রোববার, ১৭ জানুয়ারি ২০২১, ২ মাঘ ১৪২৭

কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে গরু, মই, জোয়ালের হালচাষ

কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে গরু, মই, জোয়ালের হালচাষ

কালের আবর্তে গরু ও লাঙল দিয়ে হালচাষ প্রায় উঠে যেতে বসেছে। মফস্বলের বেশির ভাগ গৃহস্থের গৃহে আর দেখা যায় না লাঙল, মই, জোয়াল। গরু, লাঙল, মই ও জোয়ালের স্থান দখল করে আছে পাওয়ার টিলার, ট্রাক্টরসহ বিভিন্ন আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি। বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় আর আধুনিক সব আবিষ্কারের ছোঁয়ায় ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে আমাদের দেশের কৃষিতেও।

এখন আর কাক ডাকা ভোরে শোনা যায় না লাঙল, জোয়াল আর গরু নিয়ে মাঠ অভিমুখে কৃষকের হাকডাক।

একসময় কৃষিতে হালের গরু, লাঙল, মই ও জোয়াল কৃষকের মূল হাতিয়ার হলেও বর্তমানে গরু শুধু দুধের জন্যই আর কোরবানির জন্য পালন করে থাকেন গৃহস্থ আর বাকি কৃষি সরঞ্জাম অনেকটাই স্মৃতির মিনারে। কৃষিতে ব্যাপক আধুনিকায়নের ফলে আজ আর হালচাষে গরু, মই, জোয়ালের তেমন ব্যবহার চোখে পড়ে না। ধানের চারা রোপণ থেকে শুরু করে ধান কেটে মাড়াইসহ ধান বস্তাবন্দি হয়ে যাচ্ছে ফসলের মাঠেই। ফলে লাঙল, মই, জোয়াল তৈরির শিল্পতে দেখা দিয়েছে ধস। কৃষির অতি প্রয়োজনীয় এসব যন্ত্রের ব্যাপক ব্যবহার না থাকায় এ ঐতিহ্যবাহী শিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে কারিগররা। বাঁচার তাগিদে জড়াচ্ছেন নতুন কোনো পেশায়। তথাপিও চাষাবাদের কোনো কোনো ক্ষেত্রে চাহিদা রয়েছে সনাতনি এসব কৃষি সরঞ্জামাদির।

গতকাল এমনই দৃশ্য চোখে পড়ে লাখাই উপজেলার একটি হাঁওড়ে। গরু, মই, জোয়ালের অপ্রতুল্যতায় যেখানে স্থানীয়ভাবে উদ্ভাবিত পদ্ধতিতে ইরি-বোরোর ধানের চারা রোপণের জন্য জমি তৈরি করছে কৃষক, আর সেখানে জোগান দিচ্ছেন আদরের দুই সন্তান।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে