ঝিনাইদহে ট্রাকচাপায় প্রাণ হারালেন ৭ ইমারত শ্রমিক পাঁচ জেলার সড়কে আরও ছয়জনের মৃতু্য

ঝিনাইদহে ট্রাকচাপায় প্রাণ হারালেন ৭ ইমারত শ্রমিক পাঁচ জেলার সড়কে আরও ছয়জনের মৃতু্য

পরিবারকে অভাব-অনটন থেকে মুক্তি দিতে সারাদিন ভবন নির্মাণকাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন ১৩ জন ইমারত শ্রমিক। কিন্তু ফেরা হলো না তাদের। পথে অজ্ঞাত ট্রাকের ধাক্কায় তাদের বহনকারী নসিমনটি উল্টে গিয়ে প্রাণ হারান ৭ ইমারত শ্রমিক। বাকি ৬ জন গুরুতর আহত হয়ে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বুধবার সন্ধ্যায় ঝিনাইদহের শৈলকুপায় এ ঘটনা ঘটে।

আমাদের কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি জানান, জেলার শৈলকুপায় ট্রাক ও ইঞ্জিনচালিত নসিমনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ৭ ইমারত শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও ছয়জন। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার ১নং ত্রিবেণী ইউনিয়নের মদনডাঙ্গা বাজারের শ্রীরামপুর বাসস্ট্যান্ডে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। হতাহত সবাই রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। তাদের বাড়ি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার কল্যাণপুর এলাকার বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। তবে স্থানীয়রা বলছেন, হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

খবর পেয়ে ঝিনাইদহ ও শৈলকুপা ফায়ার সার্ভিস এবং পুলিশ সুপারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী নাজমুল হাসান সাগর নামের এক

স্কুল শিক্ষক জানান, সন্ধ্যায় কাজ শেষে একটি ইঞ্জিনচালিত নসিমনে তাদের খোয়া, বালি ও সিমেন্ট মিক্সার মেশিন তুলে ১৩ শ্রমিক গাদাগাদি করে উঠে ঝিনাইদহের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে মদনডাঙ্গা বাজারে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা দ্রম্নতগতির একটি ট্রাক তাদের চাপা দিয়ে নিজেও পাশের খাদে পড়ে যায়। এ সময় বিকট শব্দ হলে আশপাশের লোকজন আতঙ্কিত হয়ে দ্রম্নত ঘটনাস্থলে এসে দেখতে পান যাত্রীরা ছিন্নভিন্ন হয়ে যেখানে সেখানে পড়ে আছেন। অনেকের শরীর থেকে হাত পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ফলে অনেককে চেনার উপায় ছিল না। খবর পেয়ে শৈলকুপা দমকল বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত শৈলকুপা থানার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, 'আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছি।' তবে নিহতের সংখ্যা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি।

এদিকে ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক শামীমুল ইসলাম নিহতের সংখ্যা ছয়জন বলে জানিয়েছেন।

এদিকে রংপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন বাসের একজন সুপারভাইজার। গোপালগঞ্জে পিকআপের চাপায় নিহত হয়েছেন এক নারী। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ইজিবাইকের চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে দুই সন্তানের জননী, জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বাসচাপায় চাচা-ভাতিজা, সিলেটের বিশ্বনাথে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও যাত্রীবাহী বাসের সংঘর্ষে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুজন।

আমাদের রংপুর প্রতিনিধি জানান, জেলার তারাগঞ্জে বাস দুর্ঘটনায় সুপারভাইজার রেজাউল করিম (৫০) মারা গেছেন। এ সময় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৮ যাত্রী। বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কে তারাগঞ্জের হরিরামপুরের কাজী ফার্মসংলগ্ন এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত রেজাউল রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট এলাকার বাসিন্দা।

তারাগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা মিথিলা পরিবহণের বাসটি ঘটনাস্থলে ওভারটেক করার সময় একটি ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই বাসের সুপারভাইজার রেজাউল মারা যান। আহতদের উদ্ধার করে তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেস্নক্স ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আমাদের গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, গোপালগঞ্জে পিকআপের চাপায় জরিনা বেগম (৫৫) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। বুধবার বিকালে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার নিমতলা এলাকায় রাস্তা পারাপারের সময় জেলা সদরের দিকে আসা একটি পিকআপ ওই নারীকে চাপা দিয়ে রাস্তার পাশের খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ওই নারী নিহত এবং গাড়িচালক আহত হন। নিহত নারী সদর উপজেলার জগারচর গ্রামের ইনু খাঁর স্ত্রী।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি জানিয়েছেন, শ্রীনগরে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের চাকার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ডালিয়া বেগম (৩৫) নামে এক গৃহবধূর মৃতু্য হয়েছে। বুধবার বিকাল ৫টার দিকে শ্রীনগর-মুন্সীগঞ্জ সড়কের উপজেলার নন্দিপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। ডালিয়া উপজেলার তন্তর ইউনিয়নের সোন্ধারদিয়া গ্রামের জামাল খাঁনের স্ত্রী ও ২ সন্তানের জননী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বিকালে ডালিয়া বেগম তার বাবার বাড়ি পাটাভোগ থেকে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে করে সোন্ধারদিয়া স্বামীর বাড়ি ফিরছিলেন। পথে ইজিবাইকের চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃতু্য হয়।

এ ব্যাপারে শ্রীনগর থানার ওসি হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা জানান, আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গৃহবধূর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি জানান, জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বাস চাপায় একই পরিবারের ২ জন নিহত হয়েছেন। এরা হলেন- চাচা সাইদুর রহমান (২২) ও ভাতিজা আকাশ মিয়া (১৪)। তাদের বাড়ি উপজেলার কামরাবাদ ইউনিয়নের চরবড়বাড়ীয়া গ্রামে। বুধবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে পপুলার ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকালে চাচা ভাতিজা মোটরসাইকেলে জামালপুর সদর উপজেলার হাজিপুরে যাচ্ছিলেন। পথে পৌর এলাকার পপুলার ব্রিজের দক্ষিণ পাশে সড়কে একটি ট্রাককে অতিক্রম করার সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি বাসের চাকায় চাপা পড়েন তারা। এতে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃতু্য হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মস্তকবিহীন সাইদুর রহমান ও ভাতিজা আকাশ মিয়ার লাশ উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী থানার ওসি আবু মো. ফজলুল করিম জানান, দুজনের লাশ উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সিলেটের বিশ্বনাথ-রামপাশা সড়কে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও মিনিবাস সংঘর্ষে সাইদুর রহমান (২৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। নিহত ওই যাত্রী উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের দশপাইকা গ্রামের আব্দুস ছোবহানের ছেলে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুই যাত্রী। তাদের গুরুতর অবস্থায় সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন- দশপাইকা গ্রামের ছমক আলীর ছেলে কবির হোসেন (২৬) ও অটোরিকশা চালক মীরগাঁও গ্রামের ময়না মিয়ার ছেলে আব্দুল মতিন (২৭)।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে