বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১

ভেজানো কিশমিশ খেলে মিলবে যেসব উপকার

যাযাদি ডেস্ক
  ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ২১:০৬

কিশমিশ যেমন বিভিন্ন ধরনের খাবারের স্বাদ বাড়ানোর জন্য সাহায্য করে তেমনই কিশমিশের রয়েছে অসংখ্য স্বাস্থ্য উপকারিতা। বিশেষ করে কিশমিশ ভেজানো পানি শরীরকে বিভিন্ন রোগ থেকে দূরে রাখে।

  • অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ

কিশমিশ ভেজানো পানিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা আমাদের শরীরের বিভিন্ন কোষকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে।

  • ফাইবারসমৃদ্ধ

কিশমিশে থাকা ফাইবার পরিপাকে সহায়তা করে এবং হজমশক্তি বাড়ায়। সঙ্গে কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর করে।

  • ইমিউনিটি বাড়ায়

ভেজানো কিশমিশে থাকা ভিটামিন, মিনারেলস ও আয়রন শরীরে ইমিউনিটি বাড়ায়। ফলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

  • শক্তি সঞ্চারণে সহায়ক

কিশমিশে থাকা প্রাকৃতিক সুগার শরীরে তৎক্ষণাৎ শক্তি সঞ্চারণ করে। দুর্বলতা কমায়।

  • হৃদরোগজনিত সমস্যা কমায়

কিশমিশ ভেজানো পানিতে রয়েছে পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়াম, যা উচ্চ রক্তচাপ কমাতে ব্যাপক কার্যকর। ফলে হৃদরোগতজনিত রোগের ঝুঁকি অনেকাংশে কমে।

  • হাড়ের সমস্যাজনিত রোগে কার্যকর

কিশমিশে থাকা ক্যালসিয়াম হাড়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। এ ছাড়া অস্টিওপোরোসিসের মতো রোগের ঝুঁকি কমায়।

  • তারুণ্য ধরে রাখে

কিশমিশে থাকা ভিটামিন ‘সি’ ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরে কোলাজেন উৎপাদনে সহায়তা করে, যা ত্বককে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে এবং তারুণ্য ধরে রাখে।

  • রক্তশূন্যতা কমায়

ভেজানো কিশমিশে থাকা আয়রন রক্তের হিমোগ্লোবিন বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে শরীরে রক্তশূন্যতা কমে।

  • ওজন হ্রাসে সাহায্য করে

ভেজানো কিশমিশে রয়েছে ফাইবার ও স্বল্প পরিমাণে ক্যালরি, যা ঘন ঘন ক্ষুধার প্রবণতা কমিয়ে ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

ভেজানো কিশমিশ যেভাবে খাদ্যতালিকায় রাখবেন

প্রতিদিন রাতে এক গ্লাস পানিতে ৮ থেকে ১০টা কিশমিশ ভিজিয়ে রাখতে হবে। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর খালি পেটে এই পানি খেলে সবচেয়ে ভালো উপকার পাওয়া যাবে।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

যাযাদি/ এম

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে