logo
সোমবার ১৪ অক্টোবর, ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

  বিনোদন রিপোর্ট   ০৯ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০  

তারকাদের পূজা উদযাপন

তারকাদের পূজা উদযাপন
দেখতে দেখতে শেষ হয়ে গেল সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। সাধারণ মানুষের মতো হই-হুলেস্নাড় আর উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়েই কেটে গেল তারকাদের শারদীয় উৎসব। পূজা উপলক্ষে অনেক তারকাই ঢাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে গেছেন পরিবারের সঙ্গে পূজার আনন্দ ভাগ করতে। অনেকেই আবার কাজের জন্য দেশের বাইরে গিয়ে সেখানেই মেতেছিলেন আনন্দ-উলস্নাসে। কেউ কেউ পূজা উদযাপনের ছবি তুলে পোস্ট করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সিনিয়র অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাসকে দিয়েই শুরু করা যাক। এবারের পূজায় ঢাকাতেই ছিলেন তিনি। পরিবার নিয়ে অন্যসব বারের মতোই আনন্দে কাটিয়েছেন। তবে পূজার আমেজ একটু একটু করে পরিবর্তন হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন এই অভিনেত্রী। তিনি জানান, ছোটবেলায় তাকে কুমারী সাজিয়ে দুর্গার পাশে বসিয়ে দেওয়া হতো। আর সবাই মিলে প্রণাম করত। এখন এসবের আর সুযোগ নেই। তবে ফেলে আসা দিনগুলোর কথা এখনো অরুণা বিশ্বাসের চোখে ভাসে। তিনি বলেন, 'একটা সময় পূজা এলেই আমরা ক'জন মিলে মন্ডপে যাওয়ার পরিকল্পনা করতাম। দলবেঁধে যেতামও। এখন স্বাভাবিকভাবে চাইলেও সেটা সম্ভব হয় না। নিরাপত্তার একটি বিষয় থাকে। তারপরও চেষ্টা করি, কাছের মানুষদের নিয়ে পূজার আনন্দে মেতে উঠতে।'

একে তো নাচনে বুড়ি, তার ওপর ঢোলের বাড়ি। বলছিলাম অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা সাহা মিমের কথা। একদিকে দুর্গাপূজা, অন্যদিকে মুক্তি পেয়েছে তার নতুন ছবি 'সাপলুডু'। দুইয়ে মিলে একদম উৎসব-কন্যা হয়ে উঠেছেন তিনি। তার কাছে পূজা মানেই সকালবেলা অঞ্জলী দেওয়া। সারাদিন ঘুরে বেড়ানো আর কাজিনরা মিলে হইহুলেস্নাড় করা। মিম বলেন, 'এবার পূজা করেছি রাজশাহীতে। মঙ্গলবার এসেছিলাম এখানে। তবে ছোটবেলার পূজার দিনগুলো এখন অনেক মিস করি। তখন পূজা এলেই মামাবাড়ি যাওয়া হতো। নতুন নতুন জামা-কাপড় উপহার পেতাম। সত্যিই, ফেলে আসা দিনগুলো অসাধারণ ছিল। আর এখনতো সতর্কতার সঙ্গে মন্ডপে যেতে হয়। এবার আমাকে দেখে অনেকেই ছবি তুলতে এসেছেন। বিষয়টি বেশ উপভোগই করেছি।'

বরাবরের মতো এবারও চট্টগ্রামে পূজা উদ্‌যাপন করেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ। তিনি বলেন, পূজার আনন্দ অন্য সবকিছুর চেয়ে একদম আলাদা। এবার প্রতিমা বিসর্জন দেওয়ার সময়ও দেখতে গিয়েছিলাম পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে। সে অন্যরকম এক অনুভূতি।' সব শেষে আজ তার ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে। তবে বড় হওয়ার পর পূজার আসল মজাটাই নষ্ট হয়ে গেছে তার। তাই অপর্ণার কাছে সেরা পূজা মানেই ছোটবেলার পূজা।

কুমার বিশ্বজিৎ। শ্রোতাপ্রিয় এ সংগীতশিল্পীর কাছে পূজার আনন্দ মানেই ঢাক বাজানো। ছোট থেকেই ঢাক বাজানো নিয়ে তার রয়েছে বড় ধরনের দুর্বলতা। এমনকি এই ঢাক বাজানো থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে গেয়েছেন বেশকিছু গানও।

ফলে এবারও পরিবার ও সন্তানাদি নিয়ে মেতে উঠেছিলেন মন্ডপে। এবারের পূজা কাটিয়েছেন ঢাকাতেই। সঙ্গে ভুলেননি ঢাক বাজাতে।

তবে একেবারেই ব্যতিক্রম অভিনেত্রী ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর। এবারের পূজায় একেবারেই নিশ্চুপ তিনি। ধর্মীয় নীতি অনুসারে পূজা উদযাপন করলেও মনে তার আনন্দ নেই। এ বিষয়ে তিনি বলেন, 'আমার জীবনে আর কোনো দিন পূজা হয়তো বিশেষভাবে আসবে না। কারণ এই পূজার সময়ই বাবা মারা যান। তাকে ছাড়া পূজার আনন্দ একদমই জমছে না। ক্ষণে ক্ষণে আমার বাবার কথাই মনে পড়ছে।'

বেশ কয়েক বছরে পূজা উদযাপন নীরবেই করতে হয় সংগীতশিল্পী বাপ্পা মজুমদারকে। কারণ, এখন মন্ডপে গেলেই ভিড় হয়ে যায়। নিজের মতো করে কোনোকিছু করতে পারেন না তিনি। তারপরেও পূজা বলে কথা! চুপচাপ থাকবেন কি করে? তিনি বলেন, 'এত কিছুর মধ্যেও যথাসময়ে অঞ্জলি দিয়েছি। কাছের কিছু বন্ধুদের সঙ্গে মন খুলে আড্ডা দিয়েছি। সত্যি বলতে এর বাইরে তেমন কিছু করা হয়ে ওঠেনি। আগে নানা বাড়ি রাজশাহী যেতাম পূজা করতে। এখন সে সুযোগ পাই না।'

অভিনেত্রী জ্যোতিকা জ্যোতি গতবারের মতো এবারও কলকাতায় মামাবাড়িতে পূজা করেছেন। এছাড়াও সেখানে মুক্তি পেয়েছে জ্যোতি অভিনীতি 'রাজলক্ষ্ণী ও শ্রীকান্ত' ছবিটি। সব মিলিয়ে এবারের পূজা কাটিয়েছেন বেশ আয়েশ করেই।

টিভি অভিনেত্রী মৌসুমী নাগ ও মৌটুসী বিশ্বাস এবার পূজা উদযাপন করেছেন ঢাকাতেই অনেকটা সাদামাটাভাবে।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
close

উপরে