কঠোর লকডাউনে সতর্ক প্রশাসন

মাঠে নেই গণপরিবহণ আইন মানাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত
কঠোর লকডাউনে সতর্ক প্রশাসন

মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ১৪ তারিখ থেকে সারাদেশে শুরু হয়েছে কঠোর লকডাউন। এর আগে চলতি মাসের ৫ তারিখ থেকে প্রথম ধাপের লকডাউনে প্রশাসন নমনীয়ভাব দেখানোই সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পায়নি। তবে এবারের লকডাউনের শুরু থেকেই কঠোর অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন। লকডাউনে বন্ধ রয়েছে সবরকম গণপরিবহণ। পাশাপাশি জনগণকে আইন মানাতে বাধ্য করতে কোথাও কোথাও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার খবরও পাওয়া গেছে। আমাদের আঞ্চলিক স্টাফ রিপোর্টার ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে ডেস্ক রিপোর্ট:

নেত্রকোনা : নেত্রকোনায় লকডাউন পরিস্থিতি কার্যকর করতে সমস্ত জেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। জেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং লকডাউন কার্যকরে জনসচেতনতামূলক মাইকিং, মাস্ক বিতরণ এবং ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদা আক্তার।

রাঙামাটি : রাঙামাটিতে লকডাউনের কারণে সকাল থেকে বন্ধ রয়েছে সকল প্রকার শপিংমল ও দোকান। খোলা রয়েছে কেবল ওষুধ, কাঁচাবাজার ও মুদি দোকান। সকাল থেকে শহরে অভ্যন্তরীণ যানবাহন চলাচল না করলেও অনেককে ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল নিয়ে ঘোরাঘুরি করতে দেখা গেছে। অন্য সময়ের তুলনায় আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর তৎপরতা কম থাকলেও যারা অকারণে বের হয়েছেন তাদের বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছে পুলিশ। লকডাউন কার্যকরে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট টুম্পা ঘোষ শহরের বিভিন্ন স্থানে ৮টি মামলায় সাত হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করেন।

কক্সবাজার : 'কঠোর লকডাউনে' অনেকটাই ফাঁকা পর্যটন নগরী কক্সবাজারের রাস্তাঘাট। পহেলা বৈশাখেরও নেই কোনো আয়োজন। জেলা শহরসহ বিভিন্ন উপজেলায় কঠোরভাবে পালন হচ্ছে লকডাউন। আর লকডাউন কার্যকর করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে পুলিশ এবং প্রশাসনের লোকজন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের তত্ত্বাবধানে চলছে কঠোর নিরাপত্তাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষার কাজ। যারা বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হচ্ছে তাদেরকে পুলিশের মুখোমুখি পড়তে হচ্ছে। বুধবার সকাল থেকে শহরের রাস্তাগুলো প্রায় ফাঁকা রয়েছে। তবে মাঝেমধ্যে কিছু রিকশা, মোটরসাইকেল এবং জরুরি সেবার গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেছে। বন্ধ রয়েছে শহরের সব মার্কেট ও গণপরিবহণ।

অন্যদিকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাদিয়া সুলতানা বলেন, লকডাউনের নির্দেশনা অমান্য করায় শহরের পানবাজারের পানাহার সুইটস্‌ এন্ড রেস্টুরেন্টকে দুই হাজার এবং ফিশারিঘাটে অহেতুক বাইরে ঘোরাঘুরি কারণে দুইজন পথচারীকে ৫০০ করে এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

নাটোর : করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে কঠোর লকডাউন নাটোরে ঢিলেঢালাভাবে চলছে। বৃহস্পতিবার ভোর থেকেই বেশকিছু ব্যাটারীচালিত অটোরিকশা, ভ্যান এবং সিনজিসহ ছোট যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। লোকজনের চলাফেরাও বেড়ে গেছে। তবে সকাল থেকেই শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থান নিয়ে পুলিশ যানবাহন ও জনগণের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। কিন্তু মানুষের মধ্যে লকডাউন মানার প্রতি অনীহা লক্ষ্য করা গেছে।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, সর্বাত্মকভাবে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সরকারি নির্দেশনা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে নির্ধারিত পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।

গাইবান্ধা : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে গাইবান্ধা জেলা শহরে ভ্রাম্যমাণ আদালত ও পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত থাকলেও বিভিন্ন এলাকায় দোকানপাট খুলে ব্যবসা-বাণিজ্য চালানো হচ্ছে। এছাড়া মোটরসাইকেল ও অটোবাইকের চলাচল বৃদ্ধি পেয়েছে।

গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারগুলোর অবস্থা আরও ভয়াবহ। চা, মিষ্টির দোকান এবং বাজারগুলোতে বসছে জমজমাট আড্ডা। গাইবান্ধা-নাকাইহাট রোডের বিভিন্ন মোড়ের দোকানপাট, সদর উপজেলার ভেড়ামারা ব্রিজ সংলগ্ন মোলস্না বাজার, পাঁচ জুমা, স্কুলের বাজার, গোডাউন বাজার, লক্ষ্ণীপুর, দারিয়াপুর, কুমারপাড়া, হাসেম বাজার, মাঠ বাজার, কদমতলি, বাঁধের মোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় লক ডাউন চলাকালিন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ অমান্য করা হচ্ছে।

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) : করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকারের ২য় ধাপের লকডাউনে সাধারণ মানুষকে বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হতে ও সচেতন করতে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার ও সড়কে মাইকিং করেছে থানা পুলিশ। বুধবার বেলা ১১টার দিকে থানার ওসি এসএম দিদারুল ইসলাম উপজেলার চাতরী চৌমুহনী বাজারে মাইকিং করে জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে এ আহ্বান জানান।

আনোয়ারা থানার ওসি এসএম দিদারুল ইসলাম সিকদার জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে নিজের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সাবার প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) : নেত্রকোনার দুর্গাপুরে সরকারঘোষিত সাতদিনের লকডাউন চলছে। বুধবার সকাল থেকেই সবরকম যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। পৌর শহরের অভ্যন্তরে থ্রি-হুইলার এবং রিকশা চলাচল ছিল তুলনামূলক অনেক কম।

এদিকে, লকডাউন কার্যকরসহ স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় শহরে দুটি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে উপজেলা প্রশাসন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রাজীব-উল-আহসান এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুয়েল সাংমা এসব ভ্রাম্যমাণ আদালতে নেতৃত্ব দেন।

পাইকগাছা (খুলনা) : খুলনার পাইকগাছায় দ্বিতীয় ধাপের লকডাউনে প্রথম দুই দিনে তেমন কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ ছাড়াই কার্যকর হয়েছে। করোনা সংক্রমণ রুখতে উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে। মাইকিংসহ নানাভাবে সচেতনতামূলক প্রচার করা হয়।

ইউএনও এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী জানান, প্রথম দিনের লকডাউন এবং পহেলা বৈশাখ একইদিন হওয়ায় লকডাউন কার্যকর করা নিয়ে কিছুটা শঙ্কা থাকলেও স্থানীয় জনগণ, ব্যবসায়ীসহ সবার সহযোগিতা থাকায় প্রথম দুই দিনের লকডাউন শতভাগ কার্যকর হয়েছে।

নলডাঙ্গা (নাটোর) : করোনা মোকাবিলায় দ্বিতীয় দফায় সরকার ঘোষিত আটদিনের লকডাউনের প্রথমদিন নাটোরের নলডাঙ্গায় কঠোরভাবেই পালিত হচ্ছে। এই বিধিনিষেধ সর্বাত্মকভাবে পালনে উপজেলার প্রধান সড়কসহ বিভিন্ন স্থানে টহল দিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যরা। লকডাউন অমান্য করে জুতা ও স্বর্ণের দোকান খোলা রাখায় দুই ব্যবসায়ীর তিন হাজার টাকা জরিমানা করেছে উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ইউএনও আব্দুলস্নাহ আল মামুন জানান, আগের চেয়ে এবারের লকডাউন কঠোরভাবে পালন করা হচ্ছে। লকডাউন অমান্য করে জুতা ও স্বর্ণের দোকান খোলা রাখায় দুই ব্যবসায়ীর ৩ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর মান্দায় কঠোরভাবেই লকডাউন চলছে। উপজেলার প্রধান সড়ক ও মোড়ে মোড়ে টহল দিচ্ছে আইন-শৃঙ্খলারক্ষা বাহিনীর সদস্যরা।

নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের ফেরিঘাটের রাস্তায় পুলিশের টহল গাড়ি, রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স ছাড়াসহ জরুরি প্রয়োজনে ব্যবহৃত যানবাহন ছাড়া তেমন গাড়ি চোখে পড়েনি।

ইউএনও আব্দুল হালিম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ ইমরানুল হক, মান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মতিয়ার রহমান, থানার ওসি শাহিনুর রহমানসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা সরকারি নির্দেশনা প্রতিপালনে কঠোর অবস্থানে রয়েছেন।

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) : শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলায় সরকার ঘোষিত লকডাউন মেনে ঘরেই থাকছে উপজেলাবাসী। বুধবার লকডাউনের প্রথম দিনে সাধারণ মানুষকে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাইরে চলাফেরা করতে দেখা যায়নি। ইউএনও রুবেল মাহমুদ ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) জয়নাল আবেদীন লকডাউনের কার্যক্রম বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন। ঝিনাইগাতী থানার ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান সদর বাজার পরিদর্শন করে এবং জিরো পয়েন্টে যানবাহন চলাচল বন্ধে ব্যারিকেড দিয়ে দেন।

গুরুদাসপুর (নাটোর) : নাটোরের গুরুদাসপুরে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কঠোর অবস্থানে ফাঁকা হয়ে পড়েছে সদরের প্রধান সড়কসহ অলিগলি। নিত্যপ্রয়োজনীয় ওষুধ, কাঁচাবাজার, মুদি ও কিছু খাবারের দোকান খোলা থাকলেও তেমন ক্রেতা চোখে পড়েনি। উপজেলাব্যাপী অভিযান পরিচালনা করে মাস্ক না পড়ায় কয়েকটি মামলা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ইউএনও মো. তমাল হোসেন বিভিন্ন জায়গায় এই অভিযান পরিচালনা করেন। এছাড়াও গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর টহল চলছে।

গৌরনদী (বরিশাল) : বরিশালের গৌরনদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিপিন চন্দ্র বিশ্বাস বুধবার দিনভর অভিযান পরিচালনা করেছেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন উপজেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি খোন্দকার মনিরুজ্জামান মনির, সাধারণ সম্পাদক এম আলম, সাংবাদিক মো. ফারহান হোসেন নান্নু প্রমুখ।

নকলা (শেরপুর) : শেরপুরের নকলায় সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকর করতে ট্রাফিক বিভাগ বসিয়েছে কড়াকড়ি চেকপোস্ট। জরুরি সেবা, খাদ্যদ্রব্য পণ্যের যানবাহন ছাড়া সব যানের প্রবেশ বন্ধ রয়েছে জেলায়। যেসব যানবাহন সরকারি নির্দেশনা না মেনে রাস্তায় বের হয়েছেন সেগুলোর বিরুদ্ধে হচ্ছে মামলা। অনেক যানবাহনকে ফেরতও যেতে হচ্ছে। শহরের মোড়ে মোড়ে মোতায়েন রয়েছে থানা পুলিশ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে