শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

আ'লীগের এমপিকে বিএনপি নেতার ফুলেল শুভেচ্ছা! সমালোচনার ঝড়

ময়মনসিংহ বু্যরো
  ০৪ এপ্রিল ২০২৪, ০০:০০
আ'লীগের এমপিকে বিএনপি নেতার ফুলেল শুভেচ্ছা! সমালোচনার ঝড়

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য (এমপি) ব্যারিস্টার ফারজানা ছাত্তারকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ) আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রকৌশলী লুৎফুলস্নাহেল মাজেদ বাবু। সম্প্রতি এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর সমালোচনার ঝড় বইছে স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ভেতরে-বাইরে।

এর আগে ২৫ মার্চ রাজধানী ঢাকার মহাখালী এসকেএস টাওয়ারের তৃতীয়তলায় আমান ফুড ভ্যালিতে ঈশ্বরগঞ্জ কল্যাণ সমিতি-ঢাকা আয়োজিত সংগঠনের উপদেষ্টা ও রাজনীতিক প্রয়াত সাইফুদ্দীন আহম্মেদ মনির মৃতু্যতে স্মরণসভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিল-২০২৪ অনুষ্ঠানে এই শুভেচ্ছা জানানো হয়।

দলীয় সূত্র জানায়, প্রকৌশলী লুৎফুলস্নাহেল মাজেদ বাবু ময়মনসিংহ উত্তর জেলা বিএনপির প্রভাবশালী সদস্য এবং ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির একাংশের সাবেক সভাপতি। তিনি ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ) আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রাথমিক মনোনয়নপ্রাপ্তদের একজন ছিলেন তিনি।

সূত্র জানায়, ওই অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের এমপিকে ফুল দিয়ে বরণ করার পর ছবিটি মূহর্তেই ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এতে বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে। এই ছবিকান্ডে

বিব্রত খোদ উপজেলা বিএনপির একাংশের নেতৃত্বে থাকা বাবু'র অনুসারীরাও। ফলে ঈশ্বরগঞ্জ তথা ময়মনসিংহ বিএনপির রাজনীতিতে এই ছবিটি এখন 'টক অব দ্য টপিক।'

এই ছবি ও ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন ময়মনসিংহ উত্তর জেলা বিএনপির সদস্য আমিরুল ইসলাম ভূইয়া মনি। তিনি বলেন, 'অনুষ্ঠানে আমিও আমন্ত্রিত ছিলাম। তবে ফুল দেওয়ার সময় আমি অনুষ্ঠানস্থলের বাইরে ছিলাম। সমিতির পক্ষ থেকে এই ফুল দেওয়া হয়েছে, এতে রাজনৈতিক পরিচয় নেই।'

তবে এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন ময়মনসিংহ উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক এনায়েত উলস্নাহ কালাম। তিনি বলেন, কিছুদিন আগে ঈশ্বরগঞ্জ সমিতি নিয়ে বিএনপি নেতা মনি আমাকে ফোন করে কি একটা বলেছিল। তবে আওয়ামী লীগের এমপিকে ফুল দেওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। এ ধরনের কাজ গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে প্রকৌশলী লুৎফুলস্নাহেল মাজেদ বাবু খবরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঈশ্বরগঞ্জ কল্যাণ সমিতি একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। আওয়ামী লীগ, বিএনপি, সাবেক এমপি, সচিব, আমলাসহ সবাই এই সংগঠনে রয়েছে। সংগঠনের প্রটোকল মেনে আমি সভাপতি হিসেবে ফুল দিয়েছে, এড়িয়ে যেতে পারিনি। আপন হওয়ার জন্য উদ্দেশ্য নিয়ে আওয়ামী লীগের এমপিকে ফুল দেইনি। আমি দল দিয়ে ক্ষমতা বা টাকা উপার্জনের স্বপ্ন দেখি না, এমপি-মন্ত্রী হবার স্বপ্ন দেখি না। মানুষের পাশে থেকে অসহায়দের সহযোগিতা করার চেষ্টা করি। ছোটবেলায় ঢাকায় বড় হয়েছি, এখন এলাকায় বিএনপির রাজনীতি করি। আমার বিরোধীদের কোনো কাজ বা কথাকে আমি কিছু মনে করি না। তবে সচেতন মানুষগুলো আমাকে ভুল বুঝলে কষ্ট থেকে যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির ময়মনসিংহ বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ ওয়ারেস আলী মামুন বলেন, ছবিটি আমার দৃষ্টিগোচর হওয়ার পর ওই বিএনপি নেতাকে ফোন করেছিলাম। তিনি বলেছেন ঈশ্বরগঞ্জ সমিতি দলমতের ঊর্ধ্বে একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। সংগঠনের সভাপতি হিসেবে তিনি এই ফুল দিয়েছেন। এর বেশি আমার জানা নেই। তারপরও বিষয়টি নিয়ে দলীয়ভাবে কথা বলব।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে