা ঢাকাবাসী মানুষের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছি। অভূতপূর্ব সাড়া পাচ্ছি। আগামী ১ ফেব্রম্নয়ারি একটি সুষ্ঠু, প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে।'

পথসভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাসহ আরামবাগ, মতিঝিল, পুরানা পল্টন এলাকার স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

ইশরাক হোসেন: ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) ভোটে বিএনপি মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেন ও ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল ইসলামের নির্বাচনী পোস্টার ছেঁড়ার অভিযোগ উঠেছে।

রোববার সকালে শান্তিনগর মোড় এলাকায় ও হাবিবুলস্নাহ বাহার বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সামনে মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেন ও কাউন্সিলর প্রার্থী আশরাফুল ইসলামের পোস্টার ছেঁড়া অবস্থায় রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা যায়।

পোস্টার ছেঁড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, 'পোস্টার ছেঁড়া একটি ছোটলোকি কাজ। পোস্টার ছেঁড়ার মাধ্যমে আমাদের জনগণের মন থেকে মুছে ফেলতে পারবে না। আমরা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছি। এই নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য রাজনৈতিক দল হিসেবে আমাদের যা যা করণীয় আমরা তাই করব। আমার দৃঢ় বিশ্বাস জনগণ ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য উৎসুক হয়ে আছে। নির্বাচন কমিশন নূ্যনতম সুষ্ঠু ভোট দিতে সক্ষম হলে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত বলে আমি বিশ্বাস করি।' তিনি আরও বলেন, বিরোধীদলের প্রার্থীর পোস্টার ছেঁড়া ও তাদের নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা তৈরি করার মাধ্যমে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা লঙ্ঘন করছেন।

'এ বিষয়ে আমরা নির্বাচন কমিশনকে অবহিত করলেও তারা কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। আমি আশা করব, একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার স্বার্থে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের স্বার্থে নির্বাচন কমিশন বিষয়গুলো দেখবে।'

সাজেদুল হক রুবেল: মেয়র নির্বাচিত হলে রাজধানী দূষণে বাড়তি করের সঙ্গে কঠোর শাস্তির বিধান করতে পদক্ষেপ নেওয়ার প্রতিশ্রম্নতি দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) মেয়রপ্রার্থী আহম্মেদ সাজেদুল হক রুবেল।

তিনি বলেছেন, 'অসহনীয় যানজট, জলাবদ্ধতা, ত্রম্নটিপূর্ণ পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থার সমাধান নেই। বর্জ্য নিষ্কাশনেও চরম ব্যর্থ। মশা মারার ভুল উদ্যোগে কোটি কোটি টাকা অপচয় করেছে। এ অবস্থা থেকে ঢাকাবাসীকে মুক্ত করতে আমরা পরিকল্পিতভাবে এগোব। আমার স্বপ্ন পরিচ্ছন্ন, নিরাপদ ও বাসযোগ্য ঢাকা গড়ে তোলা।'

রোববার রাজধানীর কাফরুল, মিপুরের সেনপাড়া, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, কচুক্ষেত এলাকায় গণসংযোগের সময় তিনি ভোটারদের এই প্রতিশ্রম্নতি দেন।

রুবেল বলেন, 'মেয়র নির্বাচিত হলে রাজধানীকে নানাভাবে দূষিত করলে অধিক মাত্রায় কর ধার্য করার পাশাপাশি কঠোর শাস্তির বিধান করব।'

পথসভায় আরও বক্তব্য রাখেন সিপিবির সহসাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ জহির চন্দন, কেন্দ্রীয় নেতা আসলাম খান, যুব ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক খান আসাদুজ্জামান মাসুম, তারিক হোসেন মিঠুন, রোমান হায়দার, মোফাজ্জল হোসেন লস্কর, রিয়াজ উদ্দিন, আলী কাওসার মামুন, আসাদুজ্জামান আজীম, গৌতম রায়, মীর্জা রাসেদ সামী তানজিল। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রুবেল লড়বেন সিপিবির দলীয় প্রতীক কাস্তে নিয়ে।

কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারণা

এদিকে মেয়রপ্রার্থীদের পাশাপাশি ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থীরাও মাঠের গণসংযোগে ব্যস্ত রয়েছেন। তারা ভোটারদের কাছে গিয়ে নিজ নিজ প্রতীকে ভোট চাচ্ছেন। ভোটারদের যথেষ্ট সাড়াও পাচ্ছেন। ব্যাপক উৎসাহের সঙ্গে নেতাকর্মীরা নির্বাচনী প্রচারণায় রয়েছেন। ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত প্রার্থীদের অভিযোগ না থাকলেও বাধা, পোস্টার চুরিসহ না অভিযোগ রয়েছে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের।

রোববার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে ১০ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী মাসুদ খানের প্রচারে প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী আবু তাহেরের লোকজন বাধা দেয়। মাসুদ খান জানান, সকালের বাইদারটেক এলাকায় গণসংযোগের সময় তার কর্মীদের বাধা দেয়ার পাশাপাশি কয়েকজনের হাত থেকে লিফিলেট ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয় প্রতিপক্ষের ক্যাডাররা। বাধায় তার কর্মী আইনাল ও তার স্ত্রী আহত হন। তাদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

নর্দা বাজার, নর্দা বাসস্ট্যান্ড ও সরকার বাড়ি এলাকায় গণসংযোগ চালিয়েছেন, ডিএনসিসির ১৮ নং ওয়ার্ড এ বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী শরিফউদ্দিন জুয়েল। তিনি জানান, সকাল থেকেই শান্তিপূর্ণভাবে নিজ প্রতীক বেডমিন্টন মার্কায় ভোট চেয়েছেন তিনি। ভোটারদেও ব্যাপক সাড়াও পাচ্ছেন। ডিএনসিসির ৩৪নং ওয়ার্ড এ কাউন্সিলর প্রার্থী অ্যাডভোকেট মাসুম খান রাজেশ স্থানীয় সাদেক খান রোড, নেকাপখান সড়ক, হাসেম খান রোড, দেশনেত্রী সোসাইটি (আংশিক) ও সৈকত হাউজিং এলাকা ঠেলাগাড়ি প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। তিনি জানান, নির্ভিঘ্নে ভোট চাইতে পারছেন, কোনো সমস্যা হচ্ছে না। জনগণের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন। ভোটাররা ভোট দিতে পারলে জয়ী হবেন।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশ নির্বাচনে (ডিএনসিসি) ৩১ নং ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী সাজেদুল হক খান রনি স্থানীয় জাকির হোসেন রোডে গণসংযোগ চালিয়েছেন। এ সময় তিনি এয়ারকন্ডিশন মার্কার ভোট চান। মিরপুর বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের পেছনের এলাকা, এডিসি ক্যাম্প ও ১১ নং সেকশনের এ বস্নকে গণসংযোগ চালিয়েছেন ডিএনসিসির ৫নং ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন।

ডিএনসিসির ৬নং ওয়ার্ডের সেকশন ৬, ৭ ইস্টার্নহাউজিং, বর্ধিত পলস্নাবী এবং রূপনগর এলাকায় গণসংযোগ চালিয়েছেন, বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী মাহফুজ হোসাইন খান সুমন। প্রচারণায় বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন ফারুক, বিএনপির ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলামসহ কেন্দ্রীয় নেতারা অংশ নেন। কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা এসময় ধানের শীষ ও বেডমিন্টন মার্কায় ভোট চান। পূর্ব ও পাশ্চিত নাখাল পাড়া এলাকার সমিতি বাজার, বনফুল এলাকায় বিকেলে গণসংযোগ চালিয়েছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ২৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী সাইফুল ইসলাম কাজল। এসময় তিনি লাটিম প্রতীকের ভোট চান। গণসংযোগকালে এলকাবাসীর ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন বলেও জানান তিনি। ৪৭ নং ওয়ার্ডে বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী মোতালেব হোসেন রতন এবং ১৬ নং ওয়ার্ডে হাবিবুর রহমান রাব্বি নিজেদের প্রতিক নিয়ে প্রচারনা চালান। অন্যদিকে দক্ষিণের ৬০ নং ওয়ার্ডে জাহাঙ্গীর মেম্বার তার প্রতীক টিফিন ক্যারিয়ার নিয়ে ওয়ার্ডের বিভিন্ন সড়কে প্রচারণা চালান। ৬১, ৬২ ও ৬৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড কমিশনার সালেহা বেগম ঘুড়ি প্রতিক নিয়ে প্রচারনা চালান। বিভিন্ন সড়কে ভোট চেয়ে এলাকার উন্নয়নে সুযোগ দেয়ার আবেদন করেন এবং দোয়া চান।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে