মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

মেহেরপুরে জাম্বু কোয়েল পাখি পালনে সফল বিদেশ ফেরৎ

জাহাঙ্গির আলম গোলাম মোস্তফা, মেহেরপুর
  ০৩ মার্চ ২০২৩, ১২:১৫
ছবি-যাযাদি

ইউটিউব দেখে জাম্বু কোয়েল পাখির খামার করে সফলতা পেয়েছেন সদর উপজেলার উত্তর শালিকা গ্রামের বিদেশ ফেরৎ জাহাঙ্গীর আলম। নিজ বাড়িতেই নতুন এ জাতের কোয়েল পাখির খামারটি তৈরি করেছেন জাহাঙ্গীর। তার এ সাফল্য এলাকায় কোয়েল পালনে নতুন নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছে। অনেক বেকার যুবক তার এই খামার থেকে কোয়েল পাখি সংগ্রহ করে ছোট আকারে শুরু করছে কোয়েল পাখি পালন।

মেহেরপুর সদর উপজেলার উত্র শালিকা গ্রামের জাহাঙ্গির আলম ২০১৭ সালে বিদেশ গিয়ে কয়েক বছর থাকার মধ্যে হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ২০২০ সালে বাড়ি চলে আসে। বিদেশ থেকে ফিরে সুস্থ্য হয়ে জীবন জীবিকার তাগিদে কিছু একটা করার জন্য জাহাঙ্গির ইন্টারনেটে জাম্বু কোয়েল সম্পর্কে জানতে পারেন। এরপর গতবছর রাজবাড়ি থেকে ১৫ টাকা পিচ হিসেবে ৬০০ টি জাম্বু জাতের কোয়েল পাখি সংগ্রহ করে শুরু করেন কোয়েল পাখির খামার। প্রথম দিকে ডিম ও মাংশ বিক্রি দিয়ে শুরু করেন সে। পরবর্তিতে সে ডিম ফুটানোর ম্যাশিন (ইনকিবিউটর) কিনে নিজেই শুরু করেন বীজ ডিম দিয়ে বাচ্চা উৎপাদন। বর্ধিত হতে থাকে তার কোয়েল পাখির খামার। বর্তমানে তার খামারে প্রায় ৬ হাজার কোয়েল পাখি।

এরমধ্যে সে ৪০০ টি করে ডিম পাড়ার জন্য রেখে দেয়। বাকিগুলো বাচ্চা ও মাংশ হিসেবে বিক্রি করে। জাম্বু কোয়েল ওজনে বেশি হওয়ায় সে কোয়েল পাখি খুচরা বিক্রি করে জোড়া ১২০ টাকা। আর পাইকারদের কাছে জোড়া বিক্রি করে ১০০ টাকা। একদিনের বাচ্চা বিক্রি করছে প্রতিপিচ ১৫ টাকা। ডিম বিক্রি করছে আড়ায় থেকে তিন টাকা। প্রতি মাসে তার এই কোয়েল পাখির খামার থেকে সব মিলিয়ে গড়ে আয় হচ্ছে ৪০ হাজার টাকা।

নিজের খামার ও সফল উদ্যোক্তা হওয়ার বিষয়ে জাহাঙ্গীর আলম যায়যায়দিনকে জানান, সাধারণ কোয়েলের চেয়ে আকারে বড় ও ওজন বেশি হওয়ায় জাম্বু কোয়েল পাখির চাহিদা বেশি। অল্প পরিশ্রম ও স্বল্প পুঁজিতে কম সময়ে অধিক লাভবান হওয়া যায় এই জাতের কোয়েল পাখি পালনে।

জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর থেকে কোনো প্রকারের সহযোগিতা এখন পর্যন্ত পাইনি। ঋণ সহায়তা পেলে আমার মতো গ্রামীণ খামারিরা বড় পরিসরে খামার করতে পারবে। ব্রয়লার,সোনালী,লেয়ারসহ বিভিন্ন মুরগী পালনের চেয়ে খরচ কম ও লাভ বেশি হয় জাম্বু কোয়েল পাখিতে। তাই এটি একটি সম্ভাবনাময় পোল্ট্রি শিল্প হতে পাবে ভবিষ্যতে।

জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা মো. সাইদুর রহমান যায়যায়দিনকে বলেন, একটি কোয়েল বছরে প্রায় ২০০ ডিম দেয়। প্রতিটি ডিমের ওজন ১৫ থেকে ২০ গ্রাম। ২ মাস বয়স থেকেই কোয়েল পাখি ডিম দিতে শুরু করে। মুরগির ডিমের চেয়ে তিনগুণ বেশি ক্যালরি থাকে কোয়েল পাখির ডিমে। এছাড়া কোয়েল পাখির মাংস খুবই সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর। কম পুঁজি বিনিয়োগে লাভ বেশি হওয়ায় সাধারণ কোয়েল থেকে জাম্বু কোয়েলের পালন দিন দিন বাড়ছে । খামারিদের নিয়মিত পরামর্শ ও ওষুধ টিকা দেওয়া হচ্ছে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
X
Nagad

উপরে