সাকিব-তাসকিনকে টাইগারদের নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা

সাকিব-তাসকিনকে টাইগারদের নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা

ইনজুরির কারণে চট্টগ্রাম টেস্টে ছিলেন না সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল ও তাসকিন আহমেদ। তার পরও সাগরিকায় শক্তিশালী পাকিস্তানের বিপক্ষে ভালোই লড়েছে মুমিনুল হকের দল। কিন্তু জয়ের স্বস্তি ধরা দেয়নি। তামিম ইকবালকে নিউজিল্যান্ড সফরেও পাওয়া যাবে না। তবে আশার কথা ইনজুরি কাটিয়ে ঢাকায় দ্বিতীয় টেস্টের দলে ফিরেছেন সাকিব ও তাসকিন।

হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি কাটিয়ে গত কয়েকদিন ধরে মিরপুরে অনুশীলন করছেন সাকিব। গতকালও (১ ডিসেম্বর) ব্যাটিং-বোলিংয়ে ঘাম ঝরিয়েছেন বাঁহাতি এ অলরাউন্ডার। নতুন বলে তাসকিনের সার্ভিস ও সাকিবের অলরাউন্ডিং নৈপুণ্যের দিকেই তাকিয়ে আছে বাংলাদেশ শিবির। দুই গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারকে নিয়ে পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা করছে স্বাগতিকরা।

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় ফিরে গতকাল এমনটাই বলেছেন ফিল্ডিং কোচ মিজানুর রহমান বাবুল। চার্টার্ড ফ্লাইটে গতকাল বিকেলে ঢাকায় এসেছে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান দল।

এদিকে, টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হয়ে দ্বিতীয় টেস্টের দল থেকে ছিটকে পড়েছেন সাইফ হাসান। এরই মধ্যে টিম হোটেল ত্যাগ করেছেন তিনি। জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। টি-টোয়েন্টির পর টেস্টেও ব্যর্থ ছিলেন সাইফ। দুই ইনিংসেই শাহীন আফ্রিদির বাউন্সারে ক্যাচ দিয়েছেন। একাদশ থেকে তার বাদ পড়াটা প্রায় নিশ্চিতই ছিল।

সাকিব-তাসকিনকে পেয়ে উজ্জীবিত বাংলাদেশ দল। যদিও ঢাকায় তাসকিনের খেলার সম্ভাবনা কম। গতকাল ফিল্ডিং কোচের আশা, এবার বোলিংটা শক্তিশালী হবে। বাবুল বলেছেন, ‘সাকিব ও তাসকিনের অন্তর্ভুক্তি অবশ্যই ইতিবাচক দিক। দুজনই আমাদের দলের জন্য বিশ্বমানের খেলোয়াড়। নতুন বলে যদি বলি, এবাদত ভালো করছে, পাশাপাশি তাসকিন যদি খেলে, তাহলে নতুন বলের জুটিটা খুব ভালো হবে। পাশাপাশি সাকিব এসেছে, তাইজুল ও মিরাজের ওপর যে দায়িত্বটা থাকে, সেটা সাকিবও ভাগাভাগি করে নিতে পারবে। তাই বোলিং ইউনিট আমাদের খুবই ভালো হবে।’

টানা পরাজয়ের কারণে ক্রিকেটাররা মানসিকভাবে ভালো অবস্থানে নেই। একটা জয় দলকে চাঙা করতে পারে। সাইফ হাসান ছিটকে পড়ায় দ্বিতীয় টেস্টে ওপেনিংয়ে পরিবর্তন আসছে। সাদমানের সঙ্গে মাহমুদুল হাসান জয় ও নাঈম শেখের মাঝে একজনের টেস্ট অভিষেক হয়ে যেতে পারে। এক্ষেত্রে এগিয়ে আছেন জয়।

বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল দুর্দান্ত বোলিং করেছেন চট্টগ্রামে। সাকিব যুক্ত হলে স্পিন বিভাগ আরও শক্তিশালী হবে। পেস বোলিংয়ে এবাদতই কিছুটা উন্নতির ছাপ রেখেছেন। রাহী ছিলেন বিবর্ণ। তাই পেস আক্রমণে পরিবর্তনও আবশ্যক।

যাযাদি/এসএইচ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে