অন্য কাজে ব্যস্ত থাকলে জনপ্রতিনিধি হওয়ার প্রয়োজন নেই : তাজুল

অন্য কাজে ব্যস্ত থাকলে জনপ্রতিনিধি হওয়ার প্রয়োজন নেই : তাজুল

স্থানীয় সরকার, পলস্নীউন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, নির্বাচিত হওয়ার পর সেবা প্রদানের সময় যদি কেউ জনগণের পাশে না থেকে পার্টটাইম অথবা অন্য কাজকর্মে ব্যস্ত থাকে তাহলে তার জনপ্রতিনিধি হওয়ার দরকার নাই। মানুষকে সেবা দেওয়ার প্রতিশ্রম্নতি দিয়েই সবাই জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন বলেও জানান তিনি। বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার (ইএএলজি) প্রকল্পের আওতায় 'স্থানীয় সরকারে নীতি প্রণয়ন ও সংস্কার : সম্পদ আহরণ, কার্যকর সমন্বয় এবং উন্নয়ন কর্মকান্ড' শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান। মন্ত্রী বলেন, জনপ্রতিনিধি হওয়ার মুখ্য উদ্দেশ্য হচ্ছে জনগণকে সেবা দেওয়া। জনগণকে সেবা দেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র এবং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সবাইকে সবসময় মানুষের পাশে থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও বেশি উজ্জীবিত, উদ্বুদ্ধ এবং কার্যকর করতে স্থানীয় সরকার দিবস পালনের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। 'স্থানীয় সরকার দিবস' পালন করার মাধ্যমে এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পৃক্ত সবার মধ্যে একদিকে যেমন উৎসাহ তৈরি হবে অন্যদিকে কর্মস্পৃহা এবং দায়িত্ববোধ বৃদ্ধি পাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি নিয়ে মন্ত্রিপরিষদের অনুমোদনের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীন স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো ছাড়াও অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার পাশাপাশি আরও কার্যকর এবং ক্ষমতায়ন করার কাজ চলছে। তিনি আরও বলেন, স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর রাজস্ব আদায় ও ব্যয় প্রক্রিয়া আরও স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক হতে হবে। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো জনগণকে আরও ভালো সেবা প্রদানপূর্বক জনগণের কাছে দায়বদ্ধ হওয়া দরকার। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসহ সব প্রতিষ্ঠানে স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতার আওতায় আনা হচ্ছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত মিস নাটালী শুয়ার্ড এবং ইউএনডিপির ডেপুটি আবাসিক প্রতিনিধি মিস ভ্যান ন্যাগুয়েন। কর্মশালায় ইএএলজি প্রকল্প কর্তৃক সম্পাদিত গবেষণার ফলাফল এবং সুপারিশমালা উপস্থাপন করেন অধ্যাপক ডক্টর নাসিরউদ্দিন আহমেদ, সাবেক চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড; অধ্যাপক ডক্টর মোবাশ্বের মোনেম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; অধ্যাপক ডক্টর প্রণব কুমার পান্ডে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইউএনডিপির ফ্রিল্যান্স কনসালট্যান্ট মিস. নাহিদ শারমিন। এ ছাড়া কর্মশালায় জাতীয় এবং মাঠ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ এবং স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ, উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান প্রতিনিধি, প্রকল্প কর্মকর্তা, গণমাধ্যম ও অন্যান্য প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে