লিজ ছাড়াই রাবি ছাত্রলীগের আমবাগান দখল

লিজ ছাড়াই রাবি ছাত্রলীগের আমবাগান দখল

লিজ না পাওয়া সত্ত্বেও লিজের কথা বলে ক্যাম্পাসের আমবাগান দখলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। শনিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিমপাড়া এলাকার গোদাগারী নামক আমবাগানে কয়েকজন শিক্ষার্থী আম খেতে গেলে লিজ নেওয়ার কথা বলে শিক্ষার্থীদের আম পারতে বাঁধা প্রদান করেন শাখা ছাত্রলীগের নেতারা।

এসময় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতাদের বাকবিতন্ডার পাশাপাশি ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাংবাদিকদের ছাত্রলীগ নেতারা হেনস্তা করেন বলে জানা গেছে। অভিযুক্তরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সোহরাওয়ার্দী হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন শাকিল এবং শহীদ হবিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজোয়ান গাজি মহারাজ। তারা উভয়ই বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা জানায়, সন্ধ্যায় পশ্চিমপাড়া এলাকায় আম পারতে গেলে, সেখানে উপস্থিত ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী তাদের বাঁধা দেয় এবং ক্যাম্পাসের অন্য জায়গায় গিয়ে আম পারতে বলে। পাশাপাশি সেখানে আম খেতে হলে কিনে খেতে হবে এবং এটা তারা 'লিজ' নিয়েছে বলে জানায়। এটা নিয়ে বাকবিতন্ডা শুরু হলে ছাত্রলীগ কর্মীরা তাদের মারতে উদ্যোত হয়। এসময় ঘটনাস্থলের পাশে থাকা কয়েকজন সংবাদকর্মী তাদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে, সংবাদকর্মীদেরও তারা মারতে যায়।

এ বিষয়ে সংবাদকর্মীরা জানান, আম পাড়া নিয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগ কর্মীদের বাকবিতন্ডা দেখে তাদের সঙ্গে সাংবাদিক পরিচয়ে কথা বলতে গেলে ছাত্রলীগ কর্মীরা বলে 'সাংবাদিক হইছিস তো কি হইছিস, কি নিউজ করবি কর, কারে ফোন দিবি দে।' এসময় ফোন বের করলে তারা ফোন কেড়ে নিতে আসে এবং ধস্তাধস্তি করে। একজন লাইট হাতে মারতে আসে আবার পরবর্তীতে মারার জন্য পাশে বাঁশ খুঁজতে যায়। পরে ছাত্রলীগ কর্মীরা ভুক্তভোগীদের কয়েকজনকে নিজেদের পরিচিত ছোটভাই দেখে থেমে যায়।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা সাখাওয়াত হোসেন শাকিল বলেন, ছোটখাটো একটা ঝামেলা হয়েছিল। সেটা সেখানেই মিটে গেছে। আমরা প্রথমে চিনতে পারিনি, পরে দেখি তারা আমাদের পরিচিত ছোটভাই। আর সেখানে তাদের সঙ্গে সাংবাদিকও ছিলো। এসময় তিনি সাংবাদিকে হেনস্তার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, 'সাংবাদিকের সঙ্গে কোনো ঝামেলা হয়নি।'

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, আমি বিষয়টি জেনেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো আমবাগান লিজ নেয়নি ছাত্রলীগ। আমি তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। এখন তারা ক্যাম্পাসে নেই। আগামীকাল বিষয়টি নিয়ে উভয়পক্ষের সঙ্গে বসব।

লিজের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, বাগানটি এখনও লিজ দেওয়া হয়নি তবে লিজ দেওয়ার কার্যক্রম চলছে। আমরা কাকে লিজ দিব এখনও ঠিক করিনি। লিজ না পেয়েই তারা লিজ নিয়েছে বলাটা এবং শিক্ষার্থীদের মারতে উদ্যোত হওয়াটা অন্যায় করেছে। আর তাদের বাগানে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্যও থাকতে বলা হয়নি। ঘটনার পরেই আমরা সেখানে গেছিলাম, তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি এবং বলে দিয়েছি যাতে তারা আর সেখানে না যায়। এছাড়া তাদের আগামীকাল উপ-উপাচার্য দপ্তরেও ডেকেছি।

যাযাদি/এসএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2022

Design and developed by Orangebd


উপরে