logo
শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ১১ আশ্বিন ১৪২৭

  যাযাদি ডেস্ক   ০৭ আগস্ট ২০২০, ০০:০০  

দায়িত্ব নিয়েই চসিক প্রশাসকের হুঁশিয়ারি

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) প্রশাসকের দায়িত্ব নিয়ে খোরশেদ আলম সুজন হুঁশিয়ার করেছেন, দুর্নীতিবাজদের কোনো রকম ছাড় দেওয়া হবে না।

বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ১০টায় নগরীর টাইগার পাসে অস্থায়ী নগর ভবনে প্রশাসকের দায়িত্ব বুঝে নেন সুজন। এর আগে ৯টা ৩৫ মিনিটের দিকে চিরচেনা পাঞ্জাবি ও সবুজ টুপি পরিহিত সুজন নগর ভবনে আসেন। কিছুক্ষণ পরেই হাজির হন সদ্য বিদায়ী মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

দায়িত্ব গ্রহণ করে সম্মেলন কক্ষে চসিক কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করেন সুজন।

এসময় কর্মকর্তাদের উদ্দেশে খোরশেদ আলম সুজন বলেন, 'মেয়র দায়িত্ব শেষ করে চলে যাবেন, কিন্তু আপনারা এখানে থাকবেন। তাই আমার অনুরোধ, আপনাদের উপর অর্পিত যে দায়িত্ব তা শতভাগ সততার সাথে পালন করবেন।'

'প্রধানমন্ত্রীর নিয়োগকৃত প্রশাসক হিসেবে আমি আপনাদের সহযোগিতা চাই। এই সিটি করপোরেশনকে আমি দলীয় কার্যালয় করব না। এখান থেকে নগরবাসীর সেবায় যা প্রয়োজন সেটাই করব।'

তিনি বলেন, 'মেয়র থাকাকালে ১৭ বছর মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাথে উনার পেছনে পেছনে ছিলাম। এই শহরের মানুষ আমাকে ভালোবাসে। অর্পিত দায়িত্ব আমার শ্রেষ্ঠটা দিয়ে পালন করব।'

তিনি বলেন, 'অতীতে কি ছিল সেটা উনি (নাছির) কিন্তু অনেক উদার লোক, আমি উদার না। এমনি হাসিখুশি। দুর্নীতি যারা করেছেন আজকে তওবা করে ফেলেন।

যার কাছে অনিয়ম দেখব, দুই নম্বরি দেখব, আমার সাথে বেঈমানী করবেন, তাকে কোনোভাবেই ছাড় দেব না। সেটা আইনি পথে বা বেআইনি পথে হোক যারা বিশ্বাসঘাতক, সাধারণ মানুষকে কষ্ট দেয় তাদেরকে ক্ষমা করব না।'

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন খোরশেদ আলম সুজন। বিদায়ী মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এসময় তার পাশে ছিলেন। সুজন বলেন, 'না পারলে দায়িত্ব ছেড়ে দেব কিন্তু অন্যায়ের সাথে আপস করব না। ভুল করে ভুল স্বীকার না করা সবচেয়ে বড় অপরাধ। ভুলের হিমালয় তৈরি করা, এটা করতে দেব না। অনেক দিন ধরে কাজ করছেন, আপনাদের যোগ্যতা দক্ষতা প্রশ্নাতীত। এটাকে ভালো কাজে ব্যবহার করুন। সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে দেখলাম জিপিওর সামনে অনেক ময়লা জমে আছে। এটা দেখতে চাই না।'

পরিচ্ছন্নতা বিভাগের উদ্দেশে সুজন বলেন, 'যেদিন বৃষ্টি হবে আমিও আপনাদের সাথে থাকব। কোথায় পানি জমে, কেন জমে, আমি দেখব। ঘরের মধ্যে থেকে, ওয়াকিটকিতে- 'হ্যালো আমি কামাল স্টোরের নিচে আছি, পানি পরিষ্কার করছি' সেটা হবে না। আমরা মহিউদ্দিন চৌধুরীর কর্মী। রাতের একটা দুইটা পর্যন্ত কাজ করেছি।'

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে সুজন বলেন, 'কোথায় সমস্যা আছে আমাকে জানান। সমালোচনাকে ভয় পাই না। আন্তরিকতার সাথে গ্রহণ করি। আমাকে ১৮০ দিন সময় দিয়েছে, ইনশালস্নাহ ১৮০ দিন আমি রাস্তায় থাকব। আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপ আমার হাতে নেই যে রাতারাতি সব সমস্যা শেষ করতে পারব। কাজ করতে গিয়ে ভুল হতে পারে কিন্তু ডিজঅনেস্টি থাকবে না। ভুল ধরিয়ে দিলে সংশোধন করার মতো মন আমার আছে।'

তিনি বলেন, 'আমি ১৮০ দিনের প্রশাসক, প্রতিটা মুহূর্ত সবাইকে নিয়ে কাজ করব। সপ্তাহে দশদিন গেলে বুঝবেন, ১৮০ দিনে কী করতে পারি। আমাকে এখানে পাঠিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, তিনি নিজেই এই শহরের দায়িত্ব নিয়েছেন। ১৮০ দিনে আমি বড় কোনো প্রজেক্ট নিব না। যেগুলো চলমান সেগুলো যেন সুন্দরভাবে বাস্তবায়ন হয়। আগে পুকুরে নামতে দেন তারপর দেখবেন কীভাবে সাঁতার কাটি।'
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সকল ফিচার

রঙ বেরঙ
উনিশ বিশ
জেজেডি ফ্রেন্ডস ফোরাম
নন্দিনী
আইন ও বিচার
ক্যাম্পাস
হাট্টি মা টিম টিম
তারার মেলা
সাহিত্য
সুস্বাস্থ্য
কৃষি ও সম্ভাবনা
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
close

উপরে