বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০
walton

মানবতাবিরোধী অপরাধ নকলায় তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

শেরপুর ও নকলা প্রতিনিধি
  ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০০:০০

মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় শেরপুরের নকলা উপজেলার ৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবু্যনাল। সোমবার বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবু্যনাল এ রায় দেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- নকলা পৌরসভার ইসিবপুর মহলস্নার প্রয়াত শামসুজ্জামানের ছেলে আমিনুজ্জামান ফারুক, বাদাগৌড় মহলস্নার প্রয়াত ময়েজ উদ্দিন আহমেদের ছেলে মোখলেসুর রহমান ওরফে তারা এবং টালকি ইউনিয়নের বিবিরচর এলাকার প্রয়াত আব্দুল আজিজের ছেলে এ কে এম আকরাম হোসেন। এর মধ্যে মোখলেছুর তারা নকলা পৌরসভার সাবেক মেয়র ও আমিনুজ্জামান ফারুক সরকারি হাজী জালমামুদ কলেজের বাংলা বিভাগের (সাময়িক বরখাস্ত) প্রভাষক ছিলেন।

তাদের রায় ঘোষণার আগে কারাগার থেকে ট্রাইবু্যনালে হাজির করা হয়। এর আগে গত ২৪ জানুয়ারি শুনানি শেষে রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখা হয়। আর রায়ের জন্য সোমবার দিন ধার্য করা হয়।

আদালতে আসামিপক্ষে ছিলেন- আইনজীবী আবদুস সোবহান তরফদার ও আবদুস সাত্তার পালোয়ান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন।

জানা গেছে, আসামিদের বিরুদ্ধে এক নম্বর অভিযোগে নকলার রামের কান্দি বিবিরচর ও মজিদ বাড়ি গ্রামে গিয়ে সংঘবদ্ধভাবে অপহরণ, আটক, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, হত্যার মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়। আর দুই ও তিন নম্বর অভিযোগে আসামিদের বিরুদ্ধে নকলার জালালপুর গ্রামের মো. আব্দুল হান্নান ও বাজেরদি গ্রামের শাহজাহান আলী ওরফে সাজুসহ নিরস্ত্র গ্রামবাসীদের আপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছিল। তিনটি অভিযোগই ট্রাইবু্যনালে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে প্রসিকিউশন। তবে চার নম্বর অভিযোগে জোর করে শ্রম আদায় বা কাজে বাধ্য করার অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারায় এ অভিযোগ থেকে তিন আসামিকেই খালাস দেন ট্রাইবু্যনাল।

প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে ১৩ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে চারটি অভিযোগ প্রমাণ করতে পেরেছি।

প্রসিকিউশনের তথ্যমতে, ২০১৫ সালের ১৯ নভেম্বর এ মামলার তদন্ত শুরু হয়। ২০১৬ সালের ২২ আগস্ট ট্রাইবু্যনাল আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলে চার আসামিকেই গ্রেপ্তার করা হয়। ২০১৭ সালের ২৬ জুলাই এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেয় তদন্ত সংস্থা। পরে ওই বছরের ৩০ অক্টোবর চার আসামিদের বিরুদ্ধে ট্রাইবু্যনালে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করা হয় প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে। পরে ১৪ নভেম্বর অভিযোগ আমলে নিয়ে পরের বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন ট্রাইবু্যনাল।

অভিযোগ গঠনের পর ২০১৯ সালের ২ জানুয়ারি জামিনে থাকা অবস্থায় মারা যান আসামি মো. এমদাদুল হক ওরফে খাজা। পরে প্রসিকিউশনের আবেদনে ৩০ জানুয়ারি এ আসামির নাম মামলা থেকে বাদ দেন ট্রাইবু্যনাল। ওইদিনই সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করা হয়। তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ এ মামলায় সাক্ষ্য দেন ১৩ জন সাক্ষী। আসামিপক্ষের কোনো সাক্ষী ছিল না। সাক্ষ্য নেওয়া শেষ হলে ২০২২ সালের ৩ জুলাই যুক্তিতর্ক শুরু হয়। শেষ হয় চলতি বছর ২৪ জানুয়ারি। পরে সোমবার মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষায় রেখেছিলেন ট্রাইবু্যনাল।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে