​ লালমোহনে ভ্যানচালকের কাঁধে ১০ লাখ টাকার মামলা : দিশেহারা পরিবারটি

​  লালমোহনে ভ্যানচালকের কাঁধে ১০ লাখ টাকার মামলা : দিশেহারা পরিবারটি

ভোলার লালমোহনে মো. নূরুজ্জামান নামের এক ভ্যানচালকের কাঁধে ১০ লাখ টাকার মিথ্যা মামলার অভিযোগ। বয়সের ভারে ন্যুজ বৃদ্ধ নূরুজ্জামান এ মামলার দায়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। ওই বৃদ্ধের পিতৃসম্পদ আত্মসাতের উদ্দেশ্যে উপজেলার ধলিগৌরনগর ইউনিয়নের চতলা এলাকার মৃত মজিবুল হকের ছেলে মো. নূরুল হক বাদী হয়ে মোকাম লালমোহন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলাটি করেছেন বলে অভিযোগ ভ্যানচালক নূরুজ্জামানের। মামলা নং : এমপি ১৫৭/২০২১ ইং (লাল)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের ১০ জুন নূরুজ্জামানের পিতৃসম্পদের ১২ শতাংশ জমি বিক্রির কথা বলে নূরুল হকের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা নেন। একই সঙ্গে এ মামলায় নূরুজ্জামানের ভাগনে মো. মাহমুদুল হককেও ১২ শতাংশ জমির জন্য ১০ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। এ মামলায় দুজনকেই গাছের ব্যবসায়ী হিসেবে বলা হয়েছে।

মামলার আসামি নূরুজ্জামান জানান, চতলা মৌজার এসএ ৪১৩, ৬৫৪ খতিয়ানের কিছু সম্পত্তি জোরপূর্বক ভোগ দখল করে আসছে নূরুল হক গংরা। এ ব্যাপারে নূরুল হকের পিতার বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি লালমোহনের নৌ-কন্টিনজেন্টে অভিযোগ দেওয়া হয়। ওই অভিযোগটি তদন্ত করে মীমাংসের জন্য ধলিগৌরনগর ইউনিয়নের তৎকালীন চেয়ারম্যান মোজ্জামেল হকের কাছে প্রেরণ করা হয়। এ সময় ফয়সালার স্বার্থে উভয় পক্ষের কাছ থেকে দেড়শত টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়া হয়।

নূরুজ্জামান আরও জানান, ওই সময় ফয়সালাতে না বসে দিন পার করে ওই স্ট্যাম্পটিকেই অঙ্গীকারনামা সাজিয়ে নূরুজ্জামান ও তার ভাগনে মাহমুদুল হকের বিরুদ্ধে ২০ লাখ টাকার মিথ্যা একটি মামলা সাজায় নূরুল হক গংরা।

সরেজমিনে স্থানীয়দের সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়, প্রায় ৩০-৩৫ বছর ভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন নূরুজ্জামান। মাহমুদুলও পেশায় একজন দিনমজুর। স্থানীয় সালিশ মো. নূরনবী হাওলাদার জানান, নূরুল হকের ভাই মো. শাহে আলম বিমান বাহিনীতে কর্মরত। সে এলাকায় আসার পর নূরুজ্জামানদের সঙ্গে জমিসংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে একাধিকবার বসতে বলেছি। তবে শাহে আলম স্থানীয়ভাবে না বসে আদালতে গিয়ে মামলাটি করেন। তিনি আরও বলেন, ভ্যানচালক নূরুজ্জামানকে কি কারণে এত টাকা দিয়েছেন তা আমার জানা নেই। এ টাকার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

এ ব্যাপারে মামলার বাদী নূরুল হক জানান, অন্যত্র জমি বিক্রির কথা বলে নূরুজ্জামান ও মাহমুদুল হক ২০ লাখ টাকা নিয়েছিলেন। তারা জমি কিংবা টাকা ফেরত দিতে বিলম্ব করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছি।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পিতৃসম্পদটুকু ছাড়া নূরুজ্জামানের আর কোনো সম্পদ নেই। সত্তরের পরে বাবা মারা যাওয়ায় মাকে নিয়ে নানা বাড়িতে থাকতেন নূরুজ্জামান। বর্তমানে দুই ছেলে, দুই মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে স্থানীয় কাঁটাখালী খালের পাড়ে সরকারি খাস জমিতে বসবাস করছেন তিনি। তার বিরুদ্ধে এমন মিথ্যা মামলা করায় হতাশা দেখা দিয়েছে পরিবারটিতে। নূরুজ্জামান এ মিথ্যা মামলা থেকে পরিত্রাণ পেতে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

সকল ফিচার

ক্যাম্পাস
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
হাট্টি মা টিম টিম
কৃষি ও সম্ভাবনা
রঙ বেরঙ

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে