ফের যুদ্ধের আবহ গাজায়

গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলা ইসরাইলি হামলা অব্যাহত হামাসও পাল্টা রকেট হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে
ফের যুদ্ধের আবহ গাজায়

১১ দিনের বিধ্বংসী লড়াইয়ের পর ২১ মে যুদ্ধবিরতিতে রাজি হয়েছিল ইসরাইল ও হামাস কর্তৃপক্ষ। কিন্তু গত বুধবার থেকেই অঞ্চলটিতে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। যুদ্ধবিরতি উপেক্ষা করেই গাজার বুকে বিরামহীন বিমান হামলা চালাচ্ছে ইসরাইল। এদিকে দেশটির সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, হামলা অব্যাহত থাকবে। সংবাদসূত্র : রয়টার্স, আল-জাজিরা

নতুন করে এ উত্তেজনার সূত্রপাত গত বুধবার ভোররাতে। ইসরাইলের অভিযোগ, হামাস আগুনের গোলাভর্তি বেলুন ইসরাইল লক্ষ্য করে পাঠিয়েছিল। এর আগেও একাধিকবার হামাস এ কাজ করেছে। আগুনের গোলা ভরা বেলুন জ্বালিয়ে দিয়েছে বহু ঘর-বাড়ি। এবারও তেমন বেলুন দেখে পাল্টা আঘাত হানে তারা। গাজা উপত্যকা লক্ষ্য করে দিনভর একের পর এক রকেট এবং বিমান হামলা চালানো হয়। ইসরাইলের সেনাবাহিনী টুইট করে জানিয়েছে, হামাসের বেশকিছু পরিকাঠামো ধ্বংস করা গেছে বলেও দাবি তাদের।

ফিলিস্তিনি সূত্র জানিয়েছে, ইসরাইলি বিমানবাহিনীর নিক্ষেপ করা ক্ষেপণাস্ত্রগুলো বৃহস্পতিবার গাজা শহরের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় বিভিন্ন স্থাপনায় আঘাত করে। এ ছাড়া ভূখন্ডটির উত্তরে অবস্থিত বেইত লাহিয়া অঞ্চলেও হামলা চালায় দেশটি।

গাজার উত্তরাঞ্চলীয় এলাকা জাবালিয়ার পূর্বে একটি সরকারি প্রশাসনিক ভবনেও হামলা চালানো হয়। এ ছাড়া দক্ষিণাঞ্চলীয় খান ইউনিস শহরের পূর্বে একটি কৃষিজমিতেও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করে ইসরাইল। অবশ্য এসব হামলায় হতাহতের কোনো ঘটনা ঘটেছে কিনা, তা নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

এদিকে, হামলার পর এক বিবৃতিতে গাজার ক্ষমতাসীন দল হামাসের মুখপাত্র ফাউজি বারহৌম বলেন, 'ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ যোদ্ধাদের বিভিন্ন স্থাপনায় ইহুদি দেশটির বিমান হামলা মূলত ইসরাইলে ক্ষমতাসীন নতুন সরকারের ক্ষমতা প্রদর্শন।' আরও বলেন, 'হামলার পরও প্রতিরোধ যোদ্ধারা ফিলিস্তিনি জনগণ এবং আমাদের পবিত্র স্থাপনাগুলো রক্ষায় অব্যাহত কাজ করে যাবে।'

অন্যদিকে, হামাসও পাল্টা রকেট হামলা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে গাজায় অবস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের বরাতে জানা গেছে। গত মাসেই হামাস এবং ইসরাইলের মধ্যে তীব্র লড়াই হয়েছিল। আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে কার্যত যুদ্ধের চেহারা নিয়েছিল। মৃতু্য হয়েছিল অসংখ্য মানুষের। তার মধ্যে বেশকিছু নারী ও শিশু ছিল।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি বিস্নংকেন টুইট করে বলেন, ইসরাইলের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ার লাপিদের সঙ্গে তার কথা হয়েছে। একযুগের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে হটিয়ে দেশটিতে এখন নতুন মন্ত্রিসভা। নতুন প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেত। বিস্নংকেন আরও বলেন, ইসরাইলের প্রতিরক্ষা সহায়তা দেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ইসরাইলকে সর্বাত্মক সাহায্য করা হবে।

বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, নতুন করে এই সংঘাত ফের যুদ্ধের আবহের দিকে যেতে পারে। হামাস পাল্টা আক্রমণ শানাতে শুরু করলে ইসরাইলের আক্রমণ আরও বাড়বে। ফের সাধারণ মানুষের মৃতু্যর আশঙ্কা তৈরি হবে। ফলে নতুন করে যুদ্ধবিরতির প্রস্তুতি নেওয়া প্রয়োজন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আরও খবর

Copyright JaiJaiDin ©2021

Design and developed by Orangebd


উপরে