বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

শাহরুখের ঘরে টাকার বস্তা, আইপিলে অর্থের ঝনঝনানি

যাযাদি ডেস্ক
  ২৭ মে ২০২৪, ১১:২২
ছবি-সংগৃহিত

এক খেলাতেই অনেক খেলোয়াড় রাতারাতি কয়েক কোটি টাকার মালিক হয়ে গেলেন। আর ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকরা টাকার বস্তা নিয়ে ঘরে ফিরলেন। বিশেষ করে কলকাতার মালিক বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। তিনি লাভের ওপর লাভ করলেন এবার। ১০ বছরে অপেক্ষার শেষে অপেক্ষার বাঁধ ভেঙে অবশেষে উচ্ছ্বাসে মাতোয়ারা কলকাতা।

বিষন্নতা ফুরালো তাদের, ঘটলো এক দশক ধরে চলা হাহাকারের ইতি। ফের আইপিএলের শ্রেষ্ঠত্ব ওপার বাংলার দলটার, চ্যাম্পিয়ন তকমা করেছে পুনরুদ্ধার। চুমু এঁকেছে শিরোপায়। শিরোপা জেতে বেশ বড় অঙ্কের পুরস্কারই পকেটে পুরেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। চ্যাম্পিয়ন প্রাইজমানি তো বটেই, ব্যক্তিগতভাবে একাধিক পুরস্কার জিতেছেন কলকাতার ক্রিকেটাররা। বলা যায় পয়সা উসুল একটা আসর কাটিয়ে বেগুনি জার্সিধারীরা।

জানা যায়, আইপিএল মানেই টাকার ছড়াছড়ি। অর্থের ঝনঝনানিতে এই আসর নজর কাড়ে সবার। টাকার পাহাড় নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকরা। ক্রিকেটাররাও পকেটে ভরেন প্রত্যাশার চেয়ে বেশিই অর্থ। প্রাইজমানিতেও যার প্রভাব দেখা যায়।

এবারের আইপিএলে মোট ৪৬.৫ কোটি রূপির প্রাইজমানি দেয়া হয়েছে। যা ফাইনাল ম্যাচের পর বিতরণ করা হয়। যেখানে শিরোপা জেতা কলকাতা পেয়েছে ২০ কোটি রূপি। বাংলাদেশী টাকায় যা প্রায় ২৮ কোটি টাকা। আর রানার্সআপ দল পেয়েছে ১২.৫ কোটি রূপি। ২০২৩ সালের আইপিএলেও একই প্রাইজমানি ছিল।

এছাড়াও তৃতীয়স্থানে থেকে আইপিএল শেষ করা রাজস্থান রয়্যালস ৭ কোটি রূপি এবং চতুর্থস্থানে থাকা রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু পুরস্কার পেয়েছে ৬.৫ কোটি রূপি।

এবারের আইপিএল সেরার পুরষ্কার জিতেছেন সুনিল নারিন। একই সাথে তিনি ফ্যান্টাসি ইলাভেন বেস্ট প্লেয়ার অ্যাওয়ার্ডও পেয়েছেন। দুই পুরস্কারের সুবাদে নারিন পেয়েছেন মোট ২০ লাখ রুপি। এবারের আসরে ৪৮৮ রানের পাশাপাশি ১৭ উইকেট নেন নারিন।

তাছাড়া ফাইনালে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতা মিচেল স্টার্ক পান ৬ লাখ রূপি পুরস্কার। তাছাড়া সবচেয়ে বেশি ডট বলের জন্য হার্ষিত রানা, ফাইনালে সবচেয়ে বেশি চারের জন্য রহমানউল্লাহ গুরবাজ ও সবচেয়ে বেশি ছক্কার জন্য ভেঙ্কটেশ আইয়ারও পেয়েছেন ১ লাখ রুপি করে।

পুরস্কারের দৌড়ে হায়দ্রাবাদও পিছিয়ে নেই। রানার আপ প্রাইজমানির সাথে ফেয়ার প্লে অ্যাওয়ার্ড জিতেছে হায়দরাবাদ। দল হিসেবে তারা পেয়েছে ১০ লাখ রুপি। আর বর্ষসেরা উদীয়মান খেলোয়াড় হয়েছেন তাদের ব্যাটার নিতিশ কুমার রেড্ডি। তাকেও ১০ লাখ রুপির পুরস্কার দেয়া হয়।

তাছাড়া পুরস্কার পেয়েছেন হায়দরাবাদের দুই ওপেনার অভিষেক শর্মা ও ট্রাভিস হেড। দু’জনেই পেয়েছেন দশ লাখ রুপির চেক। ট্রাভিস হেড আসরে সবচেয়ে বেশি চার মেরেছিলেন। আর অভিষেকের ব্যাট থেকে এসেছিল সবচেয়ে বেশি ছয়ের মার।

শুধু তাই নয়, সেরা পিচ ও গ্রাউন্ড বানিয়েছে হায়দরাবাদ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন জিতে নিয়েছে ৫০ লাখ রুপি পুরস্কার।

তাছাড়া ৭৪১ রান করে টুর্নামেন্টের শীর্ষ রানসংগ্রাহক বিরাট কোহলি অরেঞ্জ ক্যাপ নিজের করে নিয়েছেন। পাশাপাশি তার ঝুলিতে গেছে ১০ লাখ রুপি। ২৪ উইকেট নিয়ে পাঞ্জাব কিংসের বোলার হার্শাল প্যাটেল জিতেছেন পার্পল ক্যাপ। তাকেও দেয়া হয়েছে দশ লাখ রূপি।

অন্যদিকে আসরের সেরা ক্যাচের জন্য রামানদ্বীপ সিং, বেস্ট স্ট্রাইকরেটের জন্য দিল্লি ক্যাপিটালসের জ্যাক ফ্রেজার ম্যাকগার্কও পেয়েছেন ১০ লাখ রুপির পুরস্কার।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে