বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯
walton1

শার্শায় খেজুর গাছ ৪৬৫২০টি, গাছি মাত্র ৪৬০ জন

শার্শা (যশোর) প্রতিনিধি
  ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯:১০

কথায় আছে "যশোরের যশ খেজুরের রস" শীতের শুরু থেকেই সেই রস সংগ্রহে এখন ব্যস্ত সময় পার করছে যশোরের শার্শা উপজেলার গাছিরা। ক'দিন পরেই রস থেকে শুরু হবে গুড় পাটালী তৈরীর কাজ। অনেক গাছিই বাপ দাদার পেশাকে টিকিয়ে রাখতে প্রতি বছর খেজুর গাছের বাড়তি যত্নে এই সময়টাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

বছরজুড়ে খেজুর গাছগুলো অযত্ন অবহেলায় পড়ে থাকলেও শীতের শুরু থেকে গাছের চাহিদা ও যত্ন বেড়ে যায়। রস সংগ্রহের জন্য গাছিরা গাছের অপ্রয়োজনীয় ডালপালা ছেঁটে ফেলার পরে গাছের বুক চিড়ে সাদা ছাল বের করার কাজ শুরু করেন। হালকা কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় এখন জানান দিচ্ছে শীতের আমেজ শুরু হয়ে গেছে। তাইতো শীতের শুরু থেকেই রস সংগ্রহের জন্য খেজুর গাছগুলোকে প্রস্তুত করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন যশোরের শার্শা ও বেনাপোলের গাছিরা। শীত এলেই যশোরের ঐতিহ্য খেজুরের রস সংগ্রহের পাশাপাশি গুড় তৈরির ধুম পড়ে যায় এ অঞ্চলে। 

গাছিরা জানান, বর্তমানে খেজুর গাছের সংখ্যা দিনদিন কমে যাওয়ায় রস, গুড় ও পাটালি গুড়ের দাম বেশি। তবে অনেক চাষিই প্রায় ২৫-৩০ বছর যাবত খেজুর গাছ ঝোড়া ও গুড় তৈরির কাজ করলেও মূলত এটা তাদের পৈত্রিক পেশা। 

শার্শা উপজেলার শীর্ষ কৃষি কর্মকর্তা প্রতাপ মন্ডল বলেন, যশোর অঞ্চলের খেজুর রস থেকে তৈরি গুড় ও পাটালীর সুনাম এবং ঐতিহ্য থাকলেও শার্শা উপজেলা থেকে দিন দিন কমে যাচ্ছে গাছ ও গাছীর সংখ্যা। তবে এখানকার গুড় পাটালী এলাকার চাহিদা মিটিয়ে  বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ হয়। 

চলতি বছরে কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শার্শায় মোট খেজুর গাছের সংখ্যা রয়েছে ৫২ হাজার ২শ ৮০টি। যার মধ্যে ৪৬ হাজার ৫শ ২০টি গাছ থেকে রস সংগ্রহ করেন মাত্র ৪৬০ জন গাছি।

যাযাদি/মনিরুল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে