হাকালুকিতে কমেছে অতিথি পাখি

৪৬ প্রজাতির ২৪ হাজার ৫৫১টি জলচর পাখির দেখা মিলেছে
হাকালুকিতে কমেছে অতিথি পাখি
হাকালুকি হাওড়ে অতিথি পাখির বিচরণ

২০২০ সালের সর্বশেষ শুমারি অনুযায়ী দেশের বৃহত্তম হাওড় হাকালুকিতে পাখির সংখ্যা কমে গেছে বলে জানিয়েছে বার্ড ক্লাব। তারা আরও জানিয়েছে, এক বছরের ব্যবধানে দেশের এই বৃহৎ হাওড় হাকালুকির বিভিন্ন বিলে পাখির সংখ্যা কমে প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। এক শুমারিতে তারা জানান, ২০২০ সালের ২৩ ও ২৪ ফেব্রম্নয়ারি অনুষ্ঠিত শুমারিতে ৪৬ প্রজাতির ২৪ হাজার ৫৫১টি জলচর পাখির দেখা মিলেছে। তবে, হাওড়ে ৫৩ প্রজাতির ৪০ হাজার ১২৬টি জলচর পাখির উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৬ হাজার ৪৭২টি বিভিন্ন প্রজাতির হাঁসের দেখা মিলেছে।

পাখি শুমারিতে অংশ নেন বাংলাদেশ বার্ড ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি পাখি বিশেষজ্ঞ ইনাম আল হক, বার্ড ক্লাবের সহ-সভাপতি তারেক অনু, আইইউসিএনের মুখ্য গবেষক সীমান্ত দিপুসহ অন্য পাখি গবেষকরা। বন বিভাগের সহযোগিতায় ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন (আইইউসিএন), প্রকৃতি ও জীবন এবং বাংলাদেশ বার্ড ক্লাব হাকালুকি হাওড়ের ৪৬টি বিলে এবারের শুমারিটি করে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন শুমারিতে অংশ নেওয়া আইইউসিএন-এর মুখ্য গবেষক সীমান্ত দিপু। তিনি জানান, শুমারিতে ২৪ হাজার ৫৫১টি পাখির দেখা মিলেছে, তার মধ্যে ৬ হাজার ৪৭২টি বিভিন্ন প্রজাতির হাঁসের তালিকায় রয়েছে।

হাওড়, খাল, হাওয়াবন্যা, কালাপানি, রঞ্চি, দুধাই, গড়কুড়ি, চোকিয়া, উজান-তরুল, ফুট, হিংগাউজুড়ি, নাগাঁও, লরিবাঈ, তলস্নার বিল, কাংলি, কুড়ি, চেনাউড়া, পিংলা, পরোটি, আগদের বিল, চেতলা, নামা-তরুল, নাগাঁও-ধুলিয়া, মাইছলা-ডাক, চন্দর, মালাম, ফুয়ালা, পলোভাঙা, কইর-কণা, মোয়াইজুড়ি, জলস্না, কুকুরডুবি, বালিজুড়ি, বালিকুড়ি, মাইছলা, গড়শিকোনা, চোলা, পদ্মা, কাটুয়া, তেকোনা, মেদা, বায়া, গজুয়া, হারামডিঙা, গোয়ালজুড়সহ হাওড়ের ৪৩টি বিলে একযোগে পাখিশুমারি চলে।

বাংলাদেশ বার্ড ক্লাবের সহ-সভাপতি তারেক অনু জানান, যেভাবে পাখি কমেছে, তার পেছনে অনেক কারণ আছে। স্থানীয় মানুষকে সচেতন হয়ে পাখি শিকার বন্ধ এবং পাখির আবাসের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। পাখি কমে গেলে মাছও কমে যাবে। যে হাওড়ে পাখি থাকে না, প্রাকৃতিক নিয়মে সেখানে মাছও উৎপাদন হবে না। সীমান্ত দিপু জানান, হাওড় খাল বিলে ৮ হাজার ৩৮৯টি পাখির দেখা মিলেছে। সে তুলনায় এ বিলে পাখির সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। পাখি কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে পরিবেশের ভারসাম্য চিন্তা না করে মাছ ধরা এবং হাওড় শুকিয়ে যাওয়াকে দায়ী করছেন তিনি। বাংলাদেশ বার্ড ক্লাবের তথ্য অনুসারে, ২০১৭ সালে হাকালুকি হাওড়ে পাখির সংখ্যা ছিল ৫৮ হাজার ২৮১। ২০১৮ সালে তা কমে এসে দাঁড়ায় ৪৫ হাজার ১০০-তে। ২০১৯ সালে এর সংখ্যা ছিল ৩৭ হাজার ৯৩১।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে