রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১

আফগানিস্তান লজ্জায় ডুবল পাকিস্তান

যাযাদি ডেস্ক
  ২৭ মার্চ ২০২৩, ০৯:৫৭
আপডেট  : ২৭ মার্চ ২০২৩, ১৪:১১
ছবি: সংগৃহীত

এর আগে কোনো প্রকার ক্রিকেটে পাকিস্তানকে হারাতে পারেনি আফগানিস্তান। এবারই প্রথম টানা ২ জয়ের পর সিরিজও জিলত তারা।

জানা যায়, এক ম্যাচ হাতে থাকতেই সিরিজ হাতছাড়া করল পাকিস্তান, সেইসাথে প্রথমবারের মতো পাকিস্তানকে সিরিজ হারানোর স্বাদ দিলো আফগানিস্তান। রোববার সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানকে ৭ উইকেটে হারানোর মধ্য দিয়ে এই কীর্তি গড়ল তারা। পাকিস্তানের দেয়া ১৩১ রানের লক্ষ্য ১ বল বাকি থাকতেই ছুঁয়েছে তারা।

শারজাহতে টসে জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তানের অধিনায়ক শাদাব খান। তবে তার সিদ্ধান্ত ভুল হতে সময় লাগেনি, কোনো রান যোগ করার আগেই ২ উইকেট হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। প্রথম ওভারেই সাইম আইয়ুব ও শফিকক্র খালি হাতে ফেরান ফজলে হক ফারুকি। ২০ রানের মাথায় আরেক ওপেনার মোহাম্মদ হারিসকেও হারায় তারা, ৯ বলে ১৫ রান করে আউট হন তিনি।

এরপর তয়্যব তাহির আর ইমাদ ওয়াসিম মিলে চতুর্থ উইকেট জুটিতে যোগ করেন ৪০ রান, ২৩ বলে ১৩ রান করে আউট হন তয়্যব। আরো তিন রান যোগ হতেই পরের ওভারে আজম খানের উইকেট হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। তাদের সংগ্রহ তখন ১১ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৬৩ রান। সেখান থেকে অধিনায়ক শাদাব খানকে সাথে নিয়ে দলের সংগ্রহ এগিয়ে নিয়ে যান ইমাদ ওয়াসিম।

ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হয়ে শাদাব ফিরলে ভাঙে দু'জনের ৫৫ বলে ৬৭ রানের জুটি। শাদাব আউট হন ২৫ বলে ৩২ রান করে। তবে ক্যারিয়ারের প্রথম টি-টোয়েন্টি অর্ধশতক তোলে নেন ইমাদ, অপরাজিত থাকেন ৫৭ বলে ৬৪ রানে। সুবাদে ১৩০ রানের মান বাঁচানো সংগ্রহ পাকিস্তান। ২ উইকেট নেন ফজলে হক ফারুকি।

১৩১ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪ ওভারে ৩০ রান আসে উদ্বোধনী জুটিতে। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে রাহমানুল্লাহ গুরবাজ ও ইবরাহিম জাদরান মিলে যোগ করেন ৫৬ রান, তবে এ সময়ে কমে আসে রানের গতি; বল খরচ করে ৬৯টি। ৪৯ বলে ৪৪ রান করে গুরবাজ ও ৪০ বলে ৩৮ রান করে আউট হন ইবরাহিম। দলের রান তখন ১৭.২ ওভারে ১০২। শেষ ১৬ বলে যখন জয়ের জন্য প্রয়োজন ২৯ রান, তখন ম্যাচে যেন দুই দল সমানে সমান।

তবে ১৯তম এভারেই ম্যাচ নিজেদের করে নেয় আফগানরা, নিয়ন্ত্রণ নিজেদের করে নিয়ে আসেন নাজিবুল্লাহ জাদরান। তাকে সঙ্গ দেন মোহাম্মদ নাবি৷ দুজনে মিলে নাসিম শাহের সেই ওভারে সংগ্রহ করেন ১৭ রান। শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৭ রান, এক বল বাকি থাকতেই জয় নিশ্চিত করেন নাজিবুল্লাহ জাদরান। নাজিবুল্লাহ ১২ বলে ২৩ ও নাবি অপরাজিত থাকেন ৯ বলে ১৪ রানে।

যাযাদি/ এস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

উপরে