রোববার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

জমে উঠেছে ২৫তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী

যাযাদি ডেস্ক
  ১০ জুন ২০২৩, ০০:০০
রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে চলমান চারুকলা প্রদর্শনীতে প্রতিদিনই বাড়ছে দর্শনার্থীর সমাগম। ছবিটি শুক্রবার তোলা -নাজমুল ইসলাম

বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের উপস্থিতিতে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে জমে উঠেছে ২৫তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী। জাতীয় চিত্রশালার ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬ ও ৭ নম্বর গ্যালারিতে প্রতিদিনই বাড়ছে দর্শনার্থীর ভিড়। টানা এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে তীব্র দাবদাহের কারণে দর্শনার্থী কম ছিল। তবে শুক্রবার ছুটির দিন এবং বৃষ্টির কারণে ঠান্ডা আবহাওয়ায় প্রচুর দর্শনার্থীর সমাগম ঘটে।

শিল্প হলো শিল্পীর চিন্তার অকপট প্রকাশ, যা নান্দনিক সৌন্দর্যে সাধারণের সামনে উপস্থাপন করা হয়। শিল্প হচ্ছে সেই প্রপঞ্চ যা, দর্শকের সঙ্গে ভাব বিনিময়ের উদ্দেশ্যে মানুষের দ্বারা নির্মিত কোনো দৃশ্যমান বস্তুর ধারণা ও আবেগ। এই আবেগ প্রকাশের শর্ত হচ্ছে সারল্য। রঙতুলির আঁচড়ে শিল্পী তার মনন ও সৃজনশীলতার স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যে বিকশিত করে তোলেন চিত্রকলার ভুবন। এমন ভাবনায় এবারের প্রদর্শনীর ক্যানভাস রাঙিয়েছেন বাংলাদেশের শিল্পীরা।

শুক্রবার নিজের দুই শিশু সন্তান নিয়ে প্রদর্শনীতে এসেছিলেন ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মারিয়ম দীপা। তিনি বলেন, 'ছোটবেলায় আঁকাআঁকির শখ ছিল। কিন্তু

নানা প্রতিবন্ধকতায় সেটা ধরে রাখতে পারিনি। তবে সুযোগ পেলেই প্রদর্শনীতে আসি। গত কয়েক দিনের গরমে খুব কাহিল হয়ে পড়েছিলাম। বাচ্চারাও অস্বস্তিতে ছিল। পরিবেশ ঠান্ডা থাকায় বাচ্চাদের নিয়ে বেরিয়েছি। ওরাও খুব আনন্দ করছে।'

সাভারের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রদর্শনীতে আসা আলমাস বলেন, 'সকালে চাকরির পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা দিয়ে ঘোরাঘুরি করলাম। আমি সুযোগ পেলেই শিল্পকলার আয়োজনে শামিল হই। এজন্য বন্ধুদের নিয়ে দেখতে চলে এসেছি।'

শিল্পকলায় ২৫তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী সাজানো হয়েছে, ৯৬টি চিত্রকলা, ৩৯টি ছাপচিত্র, ২২টি আলোকচিত্র, ৬০টি ভাস্কর্য, ৪টি প্রাচ্যকলা, ৬টি মৃৎশিল্প, ১০টি কারুশিল্প, ৭টি গ্রাফিক ডিজাইন, ৩৮টি স্থাপনা শিল্প, ১১টি নিউ মিডিয়া আর্ট ও ৩টি পারফরম্যান্স আর্ট দিয়ে।

২১ বছরের ঊর্ধ্বে সারা দেশ থেকে ১ হাজার ১৩৮ শিল্পীর ২ হাজার ৯১৪টি শিল্পকর্মের নির্বাচকমন্ডলী নির্বাচিত বিভিন্ন বিভাগের ২৬১ জন শিল্পীর ৩০১টি শিল্পকর্ম নিয়েই এই আয়োজন।

প্রদর্শনীতে প্রতিটি মাধ্যমে

একটি করে ১১টি শ্রেষ্ঠ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। আর সব মাধ্যম মিলিয়ে 'বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি পুরস্কার' শ্রেষ্ঠ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। এ বছর পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পীরা হলেন- জেসমিন আকতার (গ্রান্ড পুরস্কার), জয়তু চাকমা (চিত্রকলা), সৈয়দ তারেক রহমান (ভাস্কর্য), সজীব কুমার দে (স্থাপনাশিল্প), নুসরাত জাহান (ছাপচিত্র), জিহাদ রাব্বি (গ্রাফিক ডিজাইন), ফারহানা ফেরদৌসী (কারুকলা), অসীম হালদার (মৃৎশিল্প), মো. আসাদুর জামান আসলাম মোলস্না (আলোকচিত্র), সুজন মাহাবুব (গ্রম্নপ পারফরম্যান্স আর্ট), আব্দুস সাত্তার (সম্মানসূচক পুরস্কার), নাঈমা আখতার (সম্মানসূচক পুরস্কার), রাউফুন নাহার রিতু (সম্মানসূচক পুরস্কার), মো. তরিকুল ইসলাম (সম্মানসূচক পুরস্কার), আশরাফুল হাসান (সম্মানসূচক পুরস্কার), ফারেহা জেবা (বেঙ্গল ফাউন্ডেশন পুরস্কার), অনুকূল চন্দ্র মজুমদার (শিল্পী কালিদাস কর্মকার পুরস্কার), মোহাম্মদ হাসানুর রহমান (শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশন পুরস্কার), তানভীর পারভেজ (ভাষাশহীদ গাজীউল হক পুরস্কার), গোবিন্দ পাল (শিল্পী কাজী আনোয়ার হোসেন পুরস্কার)।

প্রসঙ্গত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জুলিও কুরি পুরস্কার প্রাপ্তির ৫০ বছর পূর্তির দিন ২৮ মে থেকে শুরু হওয়া ২৫তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী চলবে আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত। প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা এবং শুক্রবার বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য প্রদর্শনী উন্মুক্ত।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে