ব্যাটিংয়ে জড়তা কাটবে টাইগারদের?

প্রথম ম্যাচের দিনটি যে ব্যাটসম্যানদের হতে যাচ্ছে না, সেটি বোঝা যাচ্ছিল সকাল থেকেই। তাই প্রথম ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করা অধিনায়ক তামিম ইকবাল আঙুল তুলেছেন উইকেটের দিকে, 'ব্যাটিংয়ের জন্য এটা ছিল কঠিন উইকেট। চাইলেও সেখানে শট খেলা সম্ভব নয়।'
ব্যাটিংয়ে জড়তা কাটবে টাইগারদের?
তামিম ইকবাল সাকিব আল হাসান

দীর্ঘ দশ মাস পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে প্রথম ম্যাচ জিতলেও প্রশ্ন উঠছে বাংলাদেশের ব্যাটিং নিয়ে। ব্যাটিংয়ে বেশ জড়তা ছিল টাইগার ব্যাটসম্যানদের। বোলিং নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই। কারণ ম্যাচ জেতার ক্ষেত্রে বোলাররাই বেশি ভূমিকা রেখেছে।

১২২ রান তাড়া করতে নেমে ৩৩.৫ ওভার খেলেছে বাংলাদেশ। ওভারে গড় রানরেট ৩.৬৯। বর্তমান ক্রিকেটের হালচাল বিচারে এই ব্যাটিংকে মোটেও স্বাভাবিক বলা যায় না। কুয়াশাচ্ছন্ন কন্ডিশন, দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামার জড়তা, এসব বিষয় হয়তো জেঁকে বসেছিল। ব্যাটসম্যানরা যে সুবিধা পাননি, সেটি পেয়েছেন বাংলাদেশি বোলাররা। উইকেটের ভেজা ভাবটা সাহায্য করেছে পেসারদের। স্পিনাররাও পেয়েছেন সমান সহায়তা।

প্রথম ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করা অধিনায়ক তামিম ইকবাল আঙুল তুলেছেন উইকেটের দিকে, 'ব্যাটিংয়ের জন্য এটা ছিল কঠিন উইকেট। চাইলেও সেখানে শট খেলা সম্ভব নয়।' তবে দিনটি যে ব্যাটসম্যানদের হতে যাচ্ছে না, সেটি বোঝা যাচ্ছিল সকাল থেকেই। কুয়াশাচ্ছন্ন মলিন দিনে সূর্যের দেখাই মেলেনি।

একটা পরিসংখ্যান পেশ করা যায়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১২২ রান তুলেছে ৩২.২ ওভারে। এর মধ্যে ১৩৩ বল 'ডট' খেলেছে সফরকারী দল। বাংলাদেশ এই রান তাড়া করে জিতেছে তাদের চেয়ে বেশি ওভার খেলে। ডটসংখ্যাও বেশি ১৩৯।

১০ মাসের বেশি সময় পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নেমে এই জয়টা অবশ্যই সন্তুষ্টির। কিন্তু এই জয়কে আতশ কাচে দেখলে ব্যাটিংয়ের খামতিটা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। এই শেরেবাংলা স্টেডিয়ামেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের সব প্রস্তুতি সেরেছে বাংলাদেশ। এখানকার উইকেট তামিমদের কাছে হাতের তালুর মতো চেনা। শেরেবাংলার বাইশ গজ বাংলাদেশ ক্রিকেটের 'ঘর', যেখানে ব্যাটিংটা স্বচ্ছন্দে করার কথা তামিমদের।

টিভি পর্দায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বেশির ভাগ খেলোয়াড় দেখে অনেকে চিনতে পারেননি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে রঙ্গ-রসিকতাও হয়েছে। এক ম্যাচে ৬ জনের ওয়ানডে অভিষেক ঘটলে এই রসিকতার সঙ্গে একপেশে জয় আশা করেছিলেন সমর্থকেরা। ১২২ রান তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশের ৬ উইকেটের জয়ে তার ছাপ দেখা গেল কতটুকু?

জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ফারুক আহমেদ বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ে খুব একটা অবাক হননি। তিনি মনে করেন, পুরো ব্যাটিং বিভাগের ছন্দে ফিরতে কিছু সময় তো লাগবেই, 'লিটন দাস তো স্ট্রোক মেকার। তাকে তো এভাবে খেলতে দেখা যায় না। কাল সেও যত রান করেছে, তার চেয়ে দুই গুণ বল বেশি খেলেছে। তামিম, সাকিবও তাই। উইকেট আর ওয়ানডে সুপার লিগের চাপ হিসাব করলে এটাই ঠিক ছিল। সবচেয়ে বড় কথা, বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা উইকেটে সময় কাটিয়েছে। সেটির খুবই দরকার ছিল।'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে