নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় মামুনুলের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে : সিআইডি

নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় মামুনুলের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে : সিআইডি

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) জানিয়েছে, নারায়ণগঞ্জে তাণ্ডবের ঘটনায় দায়ের করা একটি মামলায় প্রাথমিক তদন্তে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের একথা বলেন সিআইডি প্রধান ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান।

এর আগে সোমবার (১৯ এপ্রিল) মামুনুল হকের বিরুদ্ধে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় দায়ের করা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রোববার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা ২৩টি মামলার তদন্ত ভার পেয়েছে সিআইডি। মামলাগুলোর মধ্যে নারায়ণগঞ্জে ২টি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৫টি, কিশোরগঞ্জে ২টি, চট্টগ্রামে ২টি ও মুন্সিগঞ্জে ২টি। হত্যা, বিস্ফোরক, নাশকতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে এসব মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সিআইডি প্রধান ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘হেফাজতে ইসলাম মার্চ মাসের শেষ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে দাবি-দাওয়া আদায়ের নামে জ্বালাও-পোড়াও করেছে, অবরোধ করেছে, হরতালের ডাক দিয়েছে। যা প্রচলিত আইন অনুযায়ী অন্যায়। এরইমধ্যে আমরা ২৩টি মামলার তদন্তভার পেয়েছি। আমরা প্রচলিত আইন অনুযায়ী তা তদন্ত করব। আমাদের ফরেনসিক, ডিএনএ, অভিজ্ঞ তদন্ত কর্মকর্তা রয়েছে, সাইবার এক্সপার্ট রয়েছে।’

এসব মামলায় মামুনুল হকের কোনো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে কি না, গেলে তাকে রিমান্ডে আনা হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে তার সংশ্লিষ্টতা পেয়েছি। তিনি একটি মামলায় রিমান্ডে আছেন। সেটি শেষ হলে আমরা তাকে রিমান্ডে আনব।’

কোন মামলায় তার সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে সিআইডি তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে নারায়ণগঞ্জে দায়ের করা মামলায় তার ইনভলমেন্ট পাওয়া গেছে। আমরা সব মামলা স্টাডি করছি। যদি অন্য কোনো মামলাতেও তার ইনসাইড ইনভলমেন্ট পাই তাহলে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আমাদের একাধিক টিম কাজ করছে।’

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে গত ২৯ মার্চ সন্ত্রাসবিরোধী আইনে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা হয়েছে। মামলাগুলোতে মামুনুল হককে হুকুমের আসামি করা হয়েছে।

বাবুনগরীসহ হেফাজতের অন্য ঊর্ধ্বতন নেতাদের সংশ্লিষ্টতা পেলে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘আমরা এসব মামলায় প্রাথমিক তদন্তে তিন ধরনের লোকের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছি। সেগুলো হলো যারা উপস্থিত থেকেছে, অনুপস্থিত থাকলেও ইন্ধন দিয়েছে, দুষ্কর্মে যারা সহযোগিতা করেছে। বাবুনগরীসহ অন্য কারও সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি তদন্তের স্বার্থে বলছি না। তবে যদি কারও ইনভলমেন্ট পাই তবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আইনের চোখে সবাই সমান। আমরা দ্রুত মামলাগুলো নিষ্পত্তি করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করব।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মামলায় যদি ক্ষমতাসীন দলের বা কোনো জনপ্রতিনিধির সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায় তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে সিআইডি প্রধান বলেন, আমরা আইন অনুযায়ী কাজ করি। তদন্তে যারই সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাক, আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কারণ আইনের চোখে সবাই সমান।

যাযাদি/এসআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে