শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

হালাল উপার্জনের চেষ্টা করা ফরজের পর আরেকটি ফরজ

যাযাদি ডেস্ক
  ০২ মার্চ ২০২৩, ১০:১৩
ফাইল ছবি

মহানবী সা: বলেন, ‘হালাল উপার্জনের চেষ্টা করা ফরজের পর আরেকটি ফরজ’। (বাইহাকি-১১৪৭৫) তিনি আরো বলেন, ‘হে লোক সকল! আল্লাহ তায়ালা পবিত্র, তিনি পবিত্র ও হালাল বস্তু ছাড়া গ্রহণ করেন না।’ (মুসলিম-২৩৯৩)

হালাল শব্দটি আরবি শব্দ, যার আভিধানিক অর্থ বৈধ, বিধিসম্মত, ন্যায্য, পবিত্র প্রভৃতি। এর বিপরীত হারাম। পারিভাষিক অর্থ- যা শরিয়ত কর্তৃক অনুমোদিত বা বৈধ তাকে হালাল বলে। সুতরাং ইসলামী শরিয়ত কর্তৃক অনুমোদিত পন্থায় আয়-রোজগার করাকে হালাল উপার্জন বলে।

হালাল উপার্জনের গুরুত্ব দিয়ে মহান আল্লাহ বলেন- ‘হে মানবমণ্ডলী, পৃথিবীর হালাল ও পবিত্র বস্তু সামগ্রী ভক্ষণ করো। আর শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না। নিঃসন্দেহে সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু।’ (সূরা বাকারা-১৬৮) এখান থেকে বোঝা যায়, হালাল খাদ্য ভক্ষণ, উপার্জন সবই ফরজ। পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহ আরো বলেন- ‘অতঃপর যখন সালাত সমাপ্ত হয় তখন তোমরা জমিনে ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ (রিজিক) অন্বেষণ করো।’ (সূরা জুমুআহ-১০) এখানে অন্বেষণ বলতে হালাল রুজি অন্বেষণের কথা বলা হয়েছে।

নিজ হাতে উপার্জিত হালাল রিজিক সর্বোত্তম রিজিক। মহানবী সা: বলেন, ‘আল্লাহর নবী দাউদ আ: নিজ হাতের উপার্জন থেকেই ভক্ষণ করতেন’। (বুখারি-১৯৬৬) নিম্নে হালাল রিজিক উপার্জনের বিষয় নিয়ে একটু আলোচনা করা হলো- শ্রম বিক্রি : নিজের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান ছাড়া প্রত্যেক শ্রমজীবীই শ্রমের বিনিময়ে রিজিক উপার্জন করে, চাই সেটি সরকারি হোক কিংবা বেসরকারি। একজন শ্রমিককে তার শ্রম বিনিময়ের আগে মালিকপক্ষ শ্রমের ধরন, সময় ঠিকঠাক করে তার সম্মতিতে শ্রমের মূল্য নির্ধারণ করে থাকে। সুতরাং কেউ যদি স্বেচ্ছায় তার শ্রমের ৪০-৫০ শতাংশ শ্রম বিনিয়োগ করে শতভাগ পারিশ্রমিক নেয় তাহলে এখানে তার কতটুকু আয় অবৈধ তা সহজে হিসাবযোগ্য। এভাবে সব পেশার নিম্ন শ্রেণী থেকে শুরু করে উচ্চ শ্রেণী পর্যন্ত স্বেচ্ছায় যে যতটুকু শ্রম বা কাজে ফাঁকি দেবে তার আয় ততটুকু হারাম বা অবৈধ হবে, এতে কোনো সন্দেহ নেই। এ ক্ষেত্রে ইসলামের বিধান হলো- একান্ত ওজর ছাড়া প্রত্যেক মজুর শতভাগ শ্রম দিয়ে তার আয়কে বৈধ করবে। আর এটিই হলো মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে ফরজ।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে