‘আমরা যারা রাজনীতি করি আমাদের দোষে বাড়ছে কিশোর অপরাধ’

‘আমরা যারা রাজনীতি করি আমাদের দোষে বাড়ছে কিশোর অপরাধ’

ফরিদপুরে ‘বাংলাদেশে সাম্প্রতিক কিশোর অপরাধ পরিস্থিতি, কারণ ও প্রতিকার’ শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার দুপুরে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। ওই সেমিনারে রাজনীতিবিদ, ইউপি চেয়ারম্যান, এনজিও কর্মকর্তা, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশার ব্যক্তিরা অংশ নেন।

সেমিনারে বক্তব্য দিতে গিয়ে চরভদ্রাসন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও চরভদ্রাসন সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজান খান বলেন, আমরা যারা রাজনীতি করি আমাদের দোষে বাড়ছে কিশোর অপরাধ। আমরা এইসব কিশোরকে রাজনীতির প্রয়োজনে ব্যবহার করি। আমাদের রাজনীতি নিজেদের স্বার্থে, সমাজকে কলুষমুক্ত করার কথা আমরা ভাবি না।

জেলা পুলিশ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বিপিএম। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান।

আলোচনায় অংশ নিয়ে নগরকান্দা উপজেলার কাইচাইল ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কবির হোসেন ঠান্ডু বলেন, আমরা অভিভাবকরা টাকার নেশায় বুঁদ হয়ে আছি। আমরা টাকার পিছনে ঘুরছি।

ছেলেমেয়ে মানুষ হলো কি হলো না সেদিকে আমাদের কোনো খেয়াল নেই।

মধুখালী উপজেলার জাহাপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইছাহাক হোসেন বলেন, অভিভাবক, রাজনীতিবিদ ও পুলিশের দুর্বলতার কারণে সমাজে বাড়ছে কিশোর অপরাধ।

সালথা উপজেলার বল্লভদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক নূরুল ইসলাম বলেন, বাবা ও মা দুজনেই কর্মজীবী। সন্তান বড় হচ্ছে আয়ার কাছে। কিশোর অপরাধ একটা ফ্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আগে বাচ্চারা স্কুল থেকে পালিয়ে যেত এখন বাচ্চাদের কাছ থেকে স্কুলই পালিয়ে যাচ্ছে।

ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বলেন, কিশোর গ্যাংদের প্রশ্রয় দেয় রাজনীতিবিদরা। নেতাদের পোস্টার সাঁটানো ও নানা ফাইফরমাস খেটে খেটে তৈরি হচ্ছে কিশোর গ্যাং।

অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন ফরিদপুর সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ মোশার্রফ আলী, ব্লাস্টের সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট শিপ্রা গোস্বামী, রাসিনের নির্বাহী পরিচালক আসমা আক্তার মুক্তা, ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাইদ চৌধুরী ও ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. কবিরুল ইসলাম সিদ্দিকী প্রমুখ।

পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বিপিএম বলেন, পুলিশের উদ্যোগে সম্প্রতি বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এতে কিশোর অপরাধ কমবে বলে আশা করা যায়।

তিনি বলেন, আমাদের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। পাশাপাশি আমাদের লোভের মাত্রা কমিয়ে আনতে হবে।

তিনি বলেন, সন্ধ্যার পর সড়কে শুধু কিশোর তরুণ নয় অভিভাবকদেরও ঘরের বাইরে থাকা উচিত নয়, তাদের উচিত বাড়িতে গিয়ে পরিবারকে সময় দেওয়া। পাশাপাশি কিশোর অপরাধ বৃদ্ধির কারণ বের করতে গবেষণাধর্মী কাজ শুরু করা জরুরি।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে