মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

এবার ১১ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনে নজর বিএনপির 

হাসান মোল্লা
  ১৬ মার্চ ২০২৪, ০৯:৫৮
আপডেট  : ১৬ মার্চ ২০২৪, ১০:০৯
এবার ১১ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনে নজর বিএনপির 

নির্বাচন ঘিরে আন্দোলন ব্যর্থতার কারণে দল পুনর্গঠনে জোর দিয়েছে বিএনপি। এর অংশ হিসেবে দলটির নজর এখন ১১ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনে। এরমধ্যে সম্প্রতি ছাত্রদলের নতুন কমিটি ঘোষনণা করা হয়েছে। আর ৭টি সংগঠনের কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ। একটির কমিটিই নেই। এরপরেও এসব কমিটি পুনর্গঠনে তেমন তৎপরতা নেই। তবে যুব ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি থাকলেও এই দুটি সংগঠন পুনর্গঠন নিয়ে চলছে বেশি তোড়জোড়।

ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, শ্রমিক দল, মুক্তিযোদ্ধা দল, কৃষক দল, মহিলা দল, তাঁতী দল, মৎস্যজীবী দল, জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাস ও ওলামা দল। এই ১১টি বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। এর মধ্যে শ্রমিক দল, মুক্তিযোদ্ধা দল, কৃষক দল, মহিলা দল, তাঁতী দল, মৎস্যজীবী দল, জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাসের মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক আগে। ওলামা দলের কমিটি ভেঙ্গে দেওয়া হলেও খবর নেই নতুন কমিটির। যুবদল আর স্বেচ্ছাসেবক দলের বর্তমান কমিটির মেয়াদ এখনো রয়েছে। তবে যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি গঠনের জোর গুঞ্জন চলছে।

যুবদল : ২০২২ সালের ২৮ মে সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুকে সভাপতি এবং মোনায়েম মুন্নাকে সাধারণ সম্পাদক করে যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়। তিন বছরমেয়াদি এই কমিটির মেয়াদ এক বছর বাকি থাকতেই নতুন কমিটি গঠনের গুঞ্জন শুরু হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট নিজেদের প্রভাব বৃদ্ধি করতে এই সংগঠনকে নিজেদের আয়ত্তে আনার চেষ্টা করছে। এর অংশ হিসেবে কমিটি ভাঙ্গার চেষ্টা করছেন। তবে মেয়াদ থাকার পরেও নতুন কমিটি গঠন অনেকেই মানতে চাচ্ছে না। কারণ, বিগত আন্দোলনে এই অঙ্গ দলের নেতাকর্মীরাই সবচেয়ে নির্যাতনে শিকার হয়েছেন। আড়াই মাসের আন্দোলনে সংগঠনের অনেক নেতাকর্মীকে কারাগারে যেতে হয়েছে। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোনায়েম মুন্না ছিলেন কারাগারে। সভাপতি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু দলের পক্ষে আন্দোলন সমন্বয় করেছেন। টুকুর বিরুদ্ধে তিন শতাধিক মামলা ছাড়াও গত বছরের শেষের দিকে তিন রাজনৈতিক মামলায় আট বছরের সাজা ঘোষণা করেন আদালত। এছাড়া সহ-সভাপতি নূরুল ইসলাম নয়ন, মাহবুবুল হাসান ভুইয়া পিংকুসহ পুরো কেন্দ্রীয় কমিটি মাঠে তৎপর ছিলেন বিগত দিনে। এরপরেও এখনই এই কমিটি ভেঙ্গে দেওয়ার তৎপরতা অনেকেই মেনে নিতে চাচ্ছেনা।

স্বেচ্ছাসেবক দল : ২০২২ সালের ৪ সেপ্টেম্বর এসএম জিলানীকে সভাপতি এবং রাজীব আহসানকে সাধারণ সম্পাদক করে এই সংগঠনের সুপার ফাইভ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকে সারাদেশে পরিচ্ছন্ন ও নিখুঁতভাবে বিভিন্ন জেলা ও মহানগর ইউনিট কমিটি গঠনে কাজ করেন সংগঠনের নেতারা। গঠন করা হয় কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি। তিন বছর মেয়াদি এই সংগঠনের মেয়াদ দেড় বছর থাকতেই শুরু হয়েছে নতুন কমিটি গঠনের আলোচনা।

জানা গেছে, গত ২৮ অক্টোবর ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশে পুলিশের গুলিতে আহত হন এসএম জিলানী। সাধারণ সম্পাদক রাজীব আহসানের বিরুদ্ধে মামলার পাহাড়। সিনিয়র সহ-সভাপতি ইয়াছিন আলী ও সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল হাসানসহ পুরো কেন্দ্রীয় কমিটি নিয়মিতভাবেই রাজপথে মিছিল-মিটিং করেছেন আন্দোলনকালীন সময়ে। এরপরেও এই কমিটিকেও ভাঙ্গার প্রক্রিয়া নিয়ে অনেকে অসন্তুষ্ট।

মুক্তিযোদ্ধা দল : ২০১৩ সালের ২৪ নভেম্বর ইশতিয়াক আজীজ উলফাতকে সভাপতি এবং শফীউজ্জামান খোকনকে সাধারণ সম্পাদক করে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের কমিটি ঘোষণা করা হয়। পর এক নেতার এক পদ নীতিতে শফীউজ্জামান খোকন মুক্তিযোদ্ধা দল থেকে পদত্যাগ করায় ২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর সাদেক আহমেদ খানকে মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারণ সম্পাদক করা হয়। সংগঠনের মেয়াদ শেষ হলেও নেতারা প্রত্যেক কর্মসূচিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। তবে দিন দিন মুক্তিযোদ্ধারা বয়োবৃদ্ধ হয়ে পড়ায় এবং মৃত্যুবরণ করায় নেতাকর্মীর সংখ্য কমে যাচ্ছে। সেখানে মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম দল নামের একটি সংগঠন আবির্ভূত হলেও সেটার গুরুত্ব নেই দলে।

শ্রমিক দল : ২০১৪ সালের ১৯ ও ২০ এপ্রিল জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের জাতীয় কাউন্সিল হয়। সম্মেলনের প্রায় ১৫ দিন পর ৫ মে আনোয়ার হোসাইনকে সভাপতি এবং নরুল ইসলাম খান নাসিমকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩৪ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করা হয়। নুরুল ইসলাম খান নাসিম অনেক বছর ধরেই শয্যাশায়ী। সংগঠনের প্রচার সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জুকেই সংগঠনের মূল ভূমিকায় থাকতে হচ্ছে কয়েক বছর ধরে। বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ এই সহযোগী সংগঠন শ্রমিক দলের মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক বছর আগে। নতুন কমিটি গঠনের জন্য বিভিন্ন সময়ে দাবি উঠলেও এখন পর্যন্ত তা আমলে নেওয়া হয়নি। যদিও ঝিমিয়ে পড়া এই সংগঠনকে আরও সক্রিয় করতে কাজ করছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী ও প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস। তার নেতৃত্বেই গত বছর বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের ব্যানারে শ্রমিক কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয়।

কৃষক দল : ২০২১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিনকে সভাপতি ও শহীদুল ইসলাম বাবুলকে সাধারণ সম্পাদক করে জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়। ২৭ বছর পর কৃষক দলের এই কমিটি গঠনের পর সংগঠনে নতুন করে প্রাণ সঞ্চার ঘটে। সভা-সমাবেশে এই সংগঠনের ব্যানারে নেতাকর্মীদের শোডাউন, শীর্ষ দুই নেতার ভূমিকা মিলিয়ে কৃষক দল আগের চেয়ে অনেক উজ্জীবিত। দুই বছর মেয়াদি এই কমিটির মেয়াদও শেষ হয়েছে। এখন নতুন কমিটির অপেক্ষায় সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

ওলামা দল : ২০১৯ সালের ৫ এপ্রিল অধ্যক্ষ মাওলানা শাহ মো. নেছারুল হককে আহ্বায়ক এবং অধ্যক্ষ মাওলানা মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারকে সদস্য সচিব করে ১৭১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির ঘোষণা করে বিএনপি। কিন্তু আভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে এই বছরের ১ ফেব্রুয়ারি ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে এই আহ্বায়ক কমিটি। নতুন কোনো কমিটি এখনো ঘোষণা করা হয়নি। কেন্দ্রের পক্ষপাতিত্ব আর কোন্দলে উসকে দেওয়ার ঘটনায় এই সংগঠনকেও শক্তিশালী করা যায়নি বিগত দিনে। শুধুমাত্র মিলাদ মাহফিলের মধ্যেই সীমাবদ্ধা রাখা হয়েছে এই সংগঠনকে।

মহিলা দল : ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর আফরোজা আব্বাসকে সভাপতি ও সুলতানা আহমেদকে সাধারণ সম্পাদক করে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। প্রায় তিন বছর পর ২০১৯ সালের ৪ এপ্রিল ২৬৫ সদস্যের মহিলা দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয় বিএনপি। সকল নিয়মেই এই সংগঠনের মেয়াদ শেষ হলেও খোঁজ নেই নতুন কমিটির।

জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাস: ২০২১ সালের ৬ নভেম্বর হেলাল খানকে আহ্বায়ক ও জাকির হোসেনকে সদস্যসচিব করে জাসাস কমিটি গঠন করা হয়। এই সংগঠনের একসময়ের হেভিওয়েট নেতাদের নেতৃত্ব পরিচালিত হতো। কিন্তু এখন অপেক্ষাকৃত কম পরিচিত, অসাংগঠনিকের হাতে নেতৃত্ব দেওয়ায় আন্দোলন সংগ্রামে কোনো ভূমিকাই রাখতে পারেনি এই সংগঠন।

তাঁতী দল : ২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল আবুল কালাম আজাদকে আহ্বায়ক ও মজিবুর রহমানকে সদস্য সচিব করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। সর্বশেষ ২০০৮ সালে গঠিত কমিটির সভাপতি ছিলেন হুমায়ুন ইসলাম খান ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। তাঁত শিল্প প্রধান এলাকা নরসিংদী, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জসহ অন্যান্য জেলাতে এই সংগঠনের বিস্তৃতি ঘটাতেও ব্যর্থ হয়েছে তাঁতী দলের নেতারা। কোথাও নেই সংগঠনের অস্তিত্ব ।

মৎস্যজীবী দল : ২০১৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম মাহতাবকে আহবায়ক এবং সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুর রহিমকে সদস্য সচিব করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। আভ্যন্তরীণ কোন্দল আর কেন্দ্রের প্রভাব বিস্তারের ঘটনায় এই সংগঠনকে শক্তিশালী ভূমিকায় দেখা যায়নি বিগত দিনে।

ছাত্রদল : বিএনপির আন্দোলন সফলের হাতিয়ার হিসেবে পরিচিত ছাত্রদল। কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগেই গত ১ মার্চ রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে সভাপতি ও নাছির উদ্দীন নাছিরকে সাধারণ সম্পাদক করে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের ৭ সদস্যের নতুন আংশিক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

অঙ্গ সংগঠনের পুনর্গঠন প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, একটি রাজনৈতিক দলের স্বাভাবিক কাজের অংশ হিসেবে কমিটি গঠন, পুনর্গঠন কাজ হয়। সেখানে যারা যোগ্য ও ত্যাগী তাদেরকেই মূল্যায়ন করা হয়। বিগত সময়ের মতো ভবিষ্যতেও বিএনপি রুটিন কাজের অংশ হিসেবে প্রয়োজন অনুযায়ী দল পুনর্গঠন করবে।

যাযাদি

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে