বিভিন্ন জেলার করোনা চিত্র

৪ জেলায় মৃতু্য ২৮ জনের

৪ জেলায় মৃতু্য ২৮ জনের

দেশে করোনা আক্রান্ত ও মৃতু্যর সংখ্যা বেড়েই চলছে। রোববারও দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে ২৩১ জনের মৃতু্যর সংবাদ জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এর মধ্যে রাজশাহী, খুলনা, বাগেরহাট ও হবিগঞ্জ- এই চার জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এবং উপসর্গ নিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন আরও ২৮ জন।

রাজশাহী অফিস জানায়, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে করোনায় আরও ছয়জনের মৃতু্য হয়েছে। একই সময় করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও সাতজন। এছাড়াও করোনামুক্ত হয়েও পরে স্বাস্থ্য জটিলতায় মারা গেলেন আরও পাঁচজন। শনিবার সকাল ৬টা থেকে রোববার সকাল ৬টার মধ্যে করোনা ইউনিটে এই ১৮ জনের মৃতু্য হয়।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে রাজশাহীর ছয়জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের একজন, নাটোরের চারজন, নওগাঁর তিনজন, পাবনার তিনজন ও কুষ্টিয়ার একজন।

এদের মধ্যে ১১ জন পুরুষ এবং সাতজন নারী। যাদের পাঁচজনের বয়স ৬১ বছরের ওপরে। বাকিদের মধ্যে ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে চারজন, ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সের মধ্যে চারজন এবং ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়সের মধ্যে পাঁচজন।

হাসপাতাল পরিচালক জানান, রাজশাহীতে আবারও বেড়েছে করোনা সংক্রমণ। শনিবার দুটি ল্যাবে রাজশাহী জেলার ৪২৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৪০ জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে। যা আগের দিনের চেয়ে ৮ দশমিক ৩৯ শতাংশ বেড়ে শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৭১ শতাংশ। যা আগের দিন শুক্রবার ছিল ২৪ দশমিক ৩২ শতাংশ।

খুলনা অফিস জানায়, খুলনার দুটি হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় চারজনের মৃতু্য হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃতু্য হয়।

খুলনার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে তিনজন এবং শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে একজনের মৃতু্য হয়েছে।

খুলনার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের ফোকাল পার্সন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় তিনজনের মৃতু্য হয়েছে। এ সময়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩০ জন আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৫ জন। চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৩৭ জন।

খুলনার শহীদ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. প্রকাশ দেবনাথ জানিয়েছেন, হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন ৪৩ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে রয়েছে ১০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় তিনজন রোগী ভর্তি হয়। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন একজন।

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৪৫ জন। তার মধ্যে ১৮ জন পুরুষ আর ২৭ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ৯ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন চারজন।

খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ৬৬ জন ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন আটজন আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন তিনজন। আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন ১০ জন এবং এইচডিইউতে তিনজন।

গাজী মেডিকেল হাসপাতালের স্বত্বাধিকারী ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬১ জন। আইসিইউতে রয়েছেন তিনজন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ভর্তি হয়েছেন পাঁচজন আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৪ জন।

বাগেরহাট প্রতিনিধি জানান, বাগেরহাট জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২৯৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৮৯ জন করোনা সংক্রমিত হিসাবে শনাক্ত হন। যার শতকরা হার দাঁড়ায় ২৯.০৭ শতাংশ। এ সময়ে করোনা সংক্রমিত হয়ে ৩ জন মারা গেছেন।

বাগেরহাট সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির রোববার জানান, বাগেরহাট জেলায় রোববার সকাল পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত হলেন ৫ হাজার ৯৯৬ জন। মোট মারা গেছেন ১২৫ জন।

বাগেরহাট সদর ডেডিকেটেড হাসপাতালে শনিবার সকাল পর্যন্ত ২৭ জন করোনা সংক্রমিত রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জে রোববার বেলা ১২টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩ জনের মৃতু্য হয়েছে। এদের মধ্যে দুইজন নারী ও একজন পুরুষ।

এ ছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। এদিন মোট ৭৯২টি নমুনা পরীক্ষায় মোট ৩৪৮ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। শনিবার দিবাগত রাতে সিলেটের ল্যাব থেকে করোনা শনাক্তদের এ রিপোর্ট আসে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মুখলেছুর রহমান উজ্জ্বল।

রোববার দুপুরে তিনি জানান, এ যাবতকালে হবিগঞ্জে একদিনে সর্বোচ্চ মৃতু্যর রেকর্ড এটিই। একদিনে শনাক্তও সর্বোচ্চ। শনাক্তের হার ৪৩ দশমিক ৯ শতাংশ।

এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৮৪৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৫শ' জন। করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মৃতু্য হয়েছে ৩৩ জনের।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে