মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯
walton1
ফারদিন হত্যাকান্ড

'রহস্য' উন্মোচিত না হওয়ায় ক্ষোভ, কান্না

ম যাযাদি ডেস্ক
  ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:০০
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) শিক্ষার্থী ফারদিন নুর পরশ হত্যার ঘটনায় ডিবি ও ছায়াতদন্তকারী সংস্থার্ যাবের পরস্পরবিরোধী তথ্যে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলে সহপাঠীরা অভিযোগ করেছেন। একই সঙ্গে এ হত্যাকান্ডের 'রহস্য' উন্মোচিত না হওয়ায় হতাশা আর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার দুপুর ১টায় বুয়েটের শহীদ মিনারের সামনে ফারদিন হত্যাকান্ডের দ্রম্নত তদন্তের দাবিতে এক মানববন্ধনে এ অভিযোগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন শিক্ষার্থীরা। কর্মসূচিতে যোগ দেন ফারদিনের বাবা নুর উদ্দিন রানাও। এ সময় তিনি ছেলে হত্যার বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন এবং কান্নায় ভেঙে পড়েন। বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নুর পরশ চলতি বছরের ৪ নভেম্বর নিখোঁজ হন। ৭ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জের গোদনাইলে শীতলক্ষ্যা নদীর পাড় থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই সময় ময়নাতদন্তে হত্যার আলামত পাওয়ার কথাও জানান চিকিৎসকরা। তবে তার মোবাইল সেট, মানিব্যাগ ও ঘড়ি সব তার সঙ্গেই পাওয়া গিয়েছিল। পরে এ ঘটনায় মামলা করেন ফারদিনের বাবা। মামলায় নিহতের বান্ধবীকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নেয় রামপুরা থানা পুলিশ। এরপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বরাতে সংবাদমাধ্যমে খবর আসে, শীতলক্ষ্যা নদীর পাড়ে চনপাড়ায় মাদক বিক্রেতাদের পিটুনিতে ফারদিন মারা গেছে। তবে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান হারুন অর রশীদ বলেছিলেন, চনপাড়াতেই ফারদিনকে হত্যা করা হয়েছে কি না, তা তারা নিশ্চিত হতে পারেননি। এই হত্যাকান্ডের তদন্তের দায়িত্ব ডিবির ওপর হলেওর্ যাবও এর ছায়া তদন্ত করছে। এক মাস হয়ে গেলেও হত্যাকান্ডের 'রহস্য' উন্মোচিত না হওয়ায় সহপাঠী ও স্বজনরা প্রকৃত অপরাধীকে শনাক্ত করে বিচার চেয়ে আসছেন। মঙ্গলবারের মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, 'অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, ফারদিনের মরদেহ উদ্ধারের প্রায় এক মাস অতিবাহিত হতে যাচ্ছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটিত হয়নি এবং হত্যাকারীরা চিহ্নিত হয়নি। আমরা প্রথম থেকেই দ্রম্নত তদন্তের জন্য দাবি করে আসছি। কিন্তু দুঃখজনকভাবে আজ (মঙ্গলবার) ফারদিনের মরদেহপ্রাপ্তির ২৯তম দিনেও আমরা জানি না- কী কারণে আমাদের বন্ধু ফারদিনকে হত্যা করা হলো। এমতাবস্থায় তদন্তের এই দীর্ঘসূত্রতা দেখে আমরা বুয়েট শিক্ষার্থীরা আশাহত।' তদন্তের দায়িত্বে থাকা গোয়েন্দা পুলিশ এবং ছায়াতদন্তকারী সংস্থা র?্যাবের পরস্পরবিরোধী তথ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন শিক্ষার্থীরা। তারা আরও বলেন, ইতোমধ্যে এই মামলার তদন্তকারী সংস্থা ডিবি এবং ছায়া তদন্তকারী সংস্থা র?্যাবের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে আসা পরস্পরবিরোধী তথ্য দেখে আমরা বিভ্রান্ত। আমরা বুয়েট শিক্ষার্থীরা ফারদিনের খুনিদের শনাক্ত করে দ্রম্নততম সময়ের মধ্যে গ্রেপ্তার এবং তাদের বিচারের আওতায় আনার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি। এ সময় কান্নাজড়িত কণ্ঠে ফারদিনের বাবা নুর উদ্দিন বলেন, আমার ছেলেকে হত্যার পর প্রায় এক মাস পেরিয়ে গেছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কী কারণে আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে তার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি তদন্তকারী সংস্থা। আমার মতো বুয়েটের শিক্ষকরাও ফারদিনের অভিভাবক। কিন্তু এ ব্যাপারে তাদের কোনো ভূমিকা দেখছি না। এখন পর্যন্ত তারা তদন্তকারী সংস্থার কাছ থেকে কিছু জানতে চায়নি। এ সময় তিনি ছেলেকে হত্যার বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মানববন্ধন শেষে ফারদিন হত্যার বিচার চেয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেন বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে